আজ: বুধবার | ২০শে জানুয়ারি, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ | ৬ই মাঘ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ | ৭ই জমাদিউস সানি, ১৪৪২ হিজরি | রাত ১২:৩৮

সংবাদ দেখার জন্য ধন্যবাদ

নেতাদের কোন্দলের শেষ কোথায়!

২৯ নভেম্বর, ২০২০ | ৭:৪৪ পূর্বাহ্ন | ডান্ডিবার্তা | 103 Views

ডান্ডিবার্তা রিপোর্ট
বিভিন্ন ইস্যুতে স্থানীয় আওয়ামীলীগের নেতারা কোন্দলে জড়িয়ে পড়ছেন। বর্তমান পরিস্থিতে আওয়ামীলীগের প্রতি পক্ষ এখন আওয়ামীলীগই। তারই ধারাইহিগতায় সোনারগাঁ জি আর ইনস্টিটিউশন স্কুল অ্যান্ড কলেজের মূল ফটকের সামনে আনোয়ার হোসেনের নামফলক ভেঙ্গে দেয়াকে কেন্দ্র করে জেলা ও মহানগর আওয়ামীলীগের নেতারা একে অপরকে উদ্দেশ্য করে বিষোদগার করছেন। আনোয়ানের পক্ষে মানবন্ধনে ‘আওয়ামী লীগ স্বাধীনতা বিরোধী দল’ বক্তব্য দিয়ায় দল থেকে অব্যাহতি দেয়া হয়েছে জেলা আওয়ামীলীগের যুগ্ম সম্পাদক জাহাঙ্গীর আলমকে। এতে ক্ষিপ্ত হয়ে সভাপতি আব্দুল হাইয়ের ধারভার নাই বলে মন্তব্য করেছেন জাহাঙ্গীর আলম। একই সাথে জাহাঙ্গীর আলম আরো মন্তব্য করেছেন আর খোকা বাবাকে বাঁচাতে ভিপি বাদল আমাকে অব্যাহতি দিয়েছেন। এব্যাপারে জেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি আব্দুল হাইয়ের সাথে মোবাইল ফোনে যোগাযোগ করলে তিনি জানান, খোকা কোন বিষয়না। কাউকে খুশি করতে এটা করা হয়নি। তিনি আরো বলেন, টাকার বিনিময়ে কোন পদ-পদবী দেয়া হয়েছে এমন কোন প্রমাণ থাকলে আমি নিজে পদত্যাগ করবো। অভিযোগে রয়েছে, বিভিন্ন সময়ে বিভিন্ন ইস্যুতে উস্কানীমূলক বক্তব্য নিয়ে দলের মধ্যে কোন্দল সৃষ্টি করে আসছে জাহাঙ্গীর আলম। জানাগেছে, নারায়ণগঞ্জ আওয়ামীলীগের ঘরোয়া কোন্দলের কারনে ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে তৃনমূল আওয়ামীলীগের কর্মীরা। এক যুগেরও বেশি সময় ধরে ক্ষমতায় থাকলেও দলীয় প্রভাব বিস্তারে ব্যর্থ হচ্ছে দলটি। অনেক যোগ্য নেতার আকাশচুম্বী জনপ্রিয়তা থাকার পরও কোন পদে আসীন হতে পারছে না রাজপথের নেতৃবৃন্দ। পূর্বের সেই পুরানো মুখগুলোই ঘুরে ফিরে পদ পদবীতে বহাল থাকছে। এর ফলে নারায়ণগঞ্জ আওয়ামী লীগের রাজনীতি মুষ্টিমেয় কিছু নেতার মধ্যে সীমাবদ্ধ নারায়ণগঞ্জ আওয়ামীলীগের কার্য্যক্রম। এমনটাই অভিমত ব্যক্ত করেছেন খোদ আওয়ামী লীগের তৃনমূলের নেতাকর্মীদের। আর এ নিয়ে অভিযোগ আর অভিমান রয়েছে পদহীন নেতাদের মধ্যেও। বেশ কিছু নেতার সাথে আলোচনায় উঠে এসেছে এসব বিষয়গুলো। যারা দলের দুদির্নে দিনের পর দিন রাজপথে থেকে আন্দোলণ সংগ্রামে কিংবা দলীয় কর্মসূচিতে অংশ নিয়ে দলের জন্য কাজ করে যাচ্ছে এমন অনেক নেতা এখনো পদ শূণ্য রয়েছে। যারাই পদ পদবীতৈ আসীন হয়েছে তা প্রত্যাশিত পদ নয় বলে জানাগেছে। আর এ নিয়ে কাঙ্খিত পদ না পাওয়া নেতাদের মধ্যেও রয়েছে ক্ষোভ আর অভিমান। তবে নারায়ণগঞ্জ আওয়ামী লীগের মূলদলের কমিটি হলেও যুবলীগ, স্বেচ্ছাসেবক লীগসহ অন্যান্য অঙ্গ সংগঠনের কাউন্সিল না হওয়ায় নতুন নতুন নেতৃত্ব তৈরী হচ্ছে না বলে মনে করছেন রাজনৈতিক বোদ্ধা মহল। এ ক্ষমতায় থেকেও আওয়ামী লীগের অঙ্গ সংগঠনগুলো পূর্নগঠনে ব্যর্থ হওয়ায় শীর্ষ নেতাদের দোষারোপ করছেন দলের তৃনমূলের নেতাকর্মীরা। রাজনৈতিক বোদ্ধাদের মতে, আওয়ামী লীগকে শক্তিশালী করতে হলে অঙ্গ সংগঠন গুলোকে নতুন করে ঢেলে সাজানোর কোন বিকল্প নেই। তার আগে নেতাদের ঐক্যবদ্ধ হতে হবে।



Comment Heare

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

Top