এমপি কাছে ভোটারদের প্রত্যাশা

ডান্ডিবার্তা রিপোর্ট
নারায়ণগঞ্জের ৫টি সংসদীয় আসনে আবার নির্বাচিত হয়েছেন একই সংসদীয় সদস্যরা। তারা প্রতিজন বিপুল পরিমান ভোটের ব্যবধানে নির্বাচিত হয়েছেন। তাদের এই অভাবনীয় সাফল্যে ভোটারদের আশা আকাশ চুম্বি হয়ে উঠেছে। তাদের প্রত্যাশা অনেক গুণ বেড়ে গেছে। ভোটাররা চায় আগামী পাঁচ বছরে উন্নয়ন হবে আশানুরূপ। এতো দিন উন্নয়নের যে কমতিটুকু ছিল তা পরিপূর্ণ হয়ে উঠবে এবার। এবার তারা সিলেকশনে নয় ইলেকশনে সংসদ সদস্য হয়েছেন। তাদের পেছনে রয়েছে বিপুল সংখ্যক ভোটার। ভোটের সংখ্যা সংখ্যা এতটাই যে প্রায় ৭৫ ভাগ। এর ধারে কাছেও নাই অন্যান্য প্রার্থীরা। এতেই ভোটারদের প্রত্যাশা আরো বেড়ে যায়। তবে কতটা প্রত্যাশা পূরণ হবে সেটা নির্ভর করছে সাংসদদের ইচ্ছা এবং যোগ্যতার উপর। যদিও যোগ্যতার বিষয়ে কোন সন্দেহ নাই তবুও ইচ্ছার বিষয়ে অনেকেই সন্দিহান। তারা মনে করে এতটা পথ পারি দিয়ে সাংসদরা শেষ পর্যন্ত ক্লান্ত হয়ে যেতে পারেন। এই ক্লান্তি চলে আসলে সব আশায় গুড়েবালি পড়বে। ভোটারদের চাওয়াগুলোও ন্যায্য। তারা যে সব দাবি করেন তার মধ্যে রয়েছে মাদক নির্মূল, গ্যাস-বিদ্যুতের নিশ্চয়তা, রাস্তা ঘাটের উন্নয়ন। যা করতে বেশি বেগ পেতে হবে না সাংসদদের। ভোটারদের এসব চাওয়া সাংসদদের নাগালের মধ্যে। তবে এর বাইরে কাজ না করলে আগামীতে সাংসদরা ভোটারদের কাছে যেতে পারবেন না। এসব কাজের মধ্যে রয়েছে মেডিকেল কলেজ, পার্ক, বিশ্ববিদ্যালয়, হাসপাতাল স্থাপন। রূপগঞ্জ আসনে ভোটার সংখ্যা হচ্ছে ৩ লাখ ৪৯ হাজার ৭শ’ ৯১। এর মধ্যে পুরুষ ভোটার ১ লাখ ৭৮ হাজার ৩শ’ ৯৪ জন এবং নারী ভোটার হচ্ছ ১ লাখ ৭১ হাজার ৩শ’ ৯৭ জন। এ আসনে জয়ী হয়েছেন আওয়ামীলীগ মনোনীত প্রার্থী বর্তমান এমপি গোলাম দস্তগীর গাজী। বিপরীতে বিএনপির মনোনীত প্রার্থী কাজী মনিরুজ্জামান মনিরকে মাঠেই নামতে দেখা যায়নি। আড়াইহাজার আসনে মোট ভোটার সংখ্যা হচ্ছে ২ লাখ ৮৩ হাজার ৮শ’ ৬৭ জন। এর মধ্যে পুরুষ ভোটার ১ লাখ ৪৪  হাজার ১শ’ ২২ জন এবং নারী ভোটার হচ্ছে ১ লাখ ৩৯ হাজার ৭শ’ ৪৫ জন। এ আসনে জয়ী হয়েছেন আওয়ামীলীগ মনোনীত প্রার্থী বর্তমান এমপি নজরুল ইসলাম বাবু। এখানে কারচুপির অভিযোগ করেন বিএনপি তথা জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের প্রার্থী হিসেবে নজরুল ইসলাম আজাদ। সোনারগাঁ আসনে মোট ভোটার সংখ্যা হচ্ছে ৩ লাখ ৩ হাজার ৮শ’ ৭২ জন। এর মধ্যে পুরুষ ভোটার ১ লাখ ৫৬ হাজার ৭শ’ ২ জন এবং নারী ভোটার হচ্ছে ১ লাখ ৪৭ হাজার ১শ’ ৭০ জন। এ আসনে মহাজোটের প্রার্থী হিসেবে জাতীয় পার্টি দলীয় বর্তমান সংসদ সদস্য লিয়াকত হোসেন খোকা বিজয়ী হয়েছেন। ঐক্যফ্রন্টের প্রার্থী হিসেবে বিএনপি মনোনীত প্রার্থী আজাহারুল ইসলাম মান্নান দুপুরেই ভোট বর্জন করেন। ফতুল্লা-সিদ্ধিরগঞ্জ আসনে মোট ভোটার সংখ্যা হচ্ছে ৬ লাখ ৫১ হাজার ৯৯ জন। এর মধ্যে পুরুষ ভোটার ৩ লাখ ২৯ হাজার ৬শ’ ৩৭ জন এবং নারী ভোটার ৩ লাখ ২১ হাজার ৪শ’ ৬২জন। এ আসনে মহাজোটের প্রার্থী হিসেবে আওয়ামীলীগ মনোনীত প্রার্থী বর্তমান সংসদ সদস্য শামীম ওসমান বিপুল ভোটে জয়ী হয়েছেন। জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের প্রার্থী হিসেবে জমিয়তে উলামায়ে ইসলামের প্রার্থী মুফতী মনির হোসেন কাশেমীকে দেখা যায়নি ভোটের ময়দানে। সদর-বন্দর আসনে মোট ভোটার সংখ্যা হচ্ছে ৪ লাখ ৪৫ হাজার ৬১৬ জন। এর মধ্যে পুরুষ ভোটার ২ লাখ ২৫ হাজার ২শ’ ১৪ জন এবং নারী ভোটার ২ লাখ ২০ হাজার ৪শ’ ২ জন। মোট ভোট কেন্দ্র সংখ্যা হচ্ছে সদরে ৭৬টি, বন্দরে ৯৫টি। এ আসনে মহাজোটের প্রার্থী হিসেবে জাতীয় পার্টি মনোনীত প্রার্থী বর্তমান সংসদ সদস্য সেলিম ওসমান জয়ী হয়েছেন। জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের প্রার্থী নাগরিক ঐক্যের উপদেষ্টা সাবেক এমপি এস এম আকরাম এ আসনে কারচুপির অভিযোগ করেন।

About ডান্ডিবার্তা

View all posts by ডান্ডিবার্তা →

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *