আজ: শুক্রবার | ২৫শে সেপ্টেম্বর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ | ১০ই আশ্বিন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ | ৮ই সফর, ১৪৪২ হিজরি | সকাল ১০:৫৩

সংবাদের পাতায় স্বাগতম

প্রবীন নেতাদের অন্তরায় তরুন নেতারা

ডান্ডিবার্তা | ১৬ সেপ্টেম্বর, ২০২০ | ৭:৩৩

ডান্ডিবার্তা রিপোর্ট
নারায়ণগঞ্জে বিএনপির নেতায় নেতায় কোন্দল কোন ভাবেই থামানো যাচ্ছে না। নেতারা বিভিন্ন ইস্যুতে কোন্দলে জড়িয়ে পড়ছেন। বর্তমানে জেলা ও মহানগর বিএনপির নতুন কমিটিতে পদ বাগিয়ে আনতে নেতারা দ্বন্দ্বে জড়িয়ে পড়েছেন। নিজ নিজ বলয়কে শক্তশালী করতে মাঠে নেমেছেন। তাই স্থানীয় বিএনপির নেতারা বিরোধ তৈরীতে ব্যস্ত সময় কাটালেও দলকে সাংগঠনিক ভাবে শক্তিশালী করতে কিংবা দলীয় নেতাকর্মীদের সংগঠিত করতে কেউ কাজ করছে না। এ নিয়ে বিএনপির তৃনমূলে দলের শীর্ষ নেতাদের ভূমিকায় অনেকটা ক্ষুদ্ধ। তবে এসব নেতাদের রাজনৈতিক কর্মকান্ডে কেন্দ্রীয নেতারা যে সন্তুষ্ট নয় তা স্থানীয় বিএনপির অনেক শীর্ষ নেতাই জানেন। কিন্তু তারপরও তারা দলের ভেতরে নিজেদের প্রভাব ধরে রাখতে এবং নিজস্ব বলয় তৈরী করতে নানা ভাবে সক্রিয় রয়েছে। এছাড়া দলের অনেক নেতা ক্ষমতাসীন দলের সাথে আতাঁত করে চললেও নতুন করে অনেক নেতা ক্ষমতাসীন দলের বিভিন্ন স্তরের নেতাদের সাথে সখ্যতা গড়ে তোলার চেষ্টা করছে বলে বিএনপির বিভিন্ন সূত্রে জানাগেছে। তবে বিএনপির নেতাকর্মীদের মধ্যে যে চরম হতাশা বিরাজ করছে তা তাদের কর্মকান্ডের মাধ্যমে ফুটে উঠেছে। তবে দলীয় কর্মীদের মধ্যে এ অবস্থান সৃষ্টির পেছনে দলের দায়িত্বশীল নেতাদের বিরোধ দায়ি বলে মনে করছেন বোদ্ধা মহল। সূত্রমতে, নারায়ণগঞ্জ বিএনপির বিরোধ কোন ভাবেই থামছে না। বিভিন্ন ইস্যু নিয়ে নেতারা দ্বন্দ্বে জড়িয়ে পড়েছেন। স্থানীয় নেতাদের দলীয় কোন্দল নিরসনে নতুন করে জেলা ও মহানগর বিএনপির কমিটি সাজানোর পরিকল্পনা নেয় কেন্দ্রীয় নেতারা। তবে এতেও বিরোধ মিটে নি। কমিটিতে পদ বাগিয়ে আনতে স্থানীয় নেতারা কেন্দ্রে লবিংসহ নিজ বলয়কে শক্তশালী করতে নতুন করে বিরোধে জড়িয়ে পড়েছেন। দলের শীর্ষ নেতারা দায়িত্ব নিয়ে বিরোধ মিটাতে এগিয়ে না আসলেও বিরোধ তৈরীতেই এরা ব্যস্ত বেশী। দলের অধিকাংশ নেতাই এখন বিরোধে জড়িয়ে পরেছে। যে কারণে দলের অঙ্গ সংগঠনগুলোও বিরোধের অংশ হয়ে দাঁড়িয়ছে। বিএনপির বিরোধ এখন অঙ্গ সংগঠনেও ছড়িয়ে পরেছে। অনেক ক্ষেত্রে বিএনপির শীর্ষ নেতাদের সাথে অঙ্গ সংগঠনের নেতারাও বিরোধে জড়িয়ে পরেছে। দলের অনেক শীর্ষ নেতার জন্য অঙ্গ সংগঠনের নেতারা এখন চ্যালেঞ্জ হয়ে দাড়িয়ে। ইতোমধ্যে অঙ্গ সংগঠনের অনেক শীর্ষ নেতাই বিএনপির জন্য মূল ফ্যাক্টর হয়ে দাঁড়িয়েছে। এছাড়া আগামীতে অঙ্গ সংগঠনের অনেক শীর্ষ নেতা বিএনপির বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ন পদে আসছে বলেও বিএনপির নির্ভরযোগ্য একাধিক সূত্র জানিয়েছে। আর এ খবর বিএনপির শীর্ষ নেতারা বুঝতে পেরেই অঙ্গ সংগঠনের শীর্ষ নেতাদের সাথে নেতৃত্বের প্রতিযোগীতায় লিপ্ত হয়েছে। অনেকে অঙ্গ সংগঠনের নেতাদের রাজনীতি থেকে মাইনাসেরও চেষ্টা চালাচ্ছে। দলের হয়ে বিগত দিনে যে সমস্ত নেতারা আন্দোলনে রাজপথে ছিল তাদের মধ্য থেকে অনেক তরুন নেতা বিএনপির শীর্ষ পদে আসছে। দলের হাইকমান্ড এমন সিদ্ধান্তই নিয়েছেন। এছাড়া বিগত সময়ে আন্দোলনে বিএনপির নেতাদের চেয়ে অঙ্গ সংগঠনের নেতারাই সব চেয়ে বেশী ভূমিকা রেখেছে এমনকি করোনা পরিস্থিতিতে সাধারণ মানুষের পাশে থেকে বিএনপির অনেক তরুণ নেতা দলের ইমেজ বাড়িয়েছেন। যে কারনে আগামীদিনে বিএনপির মূল নেতৃত্বে আনা হচ্ছে তরুন নেতাদের। অপরদিকে, বিএনপির বেশ কিছু নেতার বিরুদ্ধে ক্ষমতাসীন দলের নেতাদের সাথে আতাঁতের অভিযোগ দীর্ঘদিনের। অনেক নেতা ক্ষমতাসীন দলের প্রভাবশালী নেতাদের পাবে বসতে পেরে নিজেকে ধন্য মনে করছে এমন অভিযোগ বিএনরপির তৃনমূলের। দলের মধ্যে বিরোধ সৃষ্টির সাথে এসব আতাঁতকারী নেতাদের অনেকেই জড়িত বলে বিএনপির বিভিন্ন সূত্রে জানাগেছে। এসব নেতাদের অনেকে ক্ষমতাসীন দলের সাথে আতাঁত করে চলার কারণে তাদের নিয়ে নিজ দলের চরছে কঠোর সমালোচনা। ক্ষোভ প্রকাশ করতে দেখা দেখা গেছে অনেক নেতাকর্মীকে। তাই নতুন কমিটিতে আতাঁতকারীদের কোন প্রকার সুযোগ নেয়া না হয় এমন দাবী দলের ত্যাগী নেতাকর্মীদের।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *