Home » প্রধান সংবাদ » আতঙ্কে মন্ত্রী এমপি প্রশাসন

নৌকার পক্ষে মাঠে নামেনি তারা

১১ নভেম্বর, ২০২১ | ৮:১৮ পূর্বাহ্ণ | ডান্ডিবার্তা | 120 Views

ডান্ডিবার্তা রিপোর্ট

ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনকে কেন্দ্র করে নারায়ণগঞ্জ আওয়ামীলীগের শীর্ষ নেতা থেকে শুরু করে মাঠ পর্যায়ের নেতারা উজ্জীবিত হয়েছিল। আজ বৃহস্পতিবার দ্বিতীয় ধাপে নারায়ণগঞ্জের ১৬টি ইউনিয়নের নির্বাচন অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে। গত বুধবার ছিল নির্বাচনের প্রচার প্রচারণার শেষ দিন। নির্বাচনী প্রচার-প্রচারণায় দলীয় প্রতীক নৌকার প্রার্থীর পক্ষে মাঠে নামনে দেখা যায়নি স্থানীয় আওয়ামীলীগের শীর্ষ নেতাদের। মহানগর আওয়ামীলীগের সভাপতি আনোয়ার হোসেনকে নৌকা প্রতীকের কোন প্রার্থীর পাশে দেখা যায়নি। এমনকি ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন ইস্যুতে অনেকটা নিশ্চুপ ছিলেন তিনি। আনোয়ার হোসেন ছাড়াও জিএম আরাফাত, আব্দুল কাদির, আরজু রহমান ভূইয়া, আসাদ, মাহমুদা মালা, আনিসুর রহমান দিপু, কাউসার আহাম্মেদ পলাশসহ শীর্ষ অনেক নেতাই নৌকা প্রতীকের প্রার্থীদের পক্ষে মাঠে দেখা যায়নি। তবে নৌকা প্রতীকের প্রার্থীকে বিজয়ী করতে আব্দুল হাই, আবু হাসনাত শহীদ বাদল, চন্দন শীল, শাহ নিজাম, খোকনসহ সাংসদ শামীম ওসমানের বলয়ের নেতারা নৌকা প্রতীকের প্রার্থীদের পক্ষে মাঠে ছিলেন। তবে মেয়র সেলিনা হায়াত আইভী বলয়ের মধ্যে শুধু মাত্র দুইদিন আবু সুফিয়ান ও জাহাঙ্গীর নৌকার প্রচারণা চালিয়ে ছিলেন। যদিও ফটোসেশনের মধ্যদিয়েই তাদের নির্বাচনী প্রচারণা শেষ করেছেন। এদিকে, যে সকল নেতারা নৌকার প্রার্থীদের পক্ষে মাঠে ছিলেন না তাদের বিরুদ্ধে ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন সাধারণ নেতাকর্মীরা। জানাগেছে, আজ বৃহস্পতিবার নারায়ণগঞ্জের ১৬ ইউনিয়ন পরিষদে একযোগে ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে। ইউপি নির্বাচনকে কেন্দ্র করে এখন পর্যন্ত বিভিন্ন স্থানে সহিংসতার ঘটনা ঘটেছে। রূপগঞ্জ উপজেলায় একটি ইউপিতে গুলি করে হত্যার ঘটনাও ঘটেছে। ইউপি নির্বাচনের দ্বিতীয় ধাপে নারায়ণগঞ্জ সদর, বন্দর ও রূপগঞ্জ; এই তিন উপজেলার ১৬ ইউপিতে ভোটগ্রহণের সকল প্রস্তুতি সম্পন্ন করেছে নির্বাচন কমিশন। গত বুধবার দুপুর থেকে বিভিন্ন ভোটকেন্দ্রে ব্যালট বাক্স ও আনুসাঙ্গিক জিনিসপত্র পাঠানো শুরু হয়েছে। ইতোমধ্যে প্রতিটি কেন্দ্রে প্রিজাইডিং অফিসার নিয়োগ করা হয়েছে। ১১ নভেম্বর সকাল ৮টা থেকে বিকেল ৪টা পর্যন্ত বিরতিহীনভাবে ভোটগ্রহণ চলবে বলে জানিয়েছে জেলা নির্বাচন অফিস। এদিকে এই নির্বাচনকে কেন্দ্র করে গত কয়েক দিনে বিভিন্ন ইউনিয়ন পরিষদে সহিংসতার ঘটনা ঘটেছে। রূপগঞ্জ উপজেলার মুড়াপাড়া ইউনিয়নে দুই সাধারণ সদস্য প্রার্থীর বিরোধের জেরে এক যুবককে গুলি করে হত্যার ঘটনাও ঘটেছে। এছাড়া গোগনগর, কলাগাছিয়া, কায়েতপাড়া, আলীরটেক, কাশিপুর, মুছাপুর, মদনপুরসহ বিভিন্ন ইউপিতে প্রার্থীদের ক্যাম্প ভাঙচুর, হামলা, প্রার্থী ও তার কর্মী-সমর্থকদের হামলা ও ভাঙচুরের ঘটনা ঘটেছে। তবে ভোটগ্রহণের দিন এমন কোনো ঘটনা ঘটবে না বলেই আশাবাদ ব্যক্ত করেছে নারায়ণগঞ্জ জেলা প্রশাসন। তবে সর্বশেষ সাধারণ মানুষের মধ্যে নির্বাচনী আমেজ দেখা গেছে। তবে এই নির্বাচনী আমেজে শীর্ষ অনেক নেতাই নিশ্চুপ ছিলেন। দলীয় প্রতীক নৌকার প্রার্থীর পক্ষে মাঠে নামেনি শীর্ষ অনেক নেতা।

Comment Heare

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *