Home » শেষের পাতা » বন্দরে ২৭টি পূজামন্ডপে চলছে শেষ মুহূর্তের প্রস্তুতি

শামীম-আইভীর দ্বন্দ্ব নিরসনে হাইকমান্ড

১১ জানুয়ারি, ২০২২ | ৮:০০ পূর্বাহ্ণ | ডান্ডিবার্তা | 78 Views

ডান্ডিবার্তা রিপোর্ট

আসন্ন নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশন নির্বাচনকে ঘিরে দলীয় প্রার্থী ডা. সেলিনা হায়াৎ আইভী এবং সংসদ সদস্য শামীম ওসমানের মধ্যকার দ্বন্দ্ব সামলাতে চাচ্ছে আওয়ামী লীগের নীতিনির্ধারণী ফোরাম। পাশাপাশি দলীয় শৃঙ্খলা ও নির্বাচনী আচরণবিধি মেনে সংশ্লিষ্ট সবাইকে নৌকা প্রতীকের পক্ষে কাজ করার জন্য আহ্বান জানিয়েছেন দলের শীর্ষ নেতারা। দলের নেতারা বলছেন, আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনা অনেক ভেবেচিন্তে, দলীয় মনোনয়ন বোর্ডের সঙ্গে কথা বলে নাসিক নির্বাচনে প্রার্থী চূড়ান্ত করেছেন। সুতরাং এ প্রার্থীর সঙ্গে না গিয়ে অন্য প্রার্থীর হয়ে কাজ করা ঠিক নয়। এটি দলীয় সিদ্ধান্তকে চ্যালেঞ্জ করা। কেন্দ্রীয় নেতারা আইভীর পক্ষে প্রচারণা করতে গিয়ে বক্তব্য রাখার সময় সাংসদ শামীম ওসমানকে ইঙ্গিত করে কঠোর বক্তব্য দিয়েছেন। কেন্দ্রীয় নেতাদের বিতর্কীত বক্তব্যে নারায়ণগঞ্জ আওয়ামী লীগের বিরোধ আরো বৃদ্ধি পাচ্ছে। নৌকা প্রতীকের পক্ষে ভোট চাইতে এসে দলীয় বিরোধ বৃদ্ধিতে আরো সহায়ক ভূমিকা পালন করছেন  এমন অভিযোগ আওয়ামী লীগের তৃনমূলের নেতাকর্মীদের। গতকাল সোমবার দুপুরে সংবাদ সম্মেলন করে নিজের অবস্থান পরিস্কার করেছেন সাংসদ শামীম ওসমান। তিনি দাবি করে আমি নৌকারই লোক। আগামী ১৬ জানুয়ারী নৌকার বিজয় হবে। নারায়ণগঞ্জে বিএনপি-জামাতের এমন সমর্থন নেই যে নৌকাকে পরাজিত করবেন। অন্যদিকে, আওয়ামী লীগের মেয়র প্রার্থী  আইভী বরাবরই বলে আসছেন ‘অন্য প্রার্থীর হয়ে কাজ করছেন শামীম ওসমানসহ অনেকে। আইভীর এমন বক্তব্যে দলকে সংঘাতের দিকে ফেলে দিচ্ছে। এমন বাস্তবতায় শামীম-আইভীর দ্বন্দ্ব সামলাতে দলের হাইকমান্ড থেকে নির্দেশনা আসছে বলে জানা গেছে। নির্বাচনী মাঠ দখলে রাখা এবং ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করে দলীয় প্রার্থীকে বিজয়ী করা ছাড়া বিকল্প ভাবছে না আওয়ামী লীগের হাইকমান্ড। সূত্রমতে, শামীম-আইভী দ্বন্দ্ব বহু পুরনো। নাসিক নির্বাচনে তা পুনঃপ্রকাশ ঘটছে। দলীয় প্রার্থীতা চূড়ান্তের পর এ দ্বন্দ্ব অনেকটা প্রকাশ্যে চলে আসে। শামীম ওসমান আইভীর পক্ষে না স্বতন্ত্র প্রার্থী তৈমূর আলম খন্দকারের পক্ষে- এ অভিযোগ তোলেন আইভী। সময় গড়ানোর সঙ্গে পাল্লা দিয়ে বাড়ছে দ্বন্দ্ব। গত কয়েকদিন ধরে এ দ্বন্দ্বের মাত্রা বেড়ে যায় বহুগুণে। একজন অন্যজনকে কটূক্তি করতেও দেখা গেছে। শামীম ওসমানকে গডফাদার বলে অভিহিত করেন আইভী। গত শনিবার নির্বাচনী প্রচার কার্যক্রমে এসে সাংবাকিদের প্রশ্নের জবাবে একপর্যায়ে আওয়ামী লীগ প্রার্থী ডা. সেলিনা হায়াৎ আইভী শামীম ওসমানকে গডফাদার বলে কটূক্তি করেছিলেন। এর পর নারায়ণগঞ্জের রাজনৈতিক অঙ্গনে উত্তাপ ছড়িয়ে যায়। গণমাধ্যম থেকে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম এমনকি বিভিন্ন আড্ডায় আলোচনার উপজীব্য বিষয়ে হয়ে ওঠে শামীম-আইভীর দ্বন্দ্বের বিষয়। নির্বাচনী প্রচারে এসে গত রবিবার ও গতকাল সোমবার একই বক্তব্যের পুনরাবৃত্তি করেছেন আইভী। তার ভাষ্য, গডফাদার তার দেওয়া উপাধি নয়। তিনি উচ্চারণ করেছেন মাত্র। পাড়া-মহল্লা, অলিতে-গলিতে গিয়ে নির্বাচনী প্রচারকালে আইভী বলেন, শামীম ওসমান, সেলিম ওসমান এবং রাজাকারপুত্র কাজল সাহেব তাকে (তৈমূরকে) পেট্রনাইজ করছে। এতে সমস্যা নেই। আমি তাদের বলি- আরও শক্তিশালী হয়ে আসুন, জনতার স্রোতে ভেসে যাবেন। নির্বাচন নিয়ে কোনো ষড়যন্ত্র হচ্ছে কিনা জানতে চাইলে আইভী বলেন, আমার বলার প্রয়োজন নেই। আপনারা খুঁজে দেখুন হচ্ছে কিনা। তবে সংবাদ সম্মেলন করে সাংসদ শামীম ওসমান বলেছেন, আমাকে গডব্রাদার,গডফাদার বলুক, কিন্তু গডমাদার বইলেন না। তবে তিনি নৌকারই লোক।

Comment Heare

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *