Home » শেষের পাতা » হাইকোর্টের আদেশ অমান্য করে সড়ক-মহাসড়কে চলছে চাঁদাবাজী

বিএনপিতে আধিপত্য নিয়ে দ্বন্দ্ব

০৯ আগস্ট, ২০২২ | ১০:০৯ পূর্বাহ্ণ | ডান্ডিবার্তা | 61 Views

ডান্ডিবার্তা রিপোর্ট বিএনপি এবং অঙ্গ সংগঠনের একাধিক নেতা দলের সিনিয়র, জুনিয়রদের সাথে দ্বন্দ্বে জড়িয়ে যাচ্ছে। দলের ভেতরের আধিপত্য বিস্তার নিয়েই মূলতঃ দলের ভেতরে একাধিক উপদলের সৃষ্টি হয়েছে। এই দ্বন্দ্ব বিভিন্ন সময় সংঘাত, সংঘর্ষে রূপ নিচ্ছে। ইতোপূর্বে দলের মধ্যে একাধিক সংঘর্ষের ঘটনা ঘটছে। মাঠ পর্যায়ের নেতাদের পাশাপাশি জেলা বিএনপির ভারপ্রাপ্ত আহবায়ক মনিরুল ইসলাম রবি ও সদস্য সচিব অধ্যাপক মামুন মাহমুদও হামলার শিকার হয়েছেন। এসব কর্মকান্ডের মধ্য দিয়ে জেলা বিএনপিতে ল্যাং মারার রাজনীতি শুরু হয়েছে। সূত্রমতে, ক্ষমতায় নেই দীর্ঘ ১৪ বছর ধরে, রাজনৈতিক মামলায় যবুথবু অবস্থা। অনেক নেতা দীর্ঘদিন ফেরারি জীবন যাপন করেছে। কারাবাস করেছে মাসের পর মাস। কিন্তু, দলের এসব ত্যাগী নেতাদের যথাযথ মূল্যায়ন না করে উল্টো মাইনাস করার চেষ্টা চলছে এমন অভিযোগ বিএনপির একাধিক  নেতার। কমিটিতে সুবিধাবাদী, আওয়ামী ঘেঁষা, হাইব্রিড নেতাদের দলের স্থান দেয়া নিয়ে চলছে বিরোধ, বিভেদ। দলের প্রতিটি কর্মসূচিতে দলের নেতাকর্মীদের মধ্যে বিরোধ দেখা যাচ্ছে। কেন্দ্রীয় নেতাদের সামনে হাতাহাতিতে জড়িয়ে যাচ্ছে। এছাড়াও সংঘাতের কারণে সম্মেলন পন্ড হওয়ার ঘটনাও ঘটেছে। দলের একাধিক নেতাকর্মী রক্তাক্ত হয়েছে। আর এসব নিয়ে দলের বিরোধ এখন চরমে রূপ নিয়েছে। বিএনপির তৃনমূলের মতে, জেলা বিএনপির সাবেক আহবায়ক এড. তৈমুর আলম খন্দকার বহিস্কৃত হওয়ার পর থেকে দলের শৃঙ্খলা ভেঙে পরেছে। রাজনীতির মাঠে কেউ কাউকে মানছে না। ফলে দলের মধ্যে সংঘাত বৃদ্ধি পেয়েছে। সূত্র বলছে, দলের এ অবস্থা চলমান থাকলে জেলা বিএনপির জন্য কঠিন সময় অপেক্ষা করছে। আরো কিছুদিন এ অবস্থা চলতে থাকলে দলের কেন্দ্রীয় কমান্ড বর্তমান কমিটি ভেঙে দিতে পারে। জেলা বিএনপির চলমান দ্বন্দ্ব নিসনসে এখনি উদ্যোগ নেয়া প্রয়োজন এমনটাই মনে করছেন বিশ্লেষক মহল।  অন্যদিকে,  নারায়ণগঞ্জ বিএনপির কমিটি নিয়ে দলের ভেতরে তুমুল প্রতিযোগিতা শুরু হয়েছে। এই প্রতিযোগিতা প্রবীণদের পাশাপাশি নবীনরাও অংশ নিয়েছে। তবে এই প্রতিযোগিতায় কে বা কারা জয়ী হয়,  এটাই এখন দেখার বিষয়। সূত্র বলছে, বিএনপি আহবায়ক কমিটি গঠনের পর নারায়ণগঞ্জে নেতৃত্ব নিয়ে এমন প্রতিযোগিতা লক্ষ করা যায়নি। দীর্ঘদিন ক্ষমতার বাইরে থাকা বিএনপির পদ পেতে এমন প্রতিযোতার বিষয়টি অবাক করার মতো। তবে এবারের কমিটিতে যদি ত্যাগী এবং পরীক্ষিত নেতাদের অবমূল্যায়ন করা হয় তা হলে নারায়ণগঞ্জ বিএনপিতে বিদ্রোহ দেখা দিতে পারে এমন শঙ্কা বিএনপির তৃনমূলের।

Comment Heare

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *