Home » প্রথম পাতা » ফারদিন হত্যা মামলায় তথ্যগত ভুল: ডিবি

রাজনীতিতে বিএনপি ব্যাকফুটে

৩১ জুলাই, ২০২১ | ১১:১০ পূর্বাহ্ণ | ডান্ডিবার্তা | 66 Views

ডান্ডিবার্তা রিপোর্ট

গতবছর করোনা ভাইরাস মোকাবেলায় জীবনের ঝুঁকি নিয়ে নারায়ণগঞ্জ বিএনপির অনেক নেতাই সাধারণ মানুষের কল্যানে কাজ করেছিলেন। নিজ নিজ অবস্থানে থেকে অসহায়দের মাঝে ত্রাণ সামগ্রী বিতরণ করেছিলেন। এতে করে প্রশাংসীত হয়েছিলেন বিএনপির নেতারা। কিন্তু করোনা দ্বিতীয় ঢেউয়ে অনেক নিশ্চুপ রয়েছেন স্থানয়ি বিএনপির নেতারা। দ্বিতীয় দফায় কঠোর লকডাউনে কর্মহীনদের পাশে দেখা যায়নি তাদের। তারমধ্যে এই পরিস্থিতিতে দলীয় কোন্দলে ব্যস্ত রয়েছেন। এক নেতা অপর নেতাকে ঘায়েল করতে তৎপর রয়েছেন। সূত্র বলছে, নারায়ণগঞ্জ বিএনপির প্রতি বরাবরই একটু বেশি গুরুত্ব দিয়ে থাকেন কেন্দ্রীয় নেতারা। একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনেও গুরুত্বপূর্ণ জেলা হিসেবে নারায়ণগঞ্জে ছুটে এসেছিলেন বিএনপির মহা সচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরসহ কেন্দ্রীয় নেতারা। তবে স্থানীয় নেতাদের মধ্যে থাকা কোন্দলের কারণে সেই গুরুত্ব দিন দিন কমে আসছে। কোন্দলের কারণে কেন্দ্র ঘোষিত কোন কর্মসূচীই পালন করতে পারছেন না স্থানীয় নেতারা। দলের এই দু:সময়েও একাধিক ভাগে বিভক্ত হয়ে পড়েছে নারায়ণগঞ্জ বিলুপ্তিহীন বিএনপি। একই সাথে দলীয় কার্যালয না থাকায় অনেকটা ঠিকানাহীন হয়ে পড়েছে নারায়ণগঞ্জ দলটির রাজনৈতিক কার্যক্রম। একদিকে বিলুপ্তিহীন কমিটি অন্যদিকে কার্যালয় না থাকায় কর্মীদের সাথেও দূরত্ব বেড়েছে নেতাদের। জানাগেছে, শহরের ২নং রেল গেইটে বিএনপির কার্যালয় ভেঙ্গে ফেলা হয়েছে অনেক আগেই। নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশন বিএনপির কার্যালয়ের ভবনটি ভেঙ্গে ফেলার পর নতুন কার্যালয় নিতে অনীহা ছিল স্থানীয় বিএনপির নেতাদের। দলীয় কার্যালয় না থাকায় নেতাদের সাথে কর্মীদের দূরত্ব দিন দিন বাড়ছে। নেতৃত্ব বীহিন জেলা ও মহানগর বিএনপির নেতারা এখন নিজস্ব চেম্বারে (ব্যক্তিগত কার্যালয়) দলীয় কাজ করছেন। তবে নেতাদের দ্বন্ধের কারণে একত্রিত হতে পারছেন না স্থানীয় বিএনপির শীর্ষ নেতারা। জেলা ও মহানগর বিএনপি কয়েকটি ভাগে বিভক্ত হয়ে পড়ায় কার্যালয় নিয়ে মাথা ব্যথা নেই কারো। এদিকে, কার্যালয় না থাকায় নেতাকর্মীদের রাজপথে চাঙ্গা করাটা বিএনপির শীর্ষ নেতাদের জন্য চ্যালেঞ্জ হয়ে দাঁড়িয়েছে। কর্মীদের অভিযোগ, নেতারা এখন দলীয় কার্যক্রম এখন নিজস্ব ব্যবসা প্রতিষ্ঠান অথবা বাসা-বাড়িতে পরিচালনা করছেন। আর রাজপথ ছেড়ে তারা এখনো ঘরোয়া পরিবেশে কেন্দ্র ঘোষিত কর্মসূচী পালন করছেন। এছাড়াও কর্মসূচী পালনের নামে ভাড়া করা লোকদের দিয়ে ফটোসেশন করছেন বিএনপির শীর্ষ অনেক না। তবে কিছু কিছু নেতা দলের এই দু:সময়ে রাজপথে থেকে নেতাকর্মীরাদের চাঙ্গা করতে বিভিন্ন উদ্যোগ নিয়ে কাজ করছেন। অথচ এসকল নেতারাই সুবিধাবাদি নেতাদের টার্গেটে পড়ে রাজনীতিতে বেকায়দায় রয়েছেন। এদিকে, ফটোসেশনের রাজনীতির কারণে সাধারণ মানুষও নারায়ণগঞ্জ বিএনপিকে ভুলে যাচ্ছে। বর্তমান পরিস্থিতিতে নারায়ণগঞ্জে বাম রাজনৈতিক সংগঠনগুলোর চেয়েও সাংগঠনিক অবস্থার দিক দিয়ে দূর্বল হয়ে পড়েছে দলটি। তবে নারায়ণগঞ্জ বিএনপিকে রাজপথে চাঙ্গা করতে অচিরেই জেলা ও মহানগর বিএনপির কমিটি পুনর্গঠন করা হবে বলে জানাগেছে। আর ত্যাগী ও সাহসীদের নিয়েই নতুন কমিটি ঘোষনা করার সম্ভাবনা রয়েছে। এই নতুন কমিটিতে ত্যাগী ও সাহসী নেতারা স্থান পেলে কমিটি ঘোষনার কয়েক মাসের মধ্যেই জেলা ও মহানগর বিএনপির নতুন কার্যালয়ের ব্যবস্থা করা হবে বলে দলীয় সূত্রে জানাগেছে।

Comment Heare

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *