Home » প্রথম পাতা » শ্রী কৃষ্ণের জন্মাষ্টমী আজ

ব্ল্যাকমেইল চক্রের ২ সদস্য গ্রেফতার

০৬ আগস্ট, ২০২২ | ১১:০০ পূর্বাহ্ণ | ডান্ডিবার্তা | 44 Views

ডান্ডিবার্তা রিপোর্ট নারী দিয়ে বাসায় এনে শারীরিক মিলনের দৃশ্য গোপনে ধারণসহ আটকে রেখে ব্ল্যাক মেইলিং করে মুক্তিপণ আদায়কারী চক্রের এক নারী সদস্যসহ দুই জনকে গ্রেফতার করেছে ফতুল্লা মডেল থানা পুলিশ। এ সময় মুক্তিপণ আদায়কারী চক্রের কবল থেকে উদ্ধার করা হয়েছে আটক করে রাখা যুবক মোক্তার সর্দারকে (৩০)। গতকাল শুক্রবার বিকেলে ফতুল্লা থানার শিয়াচর এলাকা থেকে মুক্তিপণ আদায়কারী চক্রের দুই সদস্যকে গ্রেফতারসহ উদ্ধার করা হয়েছে যুবককে। এর আগে ঘটনার শিকার যুবক মোক্তার সর্দারের স্ত্রী বাদী হয়ে তার স্বামীকে আটকে রেখে টাকা চাওয়ার অভিযোগ এনে ফতুল্লা মডেল থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের করে। মোক্তার সর্দার বরিশাল জেলার হিজলা থানার লক্ষিপুরের সেকান্দার সর্দারের ছেলে ও ঢাকা জেলার  দক্ষিন কেরানীগঞ্জ থানার খলামুড়া জিয়ানগরীর আলী আহমেদের ভাড়াটিয়া। সে পাগলা ভাসমান রেস্তোরার কর্মচারী। গ্রেফতারকৃতরা হলো রাজবাড়ী জেলার বালিয়াকান্দি থানার জামালপুর ইউনিয়নের রহমতপুর গ্রামের মৃত কাদের শেখের ছেলে রিয়াজ ও ফতুল্লার শিয়াচর এলাকার রোকসানা সুলতানার ভাড়াটিয়া এবং মুক্তিপণ আদায়কারী চক্রের নারী সদস্য মোছা. রুমা বেগম। জানা যায়, উদ্ধার হওয়া যুবক গত বৃহস্পতিবার রাত সাড়ে দশটার দিকে নিজ কর্মস্থল থেকে বাসা থেকে বের হয়। সে তখন তার স্ত্রীকে বাসায় ফোন করে জানায় কিছুক্ষণের মধ্যে বাসায় ফিরে আসবে। কিন্ত সে বাসা না ফিরে তার পূর্ব পরিচিত ব্ল্যাক মেইলিং গ্রুপের সদস্য রুমা বেগমের সাথে শিয়াচর এলকায়  গ্রেফতারকৃত রিয়াজের ভাড়া বাসায় চলে যায়। সেখানে তারা শারীরিক মিলনে লিপ্ত হয়। এই দৃশ্য জানালার ফুটো দিয়ে মোবাইল ফোনে ধারণ করে গ্রেফতারকৃত রিয়াজসহ তার সহোযোগীরা। এক পর্যায়ে রিয়াজ ও তার সহোযোগীরা মুক্তার সর্দারকে ব্ল্যাক মেইলিং করতে শুরু করে। তারা তার মোবাইল নাম্বার দিয়ে মোক্তারের স্ত্রীর নিকট ফোন করে এক লাখ টাকা মুক্তিপণ হিসেবে দাবি করে। অপরদিকে মোক্তারকে বলে টাকা না দিলে ধারণকৃত ভিডিও ইন্টারনেটে ছড়িয়ে দিবে। এমনকি তাকে শারীরিকভাবে নির্যাতনও করে। মোক্তার অনেকটাই বাধ্য হয়ে তার স্ত্রীর নিকট ফোন করে ব্ল্যাক মেইলিং চক্রের দাবিকৃত টাকা পরিশোধ করে তাকে ছাড়িয়ে নেওয়ার অনুরোধ করে। মোক্তারের স্ত্রী বিষয়টি থানা পুলিশকে জানালে পুলিশ মোবাইল ট্যাকিং ও একটি বিকাশ নাম্বারের সূত্র ধরে শিয়াচর এলাকা থেকে মোক্তারকে উদ্ধারসহ গ্রেফতার করে রিয়াজ ও রুমাকে। এ সময় পুলিশ মোবাইল ফোনটি জব্দ করে। তবে জাকির নামক অপর এক যুবকের জড়িত থাকার বিষটি জানতে পেরেছে পুলিশ। ফতুল্লা মডেল থানার উপ-পরিদর্শক সাইফুল ইসলাম জানায়, গ্রেফতারকৃতরা পেশাদার অপরাধী। অভিযানের সময় মাদক সেবনের বেশ কিছু আলামত পাওয়া গেছে। নারী দিয়ে ফাঁদ পেতে অর্থ আদায়ের বিষয়টি তারা দীর্ঘদিন করে আসছে। এই চক্রের সাথে যারা জড়িত রয়েছে তাদেরকে গ্রেফতার চেষ্টা করছে পুলিশ।

Comment Heare

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *