Home » প্রথম পাতা » জাপান আমাদের অকৃত্রিম বন্ধু: প্রধানমন্ত্রী

বিএনপির সাথে আঁতাত করে পাড় পাবেন না: শাহ নিজাম

১৩ জানুয়ারি, ২০২০ | ৩:৫৮ অপরাহ্ণ | ডান্ডিবার্তা | 671 Views

ডান্ডিবার্তা রিপোর্ট

আওয়ামী লীগের জাতীয় পরিষদের সদস্য আনিসুর রহমান দিপু দিনে আওয়ামী লীগ আর রাতে বিএনপির সাথে আঁতাত করে চলে, এমনই ইংগীত দিয়েছেন মহানগর আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক শাহ্ নিজাম। গতকাল রোববার দুপুরের দিকে নারায়ণগঞ্জ আদালত পাড়ায় নারায়ণগঞ্জ আইনজীবী সমিতির বর্তমান সভাপতি-সাধারণ সম্পাদকের পক্ষে শো-ডাউন করতে গিয়ে গণমাধ্যমকর্মীদের কাছে অমন ইংগীতই করেন তিনি। তবে, এটি শো-ডাউন নয়, হাজিরার জন্য আদালতে গিয়েছিলেন বলে দাবি করেছেন মহানগর আওয়ামী লীগের এই নেতা। যদিও শাহ নিজাম আদালত পাড়ায় কথা বলতে গিয়ে কারো নাম উল্লেখ করেননি। তারপরও তার পুরো বক্তব্যটাই ছিলো আনিসুর রহমান দিপুকে ইংগীত করে তা উপস্থিত সকলের কাছেই অনুমেয়। কেননা, গত বৃহস্পতিবার আইনজীবী সমিতির বার্ষিক সাধারণ সভা চলাকালিন সময়ে ধন্যবাদ প্রস্তাবে কাজলের নাম উঠে আসায় এবং নির্বাচন কমিশানর হিসেবে আইনজীবী আখতারের নাম উল্লেখ করার পর এর প্রতিবাদ করেছিলেন আনিসুর রহমান দিপু। এছাড়াও সেদিন আনিসুর রহমান দিপুর নেতৃত্বে আওয়ামী লীগ পন্থী আইনজীবীদের একাংশসহ সাধারণ আইনজীবীরা নির্বাচন কমিশনারের পরিবর্তন চেয়ে বিক্ষোভ করেছিলেন। এবং সেখানে দিপু বলেছিলেন, নির্বাচন কমিশনার আমরা মানি না, মানবো না। এর প্রতিবাদের গণস্বাক্ষর কর্মসূচিসহ অনশনও করা হবে। শাহ নিজাম প্রশ্ন রেখে বলেন, “যারা আজকে বড় বড় কথা বলেন তাদের আদর্শ নীতি কোন জায়গায়, দলের না ক্ষমতায়? ক্ষমতার প্রয়োজনে বিএনপির সাথে আঁতাত নাকি আদর্শের প্রয়োজনে এই জায়গায় থাকা, প্রশ্নটা এখানেই। তারা বিএনপির সাথে আতাঁত করে পাড় পাবে না। তার মানে কি, দিনের বেলায় আমি আওয়ামী লীগ আর রাতের বেলায় বিএনপির সাথে আঁতাত করবো।” তিনি আরও বলেন, “দিনে আওয়ামী লীগ আর স্বার্থের জন্য রাতে বিএনপির সাথে আঁতাত এমন রাজনীতিতো আমরা করি না। যারা করে, তা আপানারাই ভালো জানেন। এবং এই বিষয়টি আইনজীবী সমিতির সাধারণ সভায় তাদের মুখোশ উন্মোচিত হয়েছে।” এদিকে শাহ নিজামের সাথে যোগাযোগ করা হলে মুঠোফোনে তিনি বলেন, “বিএনপির আদর্শ আর আমাদের আদর্শ এক নয়। কিন্তু স্বার্থের জন্য যদি কেউ বিএনপির পাশে গিয়ে দাঁড়ায় তাহলে সে অবশ্যই ঘৃণিত। এখন তিনি দিপু ভাই হোক, ওয়াজেদ আলী খোকন হোক, যেই হোক। তাদেরকে আমরা ঘৃণাই করবো।” এছাড়াও তিনি বলেন, “আমরা শো-ডাউন করিনি। আদালতে আমাদের একটা হাজিরা ছিলো। সে লক্ষ্যেই গিয়েছিলাম। আমাদের অনুসারিরা খবর পেয়ে তারাও এসেছিলো। তবে, হাজিরা হয়নি। পরে আমরা বার ভবনের দিকে যাই এবং জুয়েল মোহসিনের সাথে কুশল বিনিময়কালে নির্বাচন প্রসঙ্গে কথা বলেছিলাম। নির্বাচনকে কেন্দ্র করে আদালত পাড়ায় আমরা যাইনি।”

Comment Heare

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *