আজ: শনিবার | ১৯শে সেপ্টেম্বর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ | ৪ঠা আশ্বিন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ | ২রা সফর, ১৪৪২ হিজরি | রাত ৯:৩২

সংবাদের পাতায় স্বাগতম

রাজনীতিতে আসছেন বাপ্পা-অয়ন!

ডান্ডিবার্তা | ১০ আগস্ট, ২০২০ | ১১:১১

ডান্ডিবার্তা রিপোর্ট
নারায়ণগঞ্জের রাজনীতিতে বংশ পরম্পরায় জনপ্রতিনিধি হওয়ার যথেষ্ট পরিমাণ রেকর্ড রয়েছে। সেই সাথে আগামী দিনেও নারায়ণগঞ্জে বংশ পরম্পরায় জনপ্রতিনিধি হওয়ার মতো অনেকেরই পথ খোলা রয়েছে। পাশাপাশি এসকল সম্ভাবনাময় নেতারাও ধীরে ধীরে জনগণের কাছে ভিড়ার চেষ্টা করে যাচ্ছেন। জনসাধারণের বিভিন্ন সুযোগ সুবিধায় তারা পাশে দাঁড়ানোর চেষ্টা করে যাচ্ছেন। আর তাদের মধ্যে অন্যতম হলেন রূপগঞ্জ আসনের সংসদ সদস্য ও বস্ত্র পাটমন্ত্রী গোলাম দস্তগীর গাজীর ছেলে গোলাম মর্তুজা পাপ্পা গাজী এবং ফতুল্লা-সিদ্ধিরগঞ্জ আসনের সংসদ সদস্য শামীম ওসমানের ছেলে অয়ন ওসমান। এই দুইজনেই বিভিন্ন সময় বিভিন্ন ঘটনায় নারায়ণগঞ্জবাসীর নজর কাড়ার চেষ্টা করে যাচ্ছেন। সেই সূত্র ধরে এরা দুইজনেই উত্তরাধিকার সূত্রে আগামী দিনে নারায়নগঞ্জের কর্ণধারের পথে রয়েছেন। রূপগঞ্জ আসনের সংসদ সদস্য বস্ত্র ও পাটমন্ত্রী গোলাম দস্তগীর গাজীর ছেলে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড ও যমুনা ব্যাংক ফাউন্ডেশনের পরিচালক গাজী গোলাম মর্তুজা পাপ্পা নানাভাবে জনসাধারণের কল্যাণে এগিয়ে আসছেন। প্রাণঘাতি করোনা ভাইরাসের সময়ে নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের মেয়র, জেলা প্রশাসক ও পুলিশ সুপারসহ বিভিন্ন দপ্তরে ৫০ লাখ টাকা অনুদান প্রদান করেছেন তিনি। ৫০ লাখ টাকার মধ্যে নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশনের মেয়র ডা. সেলিনা হায়াৎ আইভী হাতে ৫ লাখ টাকা ও জেলা প্রশাসক জসিমউদ্দিনের হাতে ১০ লাখ টাকার চেক তুলে মন্ত্রীপুত্র পাপ্পা গাজী। এ ছাড়া পুলিশ প্রশাসনকে ৫ লাখ টাকা, রূপগঞ্জ উপজেলায় ১৫ লাখ টাকা, কাঞ্চন পৌরসভা ৫ লাখ টাকা ও তারাব পৌরসভায় ১০ লাখ টাকার চেক দেওয়া হয়। এছাড়ারাও গাজী গোলাম মর্তুজা পাপ্পা রূপগঞ্জের পুলিশ, চিকিৎসক, স্বাস্থ্যকর্মী, স্বেচ্ছাসেবকদের স্বাস্থ্য সুরক্ষার জন্য পিপিই, চশমা, হ্যান্ড স্যানিটাইজার, মাস্ক বিতরণ করেছেন। যার ফলে চিকিৎসক, নার্স ভালোভাবে সেবা দিয়ে যাচ্ছে এবং প্রশাসন দায়িত্ব পালন করছে নির্বিঘেœ। এ প্রসঙ্গে গাজী গোলাম মর্তুজা পাপ্পার বক্তব্য হচ্ছে, ‘করোনা সংকটে রূপগঞ্জের প্রতিটি মানুষ যেন খেয়ে বাঁচতে পারে সেই ব্যবস্থা আমরা করেছি। প্রধানমন্ত্রীর ত্রাণ তালিকা করে বিতরণ করা হচ্ছে। পাশাপাশি ঘরে ঘরে গাজী পরিবারের পক্ষ থেকে খাদ্যসামগ্রী পৌঁছে দেওয়া হচ্ছে। সমাজের বিত্তবানরাও সহযোগিতা করছে। যতদিন মহামারি আছে ততদিন আমাদের খাদ্যসামগ্রী বিতরণ অব্যাহত থাকবে।’ এভাবে একের পর নানা কর্মকান্ডের মধ্যে দিয়ে গাজী গোলাম মর্তুজা পাপ্পাও জনসাধারণের কাছে ধীরে ধীরে প্রিয় হয়ে উঠছেন। গোলাম দস্তগীর গাজীর পরেই উত্তারাধিকার সূত্রে হয়তো পাপ্পা গাজী তার কর্ণধার হিসেবে আবির্ভাব হবেন রূপগঞ্জবাসীর জন্য। পাপ্পা বলেন, আমি চাই আমার রূপগঞ্জ তথা নারায়ণগঞ্জের উন্নয়ন হোক। সেই লক্ষ্যে আমার বাবা গোলাম দস্তগীর গাজী বীর প্রতীক কাজ করে যাচ্ছেন। অসহায় মানুষের পাশে দাঁড়াচ্ছেন। আমাদের রূপগঞ্জ উপজেলায় ৯৮ ভাগ ঘরে গ্যাসের চুলা জ্বলে। এটা আমাদের মন্ত্রী মহোদয় নিজে উদ্যোগ নিয়ে করেছেন। উন্নয়ন আগ্রযাত্রাকে ঠিক রাখতে আমাদের যে কোনো মূল্যে করোনাভাইরাসকে দূর করতে হবে। জানা যায়, নারায়ণগঞ্জের একটি ঐতিহ্যবাহী পরিবার হচ্ছে ওসমান পরিবার। এই পরিবারের সদস্যরা বংশ পরম্পরায় সংসদ সদস্য হিসেবে নির্বাচিত হয়ে আসছেন। খান সাহেব ওসমান আলী থেকে শুরু করে সর্বশেষ এই পরিবার থেকে ফতুল্লা-সিদ্ধিরগঞ্জ আসনের সংসদ সদস্য শামীম ওসমান এবং সদর-বন্দর আসনের সংসদ সেলিম ওসমান সংসদ সদস্য হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন। তারই ধারাবাহিকতায় এবার সেই ঐতিহ্যবাহী ওসমান পরিবারের হাল ধরতে যাচ্ছেন শামীম ওসমানের পুত্র অয়ন ওসমান। ফতুল্লা-সিদ্ধিরগঞ্জ আসনের সংসদ সদস্য শামীম ওসমান ছেলের ব্যাপারে তেমন ইঙ্গিত না দিলেও ভবিষ্যৎ রাজনীতি প্রসঙ্গে উঠে আসছে বিষয়টি। আর সেই ধারাবাহিকতায় ইতোমধ্যে অয়ন ওসমান তরুণ সমাজের মাঝে জনপ্রিয় হয়ে উঠছেন। কোন কোন ক্ষেত্রে তিনি শামীম ওসমানের চেয়েও বেশি জনপ্রিয় হয়ে উঠছেন। বিশেষ করে তরুণ সমাজের কাছে অয়ন ওসমান শামীম ওসমানের চেয়েও বেশি অভিনন্দিত হচ্ছেন। নারায়ণগঞ্জ জেলা ও মহানগর ছাত্রলীগের কমিটিকে কেন্দ্র করে বিভিন্ন নেতাদের প্রতিক্রিয়ায় সেটাই পরিলক্ষিত হয়ে উঠছে। সাম্প্রতিক সময়ে প্রাণঘাতি করোনাকালিন সময়ে বিভিন্নভাবে জনসাধাণের সেবায় নানাভাবে এগিয়ে আসছেন ফতুল্লা-সিদ্ধিরগঞ্জ আসনের সংসদ সদস্য শামীম ওসমান ও তার স্ত্রী সালমা ওসমান লিপি। সেই তুলনায় পিছিয়ে নেই তাদের একমাত্র ছেলে সন্তান অয়ন ওসমান। তার নির্দেশনায় নারায়ণগঞ্জ জেলা ও মহানগর ছাত্রলীগ নারায়ণগঞ্জের বিভিন্ন ত্রাণ সহয়তা সহ মাস্ক ও হ্যান্ড স্যানিটাইজার বিতরণ করেছেন। সেই সাথে তার নির্দেশনায় করোনা কালীন সময়ে কৃষকদেরও সহযোগিতায় এগিয়ে এসেছেন ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা।এর আগে নারায়ণগঞ্জ সরকারি তোলারাম কলেজে শিক্ষার্থীদের জন্য ওয়াইফাই জোন করে দিয়েছিলেন অয়ন ওসমান। এ ছাড়াও মেধাবী শিক্ষার্থী যারা অর্থাভাবে লেখাপড়া করতে পারছিল না তাদেরকে আর্থিক সহায়তা করেছিলেন অয়ন ওসমান। বেশকটি ছোট ছোট শিক্ষা প্রতিষ্ঠানেও অয়ন ওসমান সহযোগীতা করেছেন। অনেক অসুস্থ্য শিক্ষকদের চিকিৎসার জন্যও আর্থিক সহায়তা দিয়েছিলেন অয়ন ওসমান। অনেক শিশু কিশোর যুবক যারা মরণব্যাধি রোগে ভুগছিলেন তাদেরকেও আর্থিক সহায়তা করেছেন। বন্যার্ত বা ডিএনডি বাধে জলাবদ্ধতায় ক্ষতিগ্রস্তদের পাশে দাঁড়িয়েছিলেন অয়ন ওসমান। এভাবে একের পর এক নানা কর্মকান্ডের মধ্য দিয়ে দিন দিন জনসাধারণের কাছে প্রিয় হয়ে উঠছেন অয়ন ওসমান।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *