কাশীপুরে আ’লীগের পকেট কমিটি নিয়ে ক্ষোভ

ফতুল্লা থানাধীন কামীপুর ইউনিয়নের নয়টি ওয়ার্ড আওয়ামীলীগের কমিটি গঠন দিয়ে স্থানীয় ত্যাগী নেতাকর্মীদের মাঝে ক্ষোভ বিরাজ করছে। ত্যাগী নেতাকর্মীরা অভিযোগ করেছেন, ফতুল্লা থানা আওয়ামীলীগের সভাপতি এম. সাইফুল্লাহ বাদল নিজের আত্মীয় ও শুধু তারই অনুসারি এমন ব্যক্তিদের কমিটি গঠন করেছেন। বাদল তার অস্তিত্ব সংকটের কথা চিন্তা করে ত্যাগীতের বাদ নিয়ে নিজ পছন্দের লোকদের নিয়ে পকেট কমিটি দিয়েছেন। এমনকি কমিটিতে নিজের আত্মীয় ছাড়াও বিএনপির রাজনীতির সাথে জড়িত এমন ব্যক্তিদেরও রাখা হয়েছে। অথচ তারা দলের অনুপ্রবেশকারীদের নিয়ে বড় বড় কথা বলেন। চিহিৃত ভূমিদস্যু ও বিএনপির অনেকে পদ পাওয়ায় ত্যাগী নেতারা হতাশাগ্রস্থ হয়ে পড়েছেন। কাশীপুরের জানাগেছে,  ফতুল্লা থানা আওয়ামী লীগের সম্মেলনকে কেন্দ্র করে থানার অর্ন্তগত সবক’টি ইউনিয়নে কমিটি গঠনে তোড়জোর শুরু হয়েছে। একদিকে চলছে সদস্য সংগ্রহ ও নবায়ন কর্মসূচী অন্যদিকে ইউনিয়নের ওয়ার্ড কমিটিগুলোও গঠন করা হচ্ছে। এদিক দিয়ে কাশীপুর ইউনিয়ন এগিয়ে রয়েছে। ইউনিয়নের সবক’টি ওয়ার্ডেই আওয়ামী লীগের কমিটি গঠন প্রায় শেষ পর্যায়ে। ইতোমধ্যে ওয়ার্ডগুলোর সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকের নামও ঘোষণা করা হয়েছে। ইউনিয়নের ৯টি ওয়ার্ডকে তিনটি ভাগ করে পর্যায়ক্রমে এসব কমিটি গঠন করা হয়। গত ১লা নভেম্বর কাশীপুর আদর্শ বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ে ইউনিয়নের ১,২ ও ৩নং ওয়ার্ডে সদস্য সংগ্রহ ও নবায়ন কর্মসূচি অনুষ্ঠান শেষে এই তিনটি ওয়ার্ডের কমিটি ঘোষণা করা হয়। একইভাবে সদস্য সংগ্রহ ও নবায়ণ শেষে ৩ নভেম্বর হাটখোলা মাঠে ৪, ৫ ও ৬ নং ওয়ার্ড ও সবশেষ ৫ নভেম্বর দেওভোগ হাজী উজির আলী উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে ৭, ৮ ও ৯ নং ওয়ার্ড আওয়ামীলীগের কমিটি ঘোষণা করা হয়। ১নং ওয়ার্ডে সভাপতি নির্বাচিত হয়েছেন-গোলাম হোসেন, সাধারণ সম্পাদক হয়েছেন হেলালউদ্দিন বেপারী। ২নং ওয়ার্ডে সভাপতি হয়েছেন বশির উদ্দিন ফাতু, সাধারণ সম্পাদক হয়েছেন বদিউজ্জামান বদু। ৩নং ওয়ার্ডে সভাপতি নির্বাচিত হয়েছেন ইউপি সদস্য শামীম আহমেদ, সাধারণ সম্পাদক হয়েছে খবির উদ্দিন খোকন। ৪নং ওয়ার্ডে সভাপতি হয়েছেন গিয়াসউদ্দিন আহমেদ ও সাধারণ সম্পাদক হয়েছে সাহাবুদ্দিন আহমেদ। ৫নং ওয়ার্ডে সভাপতি হয়েছেন নুরুল আমিন, সাধারণ সম্পাদক হয়েছেন সানাউল্লাহ। ৬নং ওয়ার্ডের সভাপতি হয়েছেন শাহ আলম তালুকদার ও সাধারণ সম্পাদক হয়েছেন মো: মামুন। ৭নং ওয়ার্ডের সভাপতি হয়েছেন হাজী হারুণ অর রশিদ, সাধারণ সম্পাদক হয়েছেন-আহাম্মদ আলী। ৮নং ওয়ার্ডে সভাপতি হয়েছেন আব্দুর রশিদ ও সাধারণ সম্পাদক হয়েছেন নাসির উদ্দিন। ৯নং ওয়ার্ডে সভাপতি হয়েছেন রূপচাঁন সিকদার ও সাধারণ সম্পাদক হয়েছেন-কবির হোসেন। এদিকে, কমিটি ঘোষনা নিয়ে স্থানীয় ত্যাগীদের মাঝে ক্ষোভ বিরাজ করছে। অভিযোগে রয়েছে, কাশীপুরে আওয়ামীলীগের নাম ব্যবহার করে ভূমিদস্যু, সন্ত্রাসী, চাঁদাবাজরা বেপরোয়া হয়ে উঠেছে। আর এদেরকে শেল্টার দেয়ার অভিযোগ রয়েছে প্রভাবশালী আওয়ামীলী নেতার বিরুদ্ধে। তার বিরুদ্ধে কেউ কথা বললেই তাকে জামাত-বিএনপির লোক আখ্যায়িক করে নানা ভাবে হয়রানী করা হয়। আর ৯টি ওয়ার্ডের কমিটিতে তার অনুগতদেরই রাখা হয়েছে। আর আত্মীয়সহ বিএনপির সমর্থক এমনকি ভূমিদস্যুদেরও পদ দেয়া হয়েছে। কথিত আছে, নারায়ণগঞ্জের মধ্যে সবচেয়ে ভূমিদস্যুদের সংখ্যা বেশি কাশীপুরে। প্রভাবশালী আওয়ামীলীগ নেতার শেল্টারে থেকে ভূমিদস্যুরা আঙ্গুল ফলে কথা গাছ বনে গেছেন। এতোদিন ভূমিদস্যুরা নামধারী আওয়ামীলীগার হলেও এবার আনুষ্ঠানিক ভাবেই পদ দেয়াতে কাশীপুরের ত্যাগী নেতাকর্মীরা হতাশাগ্রস্থ হয়ে পড়েছেন। এব্যাপারে কাশীপুর ইউনিয়ন আওয়ামীলীরে ভারপ্রাপ্ত সভাপতি আইয়ূব আলীর সাথে যোগাযোগ করতে রাত সাড়ে আট’র দিকে একাধিকবার তার মোবাইল ফোনে কল দিলেও তা বন্ধ পাওয়া যায়।

About ডান্ডিবার্তা

View all posts by ডান্ডিবার্তা →

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *