Home » প্রথম পাতা » পদ্মা সেতু জাতির আরেক বিজয়

রাত পোহালেই ষোল ইউপিতে ভোট গ্রহণ

১০ নভেম্বর, ২০২১ | ৯:০৫ পূর্বাহ্ণ | ডান্ডিবার্তা | 46 Views

ডান্ডিবার্তা রিপোর্ট

নারায়ণগঞ্জের ১৬ ইউনিয়ন পরিষদ (ইউপি) নির্বাচনের প্রচারণা শেষ হয়েছে  গতকাল মঙ্গলবার। প্রার্থীরা রাত ১২টা পর্যন্ত প্রচারণা চলাতে পেরেছেন। এই নির্বাচনের ভোটগ্রহণ হবে কাল বৃহস্পতিবার। ওইদিন সকাল ৮টা থেকে বিকের ৪টা পর্যন্ত একটানা ভোটগ্রহণ চলবে। তবে নির্বাচনী এলাকায় কোনো সাধারণ ছুটি থাকছে না। নির্বাচনী কর্মকর্তাদের প্রয়োজনীয় প্রশিক্ষণ শেষ হয়েছে। বুধবার প্রতিটি কেন্দ্রে নির্বাচনী সামগ্রী পৌঁছে যাবে। স্থানীয় সরকার নির্বাচন আইন অনুযায়ী, ভোটগ্রহণ শুরুর ৩২ ঘণ্টা আগে প্রচার-প্রচারণা বন্ধ করতে হয়। সে হিসাবে গতকাল মঙ্গলবার রাত ১২টায় প্রচারনা বন্ধ হয়ে যায়। এ সময়ের পর প্রার্থী বা সমর্থকদের কেউ কোনো ধরনের প্রচারণা চালাতে পারবেন না। এ বিষয়ে নারায়ণগঞ্জ প্রশাসন থেকে কর্মকর্তারা বলছেন, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচনের জন্য ইতোমধ্যেই আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যরা মাঠে নেমেছেন। নির্বাচন সংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠান ও কর্মকর্তা-কর্মচারীরা সাধারণ ছুটির আওতায় থাকবেন। এছাড়া ভোট দেওয়ার জন্য সংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠান থেকে ছুটি নিতে পারবেন ভোটাররা। ভোটের আগের দিন আজ বুধবার রাত ১২টা হতে ভোটের দিন কাল বৃহস্পতিবার রাত ১২টা পর্যন্ত নির্বাচনী এলাকায় ট্রাক ও পিকআপ, লঞ্চ, স্পিডবোট এবং ইঞ্জিনচালিত নৌযান চলাচল বন্ধ থাকবে। এছাড়া জরুরি সেবাসহ অন্যান্য পরিবহন চলাচল করতে পারবে। এদিকে উঠান বৈঠক, গণসংযোগ, মিছিল মিটিং করে রীতিমত হাফিয়ে উঠেছেন প্রার্থীরা। প্রচারণার সকল হিসেবে নিকেষের ফলাফল মিলবে কাল বৃহস্পতিবার বিকাল ৪টার পর। ওইদিন সকাল নয়টা থেকে বিকাল চারটা পর্যন্ত ভোট গ্রহন অনুষ্ঠিত হবে। এরপর জানা যাবে কারা পড়ছেন গলায় বিজয়ের মালা। এদিকে ভোটের সকল ধরনের প্রস্তূতি ইতিমধ্যেই সম্পূর্ণ করেছে জেলা নির্বাচন অফিস। ভোট কেন্দ্রগুলোতে ব্যালেট পেপার, ব্যালট বাক্স, ইভিএমন মেশিনসহ নির্বাচনী সরঞ্জাম পাঠানো হয়েছে। এদিকে ১৬টি ইউনিয়নের ২৭৬টি কেন্দ্রে ভোট গ্রহনের কথা থাকলেও রপগঞ্জ মুড়াপাড়ার ৪টি কেন্দ্রে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় প্রার্থীরা নির্বাচিত হওয়ায় এ কেন্দ্রগুলোতে কোন ভোট হবে না। তবে ৩১টি কেন্দ্রে ইভিএম এর মাধ্যমে ভোট গ্রহন চলবে। জেলা নির্বাচন কমিশন সূএে জানা গেছে, ১৬টি ইউপিতে মোট ভোটার সংখ্যা ৬৭ লাখ ৮ হাজার ৬৮১ জন। নির্বাচনে ৫১ জন চেয়ারম্যান প্রার্থীর মধ্যে ৫ জন বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হয়েছেন। তবে সাধারন মেম্বার প্রার্থী ৫৩১ জন ও সংরক্ষিত আসনে ১৫১ জন্য প্রাথী নির্বাচনে জয়ের লক্ষ্য নিয়ে লড়াই করবেন। ইউনিয়ন পরিষদের নির্বাচনে অবাধ সুষ্ঠ ও নিরপেক্ষ নির্বাচন করার লক্ষে নির্বাচনী এলাকায় নামানো হয়েছে আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যদের। এছাড়াও নির্বাচনী আচরণবিধি লঙ্ঘনকারীদের সাজা দিতে মাঠে রয়েছেন নির্বাহী ও বিচারিক ম্যাজিস্ট্রেট।

Comment Heare

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *