Home » শেষের পাতা » হাইকোর্টের আদেশ অমান্য করে সড়ক-মহাসড়কে চলছে চাঁদাবাজী

পলাশকে নৌকার প্রার্থী চেয়ে পোস্টারিং

২৫ মে, ২০২২ | ৭:০৩ পূর্বাহ্ণ | ডান্ডিবার্তা | 75 Views

ডান্ডিবার্তা রিপোর্ট

দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের বাকি আছে দেড় বছরেরও বেশি সময়। তবে সম্ভাব্য প্রার্থী ও তাদের কর্মী-সমর্থকেরা ইতোমধ্যে নির্বাচনকে লক্ষ্য করে ব্যস্ততা বাড়িয়েছেন। রাজনৈতিক, সামাজিক ও দাতব্য অনুষ্ঠানগুলোতে তাদের উপস্থিতি জানান দেয় যে নির্বাচন ঘনিয়ে আসছে। ‘প্রাচ্যের ডান্ডিখ্যাত’ নারায়ণগঞ্জের রাজনীতি নানা কারণেই বরাবরই থেকেছে আলোচনার শীর্ষে। বিশেষত এই জেলার প্রভাবশালী আওয়ামী লীগ নেতা ও ফতুল্লা-সিদ্ধিরগঞ্জ আসনের সংসদ সদস্য একে এম শামীম ওসমান দেশের গ-ি পেরিয়ে বিদেশেও পরিচিতি লাভ করেছেন নানা ঘটনায়। তার আসনের দিকেও তাই কৌতুহল বেশি রাজনীতি বিশ্লেষকসহ জনমানুষের। এবার সেই ফতুল্লা-সিদ্ধিরগঞ্জ আসনেরই আরেক আলোচিত শ্রমিক নেতা, কেন্দ্রীয় শ্রমিক লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক কাউসার আহমেদ পলাশকে নৌকা প্রতীকে সংসদ সদস্য দেখতে চেয়ে ব্যাপক পোস্টারিং করা হয়েছে। ছাত্রলীগের মাধ্যমে রাজনীতিতে পদার্পণ করা পলাশ একসময় শ্রমিক লীগে নিজেকে জড়ান। বর্তমানে তিনি শ্রমিক লীগের কেন্দ্রীয় নেতা। নারায়ণগঞ্জের রাজনীতিতে তার আলাদা প্রভাব রয়েছে। বিশেষত বৃহত্তর ফতুল্লা শিল্পাঞ্চলের বড় একটি অংশে তার নিয়ন্ত্রণ রয়েছে। শ্রমিক শ্রেণির সাথেও তার রয়েছে সখ্যতা। এছাড়া বস্ত্র ও পাটমন্ত্রী গোলাম দস্তগীর গাজী এমপি, নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের মেয়র ডা. সেলিনা হায়াৎ আইভী, জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আব্দুল হাই, মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি আনোয়ার হোসেন, জেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি আব্দুল কাদির, যুগ্ম সম্পাদক জাহাঙ্গীর হোসেন, জেলা আওয়ামী লীগের সদস্য মো. শহীদুল্লাহ সহ জেলা- মহানগরের সিনিয়র নেতাদের সাথে পলাশের হৃদ্যতা লক্ষনীয়। সরেজমিনে দেখা যায়, পলাশকে নৌকা প্রতীক দেওয়ার দাবিতে করা পোস্টারে ছেয়ে গেছে ফতুল্লাসহ অন্যান্য এলাকা। আর এতে করে আলোচনায় চলে এসেছে ফতুল্লা-সিদ্ধিরগঞ্জ আসনের রাজনৈতিক পরিস্থিতি। একাধিক সূত্র জানায়, নবম, দশম ও একাদশ সংসদ নির্বাচনেও সংসদ সদস্য প্রার্থী হতে চেয়েছিলেন পলাশ। একাদশ সংসদ নির্বাচনের ডামাডোল বেজে ওঠার আগেই পলাশের বাড়িতে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের এক ঝটিকা সফরে পলাশের বাড়িতে হাজির হলে নড়েচড়ে বসেন রাজনৈতিক বিশ্লেষকেরা। কাদেরের উপস্থিতিতেই সেখানে এসে হাজির হন জেলার প্রভাবশালী সংসদ সদস্য একেএম শামীম ওসমান। পলাশের বাড়িতে কাদেরের আগমনকে ‘গ্রীন সিগন্যাল’ ধরে নিয়ে পলাশ সমর্থক নেতাকর্মীরা দ্বিগুণ উৎসাহে মাঠে নামলেও ভাগ্যের শিকে ছিঁড়েনি তাদের। ২০১৮ সালের ৩০ ডিসেম্বর অনুষ্ঠিত সংসদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন পেয়ে এমপি হন শামীম ওসমান। তবে সম্প্রতি ভারত থেকে চিকিৎসা শেষে দেশে ফিরে রাজনৈতিক কর্মকা-ে সক্রিয়তা বাড়িয়েছেন পলাশ। প্রায় প্রতিদিনই অনুগত নেতাকর্মী- সমর্থকদের নিয়ে একান্ত বৈঠকে মিলিত হচ্ছেন তিনি। শুধু তাই নয়, তার নেতাকর্মী- সমর্থকেরাও বিভিন্ন কর্মসূচীতে অংশ নিচ্ছেন তার নির্দেশে। আর এতেই প্রতীয়মান হয় আগামী নির্বাচনকে ঘিরে প্ল্যানমাফিক এগোচ্ছেন পলাশ। তিনি যে নারায়ণগঞ্জের সুবিধাজনক অবস্থানে থাকা একটি প্ল্যাটফর্মের সমর্থন পাবেন সেটিও একপ্রকার নিশ্চিত। তবে শামীম ওসমানের মতো জাঁদরেল রাজনীতিবিদকে পেছনে ফেলে ফতুল্লা-সিদ্ধিরগঞ্জ আসনের মনোনয়ন পলাশের ভাগ্যে জুটবে কি না, সেটি দেখতে অপেক্ষা করতে হবে আরো এক বছরেরও বেশি সময়।

Comment Heare

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *