Home » প্রথম পাতা » রূপগঞ্জ ভ’মি অফিসে অনিয়মই যেন নিয়ম

বিএনপিতে মাইনাসে রাজনীতি

১৯ মে, ২০২২ | ৯:৩৩ পূর্বাহ্ণ | ডান্ডিবার্তা | 87 Views

ডান্ডিবার্তা রিপোর্ট

নারায়ণগঞ্জ বিএনপির অনেক নেতা হারিয়ে যাচ্ছেন। যারা এক সময় রাজপথ কাঁপাতেন। যাদের নেতৃত্বে হাজার হাজার নেতাকর্মী রাজপথে নেমে রাজপথ প্রকম্পিত করে রাখতেন আজ সেই সকল অনেক নেতা হারিয়ে যাচ্ছে। অনেকে চলে গেছেন পরপারে আবার অনেকে বয়সের ভারে রাজনীতি থেকে দুরে সরে যাচ্ছেন। এছাড়া বর্তমানে যারা রয়েছেন তাদের নিয়েও চলছে ষড়ডন্ত্র। বিএনপি নেতা ডি এইচ বাবুল সাম্প্রতিক পরিস্থিতি নিয়ে কথা বলেছেন। তাঁর দাবী, সাবেক দুইজন এমপি গিয়াসউদ্দিন ও আবুল কালাম সহ তৈমূর আলম খন্দকারের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র চলছে। বাবুল বলেন, ‘কিছু দিন যাবৎ লক্ষ করছি একটি স্বার্থান্বেষী মহল নারায়ণগঞ্জ বিএনপির বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র করছে। এই দলটিকে বিতর্কিত করতে উঠে পড়ে লেগেছে। মুহাম্মদ গিয়াস উদ্দিন একজন সজ্জন ব্যক্তি। তার মেধা ও যোগ্যতায় রাজনীতির একজন সফল ব্যক্তি হিসেবে সুপরিচিত। তার ছেলেদের বিরুদ্ধে কেউ কখনও কোন অভিযোগ করেনি। অত্যন্ত বিনয়ী ও ভদ্র। তার এক ছেলেকে ফাঁসাতে ঐ অথর্ব লোক গুলি মিথ্যা অভিযোগ দিয়ে হয়রানী করছে। তেমনি আরেক বিএনপির পরিচ্ছন্ন নেতা, মার্জিত, নিরঅহংকারী অ্যাডভোকেট আবুল কালাম সাবেক সাংসদ। তার ছেলে ২৩ নং ওয়ার্ডের নব নির্বাচিত কাউন্সিলর আবুল কাউসার আশা। অতি অল্প দিনে জনপ্রিয়তার উচ্চাসনে আসীন হয়েছে। একটি কুচক্রি মহলের কুদৃষ্টি পড়েছে। আশাকে নিয়ে চলছে গভীর ষড়যন্ত্র। মজলুম জননেতা অ্যাডভোকেট তৈমূর আলম খন্দকার। সৎশিক্ষিত, গরীবের আইনজীবি, গভীর রাতের ত্যাগী নেতা। যখন সমস্যা তখনই সমাধান। দুর্ভাগ্য এমন নেতাকেও শান্তি দিচ্ছে ঐ আওয়ামী মদদ পুষ্ট দালালরা। খোরশেদ আলম খন্দকার খোরশেদ ইতোমধ্যে মানব সেবায় সারা বিশ্ব সুনাম অর্জন করেছে। মানবতার বন্ধু খোরশেদকে নিয়েও চলছে নোংরা রাজনীতি। মাইনাসের খেলায় আজাদ, সালামরা নারায়ণগঞ্জের রাজনীতিকে ধ্বংসের শেষ পেরেকটি মারার স্বপ্নে বিভোর। মাইনাসের তালিকায় ফতুল্লার মনির ভাই, শ ম নূরুল ইসলাম, রতন, সিদ্ধিরগঞ্জের এম এ হালিম জুয়েল, মাজেদুল ইসলাম, ডি এইচ বাবুল, আহসানউল্লাহ মুন্সী, কাউন্সিলর ইকবাল, জাহাঙ্গীর হোসেন স্বাধীন, আয়শা আক্তার দিনা, শরীফ হোসেন, জুয়েল প্রধান, মোশারফ হোসেন এমন অনেক পরীক্ষিত রাজনৈতিক যোদ্ধাদের মাইনাস প্রক্রিয়ায় রাজনীতি থেকে দূরে সরিয়ে দিচ্ছে। আর এতে করে বিএনপির ভীত নড়বড়ে হয়ে উঠছে। ছিন্নভিন্ন হয়ে যাচ্ছে বিএনপির কর্মী বাহিনী। যারা এ ষড়যন্ত্র করছে তারা মনে করছে শীর্ষ নেতাদের মাইনাস করতে পারলে তারা লাইমলাইটে চলে আসবে আর লুটেপুটে খাবে দলীয় সুযোগ সুবিধা। বিক্রি করতে পারবে পদ পদবী। তবে রাজনৈতিক বোদ্ধা মহলের অভিমত নারায়ণগঞ্জে তৈমূর-কালামের মত প্রজ্ঞাবান রাজনীতিবিদ এখনো নারায়ণগঞ্জ বিএনপিতে তৈরী হয়নি। কারণ তাদের উপর নেতাকর্মীদের আস্থা রয়েছে। এ জন্য তাদের সামনে রেখে রাজনীতি করলে সকলে রাজনৈতিক ভাবে লাভবান হতে পারবে।

Comment Heare

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *