আজ: শনিবার | ২৪শে অক্টোবর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ | ৮ই কার্তিক, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ | ৭ই রবিউল আউয়াল, ১৪৪২ হিজরি | বিকাল ৩:৩০

সংবাদের পাতায় স্বাগতম

সংগঠিত হতে বাধা নেতাদের

ডান্ডিবার্তা | ০১ অক্টোবর, ২০২০ | ৭:২৭

ডান্ডিবার্তা রিপোর্ট
নারায়ণগঞ্জে ধীরে ধীরে বিএনপির শক্ত অবস্থান তৈরী হলেও কতিপয় নেতাদের বিরোধের কারণে সাংগঠনিক ভাবে গতি ফিরছে না। এনিয়ে দলের ত্যাগী নেতাকর্মীদের মাঝে ক্ষোভ বাড়ছে। কেননা গত সাড়ে ১৩ বছর ক্ষমতার বাহিরে থানায় নারায়ণগঞ্জ বিএনপির নেতাকর্মীরা সাংগঠনিক ভাবে ভেঙ্গে পড়লেও বর্তমান পরিস্থিতিতে দৃশ্যপট পাল্টে গেছে। বর্তমানে ধীরে ধীরে নিজেদের অবস্থান শক্ত করছে স্থানীয় বিএনপির নেতারা। তবে এরমধ্যেও কতিপময় নেতারা কারণে দলীয় কোন্দল চরম আকারে রূপ নিয়েছে। সূত্র বলছে, বিএনপির শীর্ষ নেতারা সাংগঠনিক ভাবে ঘুরে দাঁড়ানোর ব্যর্থ চেষ্টা চালাচ্ছে। দলের বিভিন্ন কর্মসূচিকে ঘিরে জেলা বিএনপির নেতারা তাদের অনুগামী নেতাদের নিয়ে রাজপথে নামার চিন্তা করলেও তাদের সে উল্টে যাচ্ছে। তবে শীর্ষ নেতারা মাঠে থাকার কথা থাকলেও তাদের রাজপথে পাচ্ছে না দলের নেতাকর্মীরা। এ নিয়ে কর্মীদের মধ্যে ক্ষোভ রয়েছে বলে বিভিন্ন সূত্রে জানাগেছে। শীর্ষ নেতাদে ভূমিকা এখন কেন্দ্রীয় নেতাদের কাছে প্রশ্ন বিদ্ধ। বিগত সময়ে রাজপথে জেলা বিএনপির পদধারী শীর্ষ নেতারা স্থানীয় ও কেন্দ্রীয় নেতাদের কাছে নিজেদের মেলে ধরতে পারেনি বলেই জেলা বিএনপির কমিটি বিলুপ্ত করা হয়েছে। আর মামলা জটিলতার কারণে মহানগর বিএনপির কমিটি এখনো বিলুপ্ত করা সম্ভব হয়নি। কর্মীদের অভিযোগ, জেলা বিএনপির শীর্ষ নেতাদের ব্যর্থতার কারণে বিএনপির নেতাকর্মীরা সাংগঠনিক ভাবে বিচ্ছিন্ন হয়ে পরেছে। জেলা বিএনপির নতুন কমিটি গঠনে ব্যর্থতার কারণে অন্যান্য অঙ্গ সংগঠনগুলোও ঢেলে সাজাতে পারেনি বিএনপির শীর্ষ নেতারা। ইতোমধ্যে কমিটিতে স্থান পাওয়া না পাওয়া এবং কমিটির নিয়ন্ত্রণ নিয়ে জেলা বিএনপির সাবেক সভাপতি এড. তৈমুর আলম খন্দকার ও সাবেক সাংসদ এড. আবুল কালামের দ্বন্দ্ব প্রকাশ্যে রূপ নিয়েছে। বিএনপির বিভিন্ন সূত্রে জানাগেছে, নারায়ণগঞ্জ বিএনপির রাজনীতিতে হ-য-ব-র-ল অবস্থা বিরাজ করছে। স্থানীয় বিএনপির শীর্ষ নেতারা বিরোধ আর বলয় তৈরীতে ব্যস্ত থাকলে দলকে সাংগঠনিক ভাবে শক্তিশালী করতে কেউ উদ্যোগ নিচ্ছে না। কর্মীদের অভিযোগ, দলের শীর্ষ নেতাদের কারণে অঙ্গ সংগঠনের নেতাকর্মীরাও বিরোধে জড়িয়ে পরেছে। অনেক ক্ষেত্রে দলের অঙ্গ সংগঠনের অনেক পদহীন সাধারন নেতাকর্মীরাও এখন দলের শীর্ষ নেতাদের ধম দিতে শুরু করেছে। অনেক সময় শীর্ষ নেতাদের দিক নিদের্শনাও দিচ্ছে বলে সূত্রে দাবি। কর্মীদের মতে, এরজন্য বিএনপির এসব শীর্ষ নেতারাই দায়ি। অন্যদিকে, বর্তমানে জেলা বিএনপিতে বলয় শক্তিশালী করার মিশন নিয়ে কাজ করছে বিএনপির একাধিক শীর্ষ নেতা। বিএনপি ও অঙ্গ সংগঠনের দ্বিতীয় ও তৃতীয় সাঁড়ির নেতাদের নিয়ে বলয় শক্তিশালী করতে মরিয়া হয়ে উঠেছে বিএনপির কথিত নীতিনির্ধারকরা। তবে জেলা বিএনপির নতুন কমিটিতে পরিক্ষিত ও ত্যাগী নেতাদের সুযোগ করে দেয়ার দাবী করেছেন মাঠ পর্যায়ের নেতাকর্মীরা।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *