Home » শেষের পাতা » বন্দরে ২৭টি পূজামন্ডপে চলছে শেষ মুহূর্তের প্রস্তুতি

সুসময়ের সহযোগীরা মাঠে নেই

০২ জানুয়ারি, ২০২২ | ৮:৪৫ পূর্বাহ্ণ | ডান্ডিবার্তা | 84 Views

ডান্ডিবার্তা রিপোর্ট

সাংসদ শামীম ওসমান ও মেয়র সেলিনা হায়াত আইভীর বিরোধ দীর্ঘদিন ধরেই চলে আসছে। বিভিন্ন দুইজনের মধ্যে ঐক্যের সুর উঠলেও তৃতীয় একটি মহলের ইন্দনে দুই পরিবার ঐক্য হতে পারেনি। দুই পরিবারের অনৈক্যের প্রভাব পড়েছে নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে। সেলিনা হায়াত আইভী নৌকা প্রতীক পাওয়ায় দলের স্বার্থে ইচ্ছার বিরুদ্ধে গিয়েও প্রচারণায় নেমেছেন সাংসদ শামীম ওসমানের অনুসারিরা। বিশেষ করে যুবলীগ, স্বেচ্ছাসেবকলীগ ও যুব মহিলালীগের কেন্দ্রীয় নেতারা নারায়ণগঞ্জে আসার পর স্থানীয় নেতারা প্রচারণায় নেমেছে। এই তিন সংগঠনের শীর্ষ নেতারা সাংসদ শামীম ওসমানের অনুসারি হিসেবেই পরিচিত। অপরদিকে, বিগতদিন গুলোতে সেলিনা হায়াত আইভীর পক্ষে থাকার পাশাপাশি ওসমান পরিবারের সাথে যারা ঐক্য হতে দেয়নি তারাই বর্তমান নির্বাচনে এখনো পর্যন্ত আইভীর পক্ষে মাঠে নামতে দেখা যায়নি। ত্বকী মঞ্চের রফিউর রাব্বিসহ অন্যান্য নেতা ও বাম রাজনীতির সাথে জড়িত কতিপয় নেতারা বিগতদিনগুলোতে আইভীর পক্ষে উস্কানীমূলক বক্তব্য দিয়ে নারায়ণগঞ্জ শহরকে উত্তপ্ত করেছিল। স্থানীয় আওয়ামীলীগ নেতাদের অভিযোগ, কতিপয় ব্যক্তিরা বিভিন্ন সময় উস্কানীমুলক বক্তব্য দিয়ে শামীম ওসমান ও সেলিনা হায়াত আইভীর সাথে দূরত্ব সৃষ্টির প্রধান ভূমিকায় ছিলেন। আজ আইভীর দু:সময়ে তারাই নিশ্চুপ রয়েছেন। আর এতোদিন যাদের বিরুদ্ধে বিষোদগার করেছেন এমনকি মামলাও করেছেন তারাই এখন আইভীকে বিজয়ী করতে আস্তে আস্তে মাঠে নামতে শুরু করেছেন। গত নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে সংবাদ সম্মেলন করে আইভীর পক্ষে তার অনুসারিদের মাঠে নামার অনুরোধ করেছিলেন। তখন তাদের মধ্যে ঐক্যের সম্ভাবনা দেখা দিয়েছিল। কিন্তু সেই নির্বাচন শেষ হওয়ার পর পরই রফিউরসহ কতিপয় নেতারা উস্কানীমূলক বক্তব্য দিয়ে আবারো ভিবেদ সৃষ্টি করেছিল। অভিযোগে রয়েছে, ২০১৮ সালের ১৬ জানুয়ারী হকার ইস্যুতে শামীম ওসমান ও মেয়র আইভীর অনুসারিদের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনার মূলত ভূমিকায় ছিল ত্বকী মঞ্চের নেতারা। বিভিন্ন সময় প্রকাশ্যে সরকার বিরোধী মন্তব্য করেও আইভীর জন্য ছাড় পেয়ে আসছিল রফিউর রাব্বিরা। বর্তমান পরিস্থিতিতে আইভীর পক্ষে মাঠে নামেনি ত্বকী মঞ্চ।জানাগেছে, টানা তৃতীয়বারের মত আওয়ামীলীগ সরকার ক্ষমতায় আসলেও সাংগঠনিক অবস্থা আরো শক্তিশালী করতে স্থানীয় নেতারা কোন প্রকার উদ্যোগ নিতে পারেনি দলীয় কোন্দলের কারণে। উল্টো বিভিন্ন ইস্যু নিয়ে দ্বন্দ্বে জড়িয়ে পড়ছেন। নারায়ণগঞ্জ আওয়ামীলীগের প্রভাবশালী নেতা সাংসদ শামীম ওসমান ও মেয়র সেলিনা হায়াত আইভীর দ্বন্দ্বের প্রভাব পড়েছে এবারের সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে। বিএনপি নির্বাচনে অংশ না নিলেও স্বতন্ত্র প্রার্থী হয়ে নির্বাচনে অংশ নিয়েছে বিএনপি নেতা তৈমূর আলম খন্দকার। মূলত স্থানীয় রআওয়ামীলীগের দ্বন্দ্বকে কাজে লাগিয়ে বিজয় নিশ্চিত করতে নির্বাচনী মাঠে প্রচারণায় ব্যস্ত রয়েছেন তৈমূর আলম খন্দকার। রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা বলছেন, নারায়ণগঞ্জে রাজনীতির সঠিক চর্চা হচ্ছে না। বাংলাদেশের রাজনীতির ইতিহাসে নারায়ণগঞ্জের অনেক অবদান থাকলেও বর্তমানে রাজনৈতিক নেতারা নারায়ণগঞ্জের ইতিহাসের সেই ঐতিহ্য ধরে রাখতে ব্যর্থ হয়েছেন। যা বর্তমান প্রজন্ম কোন ভাবেই প্রত্যাশা করেনি। পাশাপাশি নারায়ণগঞ্জে রাজনীতির বর্তমান পরিস্থিতির কারণে তরুনরা রাজনীতিতে আসতে অনীহা প্রকাশ করছেন। তবে এবারের নাসিক নির্বাচনে তরুণদের ভোট একটা বড় ফ্যাক্টর হয়ে দাঁড়াবে। অথচ ভোটারদের দৃষ্টি আকর্ষনে সেলিনা হায়াত আইভীর পক্ষে এখনো মাঠে নামেনি তার সুসময়ের বন্ধু হিসেবে পরিচিত ত্বকী মঞ্চের নেতারাসহ কতিপয় বাম নেতারা। তবে নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে মেয়র পদে ডা. সেলিনা হায়াৎ আইভীর সমর্থনে সমমনা বিভিন্ন সংগঠনের সাথে নারায়ণগঞ্জ নাগরিক কমিটির মত বিনিময় সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। গতকাল শনিবার বিকেলে আলী আহাম্মদ চুনকা নগর পাঠাগার মিলনায়তনের সামনে এ সভার আয়োজন করা হয়। সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক এড. জাহিদুল হক দীপুর সঞ্চালনায় জেষ্ঠ সহ সভাপতি রফিউর রাব্বির সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সভায় বক্তব্য রাখেন, খেলাঘর নারায়ণগঞ্জ জেলা সভাপতি রথীন চক্রবর্তী, মুক্তিযোদ্ধা ও মানবাধিকার সংগঠক ফরিদা আক্তার, সন্ত্রাস নির্মূল ত্বকী মঞ্চের সদস্য সচিব কবি সাংবাদিক হালিম আজাদ, নারায়ণগঞ্জ প্রেসক্লাবের সাবেক সভাপতি এড. মাহাবুবুর রহমান মাসুম, নারায়ণগঞ্জ সাংস্কৃতিক জোটের সভাপতি ভবানী শংকর রায়ি, ওয়ার্কার্স পার্টির জেলা সভাপতি হাফিজুর রহমান, ন্যাপ জেলা সম্পাদক এড. আওলাদ হোসেন, সমমনা সামাজিক সংগঠনের সভাপতি সালাহউদ্দিন আহমেদ প্রমূখ। অভিযোগে রয়েছে, এরা সকলেই বিভিন্ন সময় আইভী-শামীমের বিরোধ চাঙ্গা রাখতে তৎপর ছিলেন। আর এখন তারাই এখনো পর্যন্ত নির্বাচনী প্রচারণায় মাঠে নামেনি।

Comment Heare

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *