আজ: সোমবার | ১লা জুন, ২০২০ ইং | ১৮ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ | ৯ই শাওয়াল, ১৪৪১ হিজরী | সকাল ৭:৩২

সংবাদের পাতায় স্বাগতম

হকার সংঘর্ষের নাটের গুরু হাফিজ আবারো হকারদের উস্কানি দিতে মাঠে

ডান্ডিবার্তা | ১১ জুলাই, ২০১৯ | ১০:৪৩

ডান্ডিবার্তা রিপোর্ট
২০১৮ সালের ১৬ জানুয়ারী হকার ইস্যুতে নারায়ণগঞ্জে ঘটে যাওয়া স্মরণকালের ভয়াবহতম সংঘর্ষের নাটের গুরু হিসেবে আখ্যায়িত কমিউিনিষ্ট পার্টি নেতা হাফিজুল ইসলাম আবারো অবৈধ হকারদের নিয়ে আন্দোলনের প্রস্তুতি নিচ্ছেন বলে জানা গেছে। নারায়ণগঞ্জের পুলিশ সুপার হারুন অর রশিদের উদ্যোগে বঙ্গবন্ধু সড়ক অবৈধ হকার মুক্ত হলেও সেইসব অবৈধ হকারদের পক্ষে আবারো রাজপথে নেমে শান্ত নারায়ণগঞ্জকে অশান্ত করার পায়তারা করছেন সুচতুর হাফিজ। তিনি হকারদের সংগঠিত করে বুহস্পতিবার নারায়ণগঞ্জের রাজপথে সভা সমাবেশ করার কথা জানিয়েছেন। এ বিষয়ে কমরেড হাফিজুল ইসলাম বলেন, আমি সব সময়ই গরিব মেহনতি মানুষের পক্ষে ছিলাম এখানো আছি। আমি কিছুদিন দেশের বাইরে ছিলাম তাই হকারদের জন্য কিছু করতে পারি নাই তবে আগামীকাল বৃহস্পতিবার শহরে হাজার হাজার হকারের সমাবেশ হবে এবং আমি থাকবো অগ্রণী ভূমিকায়। কাল জেলা প্রশাসককে স্মারকলিপি দেবো, শহিদ মিনারে সমাবেশ করবো এবং শহরে মিছিল করবো। জানা যায়, ২০১৭ সালের ২৫ ডিসেম্বরের পর থেকেই নগরীর বঙ্গবন্ধু সড়কের দুই পাশে হকার উচ্ছেদ অভিযানে নামে জেলা পুলিশ প্রশাসন। এসময় পুলিশের সাথে হকার উচ্ছেদ অভিযানে যোগ দেয় নাসিকের কর্মকর্তারা। তবে বিকল্প ব্যবস্থা না করেই উচ্ছেদ নাসিক ও পুলিশের উচ্ছেদ অভিযানের বিরুদ্ধে রাজপথে নামে হকার সমাজ। এসময় তাদের নেতৃত্ব দেন কমিউনিষ্ট পার্টি বাংলাদেশের জেলা সভাপতি হাফিজুল ইসলাম। হকারদের পূনর্বাসন এবং বঙ্গবন্ধু সড়কে হকার বসার অনুমতির দাবীতে হকারদের নিয়ে আন্দোলন শুরু করেন তিনি। উদ্দেশ্য ছিল হকারদের স্থায়ী সমাধান দিয়ে তাদের কাছ থেকে মাসোহারা আদায় করা! এমন পরিস্থিতিতে রাতারাতি হকারদের নেতা বনে যান তিনি। এসময় হকারদের পাশে এসে দাড়ান নারায়ণগঞ্জ-৪ আসনের সাংসদ ও জেলার প্রভাবশালী নেতা একেএম শামীম ওসমান। এসময় হকারদের পূনর্বাসনের জন্য নাসিককে নমনীয় হওয়ার আহ্বান জানান তিনি। তবে কোন পরিস্থিতিতেই হকার সমস্যার সমাধান না হওয়ায় ২০১৮ সালের ১৬ জানুয়ারী নাসিকের সাথে সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে বিক্ষুদ্ধ হকাররা। এরপর থেকেই বঙ্গবন্ধু সড়ককে হকার মুক্ত ঘোষণা করে নাসিক। একই সাথে হকার বিষয়ে কঠোর অবস্থানে যায় সংস্থাটি। তবে কিছুদিন পরেই বঙ্গবন্ধু সড়ক পূনরায় দখলে নেয় হকাররা। অতপর বঙ্গবন্ধু সড়কে হকার উচ্ছেদে কঠোর অবস্থানে যায় নারায়ণগঞ্জ পুলিশ প্রশাসন। গত মে মাসের পর থেকেই বঙ্গবন্ধু সড়কে হকার উচ্ছেদে অভিযান অব্যাহত রেখেছে প্রশাসন। প্রশাসনের এই উদ্যোগকে সাধুবাদ জানিয়েছেন নারায়ণগঞ্জের সর্বস্তরের জনগন। হকারমুক্ত নির্মল ফুটপাতে নির্বিঘেœ পথচলার সুযোগ করে দেয়ার জন্য তারা পুলিশ প্রশাসনের প্রতি কৃতজ্ঞতাও জানিয়েছিলেন। কিন্তু সেই হাফিজের নেতৃত্বে আবারো নারায়ণগঞ্জে হকার ইস্যুতে অরাজকতা সৃষ্টির পায়তারা চলছে। এ বিষয়ে নারায়ণগঞ্জ পুলিশের বিশেষ শাখার পরিদর্শক (ডিআইও-২) সাজ্জাদ রোমন বলেন, নারায়ণগঞ্জ জেলা পুলিশ হকারদের বিপক্ষে না তকে কোন অবৈধ দখলদারকে ফুটপাতে বসতে দেয়া হবে না। আর এ নিয়ে কোন বিশৃঙ্খলা সৃষ্টির চেষ্টা করা হলে তা প্রশ্রয় দেয়া হবে না।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *