Home » শেষের পাতা » অধিগ্রহণ হচ্ছে নদীর জমি

বিএনপিকে ঠেকাতে প্রস্তুত আ’লীগ

১৯ নভেম্বর, ২০২২ | ১২:৩৯ অপরাহ্ণ | ডান্ডিবার্তা | 70 Views

ডান্ডিবার্তা রিপোর্ট  আগামী ১০ ডিসেম্বর ঢাকায় বিএনপির মহাসমাবেশ ঘিরে উত্তাপ রাজনীতি। বিএনপির সিনিয়র নেতারা বলছেন, ঢাকার মহাসমাবেশ থেকে সরকারকে লাল কার্ড দেখানো হবে। জ্বালানি তেলসহ নিত্যপণ্যের মূল্যবৃদ্ধি, বিএনপির আন্দোলনে পাঁচ নেতা-কর্মীর নিহত হওয়ার প্রতিবাদে। তাদের এই সমাবেশ। এবং দলের চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার মুক্তি, নির্দলীয় ও নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে সংসদ নির্বাচনের দাবিতে সব বিভাগীয় শহরে এই সমাবেশ করছে বিএনপি। সমাবেশ থেকে দেয়া হবে নতুন কর্মসূচি। ঢাকার এই সমাবেশকে ঘিরে নারায়ণগঞ্জ জেলা মহানগর বিএনপি ব্যপক প্রস্তুতি গ্রহন করেছে। একই সাথে এই মহা সমাবেশকে সফল করার জন্য জেলা মহানগর বিএনপি সকল বাধা উপেক্ষা করে বাস্তবায়ন করতে দৃঢ় প্রতিজ্ঞাবদ্ধ। অপরদিকে বিএনপির যে কোন অরাজাকতাকে প্রতিহত করার জন্য রাজপথে প্রস্তুত থাকবে যুবলীগ। সেই আওয়ামী লীগ সহ সকল অঙ্গ সংগঠনের নেতৃবৃন্দও উপস্থিত থাকবে বলে জানান দলীয় হাই কমান্ড। তারই ধারাবাহিকতায় গত ১১ নভেম্বর ঢাকার সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে কেন্দ্রীয় যুবলীগের উদ্যোগে যুব মহা সমাবেশ করেন। সেখানে প্রধান অতিথি হিসেবে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা উপস্থিত ছিলেন। আওয়ামী লীগ যুবলীগ চেয়ারম্যান শেখ ফজলে শামস্ পরশ বলেছেন, “বিএনপিকে মোকাবিলা করতে প্রয়োজন হলে আবারও যুদ্ধে অবতীর্ণ হবে যুবলীগ। তাদের অরাজকতা এবং বিএনপিকে প্রতিহত করার জন্য নারায়ণগঞ্জ জেলা মহানগর আওয়ামী লীগও প্রস্তুত রয়েছে বলে জানান ক্ষমতাসীন দলের এই নেতা।” নারায়ণগঞ্জ মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি আনোয়ার হোসেন বলেন, “আগামী ১০ ডিসেম্বর বিএনপির মহা সমাবেশ ঘিরে দেশে কোন নৈারজ্য সৃষ্টি করলে তা প্রশাসন দেখবে। বিএনপির নৈরাজ্যকে প্রতিহত করার জন্য দল থেকে আমাদের কোন নির্দেশনা দেয়া হয় নাই, এটা প্রশাসন দেখবে।” মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এড. খোকন সাহা বলেন, “বিএনপি কোন নৈরাজ্য সৃষ্টি করলে তা জনগণ প্রতিহত করবে। সেই সাথে প্রশাসন তা দেখবে।” মহানগর আওয়ামী লীগের যুগ্ম সম্পাদক শাহ নিজাম জানান, “বিএনপির যে কোন নৈরাজ্যকে প্রতিহত করার জন্য আমাদের নেতা এমপি শামীম ওসমানের নির্দেশে সব সময় প্রস্তুত ছিলাম, এখনো আছি এবং আগামীতেও থাকবো।” মহানগর আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক জি এম আরমান বলেন, “আমরা দল থেকে তেমন কোন নির্দেশনা পাই নাই। তাছাড়া জনগনের জান মালের ক্ষতি হলে তার জন্য প্রশাসন আছে; তারা দেখবে। জনগণের ক্ষতি হোক আমরা তেমন কিছু চাই না।” নারায়ণগঞ্জ মহানগর যুবলীগের সভাপতি শাহাদাত হোসেন সাজনু বলেন, “বিএনপি সমাবেশকে ঘিরে কোন ধরনের নৈরাজ্য সৃষ্টি করলে তাদের প্রতিহত করার জন্য; আমরা নারায়ণগঞ্জ মহানগর যুবলীগ সব সময় প্রস্তুত আছি। তারা যদি ২০১৪ সনের মত মানুষ আগুনে পুড়িয়ে মারে তাহলে যুবলীগ রাজপথে থেকে তার জবাব দিবে।” মহানগর যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক আলী রেজা উজ্জল জানান, “আমরা দলের দুঃসময়ে রাজপথে ছিলাম এখন সু সময়েও আছি। দলের নির্দেশনা পেলে যে কোন ধরনের নৈরাজ্য সৃষ্টি হলে তা প্রতিহত করার জন্য প্রস্তুত আছি।”

Comment Heare

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *