Home » প্রথম পাতা » গভীর রাতে বোট ক্লাবে কী করেছিলেন পরীমণি?

বিশ্বকাপ বাছাই পর্বে তপু বর্মণের দুর্দান্ত গোলে ১-১ গোলে ড্র

০৪ জুন, ২০২১ | ৮:২২ পূর্বাহ্ণ | ডান্ডিবার্তা | 53 Views

ডান্ডিবার্তা রিপোর্ট

কাতার বিশ্বকাপ বাছাই পর্বে তপু বর্মণের দুর্দান্ত গোলে আফগানিস্তানের সঙ্গে ১-১ গোলে ড্র করেছে বাংলাদেশ। প্রথমার্ধে আফগানিস্তানের সঙ্গে সমানতালে লড়াই করা বাংলাদেশ দ্বিতীয়ার্ধের শুরুতেই হোঁচট খায়। তবে বাংলাদেশি ফুটবলপ্রেমীদের হতাশ করেননি তপু বর্মণ। এক গোলে পিছিয়ে থাকা বাংলাদেশকে ৮৩ মিনিটে তপুর দেওয়া গোলেই বাংলাদেশ ১-১ সমতা এনে আফগানিস্তানের বিপক্ষে ড্র করে বিশ্বকাপ বাছাইয়ে দ্বিতীয় পয়েন্ট সংগ্রহ করে। এর আগের ড্র হওয়া ম্যাচের স্কোরলাইনও ছিল ১-১। সেটা ছিল ভারতের বিরুদ্ধে সল্টলেক স্টেডিয়ামে।ম্যাচে সমতা আসার পর দুই দলই পুনরায় গোলের চেষ্টা করে। ইনজুরি সময়ের পাঁচ মিনিট বাংলাদেশ খানিকটা বিপদজ্জনক পরিস্থিতির মধ্যেই ছিল। ইনজুরির দ্বিতীয় মিনিটে আফগানদের গোলদাতা আমির শরীফ লাফিয়ে একটি ফ্রি হেড করেছিলেন। তার হেডে পোস্টে থাকলে বাংলাদেশকে শূন্য হাতেই মাঠ থেকে ফিরতে হতো। শেষ দুই মিনিট বেশ সতর্কতায় শেষ করেন জামালরা।রেফারির শেষ বাঁশির সঙ্গে বাংলাদেশ শিবিরে খানিকটা উল্লাস। ফিফা র‌্যাঙ্কিংয়ে বাংলাদেশ ১৮৪ ও আফগানিস্তানের অবস্থান ১৪৯। ৩৫ ধাপ এগিয়ে থাকা দলের বিরুদ্ধে এক পয়েন্ট সংগ্রহ করেছে বাংলাদেশ। আফগানদের বিরুদ্ধে বাংলাদেশের সর্বশেষ ড্রটি ২০১৫ সালে ঢাকায় এক প্রীতি ম্যাচে। বিশ্বকাপ বাছাইয়ে আগের লেগে বাংলাদেশ তাজিকিস্তানে গিয়ে ১-০ গোলে হেরেছিল আফগানদের বিরুদ্ধে।বৃহস্পতিবার (৩ জুন) বাংলাদেশ সময় রাত ৮টায় কাতারের দোহায় জসিম বিন হামাদ স্টেডিয়ামে আফগানিস্তানের বিপক্ষে খেলতে নামে বাংলাদেশ। বল দখলে এগিয়ে থাকলেও জামাল ভূঁইয়াদের পরাস্ত করতে পারেনি আফগানিস্তান। অন্যদিকে আফগানের জাল লক্ষ্য করে দুবার শর্ট নেন জামাল ভুঁইয়ারা। বিপরীতে বাংলাদেশের গোলপোস্টে পাঁচবার শট নেন আফগান ফুটবলাররা। তবে কোনো দলই গোলের দেখা না পেলে গোলশূন্য ড্র নিয়ে বিরতিতে যায় দুই দল।বিরতির ঘুরে দাঁড়ায় আফগানিস্তান ম্যাচের ৪৮ মিনিটের সময় আবদুল্লাহ মোহাম্মদ আনওয়ার শরিফ ডান দিক থেকে ডি বক্সে বল পেয়ে নিখুঁত শটে বাংলাদেশের জালে বল জড়ান। বাংলাদেশ পিছিয়ে ০-১ গোলে। ম্যাচের ৮২ মিনিটে গোলে করে বাংলাদেশকে সমতায় ফেরান তপু বর্মণ। বাকি সময় কোনো দলই গোলের দেখা পায়নি।বাংলাদেশ বল পজেশন, আক্রমণে পিছিয়ে থাকলেও ম্যাচের সেরা মুহূর্তটি অবশ্যই তপুর গোল। ডিফেন্ডার হয়েও তিনি অসাধারণভাবে গোল করেছেন। বক্সের মধ্যে বল পেয়ে দুর্দান্তভাবে রিসিভ করে শরীর ঘুরিয়ে আড়াআড়ি শটে বল জালে পাঠিয়েছেন। বল গোললাইন ক্রস করার পরই বাংলাদেশের ডাগ আউট উৎসবে পরিণত হয়।

 

 

 

Comment Heare

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *