Home » শেষের পাতা » স্কুল ছাত্র ধ্রুব হত্যায় খুনিদের গ্রেপ্তার দাবিতে মানববন্ধন

নিশ্চুপ থেকেও আলোচনায় শামীম ওসমান

০৬ জানুয়ারি, ২০২২ | ৯:২৯ পূর্বাহ্ণ | ডান্ডিবার্তা | 42 Views

ডান্ডিবার্তা রির্পোট

জনপ্রতিনিধি হওয়ায় নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে প্রত্যক্ষ ভাবে জড়িত হতে পাড়ছেন না সাংসদ শামীম ওসমান। তাই নির্বাচন ইস্যুতে তিনি নিশ্চুপ থাকলেও নির্বাচন ইস্যুতে বার বার শামীম ওসমানের নাম উঠে আসছে। নির্বাচনের মাত্র ৯দিন বাকি থাকলেও নীরব ভূমিকায় রয়েছেন তিনি। তবে নৌকা প্রতীকের প্রার্থী সেলিনা হায়াত আইভীর সাথে সাংসদ শামীম ওসমানের দীর্ঘদিনের চলমান বিরোধের কারণে নাসিক নির্বাচনে আলোচনার কেন্দ্র বিন্দুতে শামীম ওসমানের নাম উঠে আসছে। যদিও ইতিমধ্যে শামীম ওসমানের অনেক অনুসারি নৌকা প্রতীকের প্রার্থীর পক্ষে প্রচারণা করতে দেখা গেছে। সর্বশেষ ছাত্রলীগও নৌকা প্রতীকের প্রচারণা চালিয়েছে। তবে নির্বাচনে কেন্দ্রীয় ভাবেও বড় ফ্যাক্টর হয়ে দাঁড়িয়েছেন শামীম ওসমান। কেননা নারায়ণগঞ্জে বিশাল কর্মী বাহিনী রয়েছে শামীম ওসমানের। শুধু সিটি এলাকাতেই নয়, পুরো নারায়ণগঞ্জেই শামীম ওসমানের আধিপত্য রয়েছে। গত একাদশ সংসদ নির্বাচনে নিজের নির্বাচনী এলাকা ছাড়াও অন্য আরো চারটি আসনেও মনিটরিংয়ে ছিল শামীম ওসমানের। জানাগেছে, নির্বাচনী প্রচারে সরগরম নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশন এলাকা। তবে ভোটের মাঠে কোথাও এখানকার সরকারি দলের সাংসদ শামীম ওসমানের উপস্থিতি নেই। তবে আলোচনায় আছে তাঁর নাম। এখানকার আওয়ামী লীগের প্রার্থী সেলিনা হায়াৎ আইভীর সঙ্গে তাঁর বিরোধের বিষয়টিও সামনে আসছে। তাই অনেকে বলছেন, এই ভোটে শামীম ওসমান না থাকলেও তাঁর ছায়া আছে। নারায়ণগঞ্জ আওয়ামী লীগের বিভিন্ন পর্যায়ের নেতাদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, এই নির্বাচনে বিএনপি অংশ না নেওয়ার সিদ্ধান্ত নিলেও দলটির নেতা তৈমুর আলম খন্দকার স্বতন্ত্র প্রার্থী হওয়ার পেছনে আইভীর অনুসারীরা শামীম ওসমানকে দায়ী করছেন। তবে তৈমূর দাবী করেছেন, আমি সংগ্রামী নেতা। পঞ্চাশ বছরের রাজনীতিতে তিনি সবল শ্রেনী পেশার মানুষের সাথে মিসেছে। তৈমূর এমনও বলেছেন, কারো দেখানো পথে তৈমূর হাটে না। আমি জনগণের প্রার্থী। জনগণের ভালবাসায় তিনি নির্বাচনে অংশ নিয়েছেন। এদিকে সাংসদ শামীম ওসমানের একাধিক ঘনিষ্ঠ সূত্র বলছে, মেয়র আইভীর সঙ্গে শামীম ওসমানের বিরোধ দূর হয়নি। মাস দুয়েক আগে নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের কবরস্থানে শ্মশানের মাটি ফেলা নিয়ে শামীম ওসমান মনঃক্ষুণœ হয়েছিলেন। তাঁর মা-বাবার কবরেও মাটি ফেলা এবং এ বিষয়ে মেয়র আইভীর আনুষ্ঠানিক বক্তব্য নিয়ে শামীম ওসমান বেশ ক্ষুব্ধ। কেননা শামীম ওসমান তার মা-বাবাকে অনেক সম্মান করেন। এমনকি বিভিন্ন অনুষ্ঠানে মা-বাবার প্রতি ভালবাসা বাড়াতে উৎসাহমুলক বক্তব্যও দিতে দেখা গেছে শামীম ওসমানকে। ওই সূত্র বলছে, শামীম ওসমানের প্রত্যাশা ছিল, আইভী তাঁর কাছে ক্ষমা চাইবেন। এখন তিনি দলীয় সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছ থেকে সরাসরি কোনো নির্দেশনা আশা করছেন। তবে সাংসদের ঘনিষ্ঠজনরা বলছেন, আচরণবিধির জন্য সাংসদ শামীম ওসমান মাঠে নামছেন না; তিনি সবাইকে দলীয় প্রার্থীর পক্ষে প্রচারের নির্দেশনা দিয়েছেন। তাঁর অনুসারীসহ দলের সবাই মাঠে আছেন।

Comment Heare

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *