Home » শেষের পাতা » স্কুল ছাত্র ধ্রুব হত্যায় খুনিদের গ্রেপ্তার দাবিতে মানববন্ধন

সোনারগাঁয়ে ছাত্রলীগ ও যুবদল নেতাদের বিরুদ্ধে বাড়িঘর দখলের অভিযোগ

০৯ জানুয়ারি, ২০২২ | ৭:৫৩ পূর্বাহ্ণ | ডান্ডিবার্তা | 40 Views

সোনারগাঁ প্রতিনিধি

সোনারগাঁ পৌর এলাকার একটি শিল্প কারখানার পক্ষ নিয়ে ছাত্রলীগ ও যুবদল নেতাকর্মীরা একত্রিত হয়ে গতকাল শনিবার সকালে পুলিশের উপস্থিতিতে তিনজন নিরীহ ব্যক্তির বাড়িঘর দখল করে ভাংচুর ও লুটপাট করার অভিযোগ পাওয়া গেছে। সোনারগাঁ পৌরসভার ছোট শীলমান্দী মহল্লার আসাদুজ্জমানের স্ত্রী ফরিদা ইয়াছমিন গতকাল শনিবার দুপুরে সোনারগাঁ থানায় দায়ের করা লিখিত অভিযোগপত্রে উল্লেখ করেন, স্থানীয় চৈতি ইন্ড্রাষ্ট্রিয়াল পার্ক কারখানার সীমানা প্রাচীরের পেছনে তার স্বামী আসাদুজ্জামান ও তার দেবর নুরে আলম, শাহ আলম, খোরশেদ আলমের পৈত্তিক সম্পতির উপর তারা বাড়িঘর করে বসবাস করে আসছিলেন। ওই কারখানা কর্তৃপক্ষের কাছে তাদের বাড়িঘর বিক্রি করতে রাজী না হওয়ার কারনে কারখানা কর্তৃপক্ষের পক্ষ নিয়ে শিল্প পুলিশের উপস্থিতিতে গতকাল শনিবার সকালে সোনারগাঁ পৌরসভা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি মাহবুবুর রহমান, পৌরসভা ছাত্রলীগের সাধারন সম্পাদক শাহরিয়ার খান ওরফে সাজু, বঙ্গবন্ধু সাংস্কৃতিক জোট সোনারগাঁ পৌরসভার সভাপতি রিয়াদ হোসন ওরফে রনি, সোনারগাঁ পৌরসভা যুবদলের যুগ্ম আহবায়ক জাহের আলী ও তার আপন ভাই মো: হুমায়ুন, যুবদল নেতা জাহাঙ্গীর হোসেন ও তারেক মিয়ার নেতৃত্বে রামদা, চাইনিজ কুড়াল, লাঠি নিয়ে মহড়া দিয়ে ওই কারখানার নিজস্ব এক্সাভেটর  (ভেকু) দিয়ে প্রকাশ্যে তাদের তিনটি বাড়িঘর দখল করে গুড়িয়ে দেয় এবং বাড়িঘরের সব মালামাল লুট করে নিয়ে যায়। এ সময় দখলদারদের ইটপাটকেলের আঘাতে শিশু অনিক হোসেন (৮) ও রাজু হোসেন (৩) মারাত্মকভাবে আহত হয়। আহতদের স্থানীয় একটি ক্লিনিকে ভর্তি করা হয়েছে। গতকাল শনিবার দুপুর ১২টায় সরেজমিন ঘটনাস্থলে গিয়ে দেখা যায়, বাড়িঘর হারিয়ে খোলা আকাশের নিচে নারী পুরুষরা গনকান্নায় ভেঙ্গে পড়েছে। বাড়ীর মালিক নুরে আলম জানান, আমাদের বাপ দাদার আমলের বাড়ীঘর ছাত্রলীগ ও যুবদল নেতারা কারখানা মালিকের পক্ষ হয়ে অস্ত্রের মহড়া দিয়ে দখল করে নিয়ে যাওয়ার কারনে ভিটেমাটি হারিয়ে আমরা নি:স্ব হয়ে পড়েছি। অভিযোগের ব্যাপারে জানতে চাইলে সোনারগাঁ পৌরসভা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি মাহবুবুর রহমান ওরফে রবিন জানান, এ ঘটনার সঙ্গে আমরা জড়িত নই। কারখানা কর্তৃপক্ষ নিজেরাই উদ্যোগী হয়ে ওই জায়গা দখল করেছে। চৈতি ইন্ড্রাষ্ট্রিয়াল পার্কের উপ-মহা ব্যবস্থাপক (প্রশাসন) মিজানুর রহমান, কারখানার ক্রয়করা সম্পতি আমরা আমাদের দখলে নিয়েছি। কারো সম্পতি দখলের সঙ্গে আমরা জড়িত নই। সোনারগাঁ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) হাফিজুর রহমান জানান, ঘটনাস্থলে থানা পুলিশের কোনো সদস্য ছিলনা। ঘটনাস্থলে ছিল শিল্প পুলিশ। এ ঘটনায় থানায় লিখিত অভিযোগ নেওয়া হয়েছে। তদন্ত করে মামলা নথিভুক্ত করা হবে।

Comment Heare

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *