আন্দোলনরত শ্রমিকদের মারধরের অভিযোগ

ডান্ডিবার্তা রিপোর্ট

ছাঁটাইকৃত শ্রমিকদের চাকরিতে পুনর্বহাল, মালিক ঘোষিত মজুরী বাস্তবায়নসহ ৭দফা দাবিতে দ্বিতীয় দিনের মত বিক্ষোভ সমাবেশ ও স্মারকলিপি প্রদান করেছে ফতুল্লার বিসিকে অবস্থিত ক্রোনি গ্রুপের প্রতিষ্ঠান অবন্তী কালার টেক্স লিমিটেডের শ্রমিকেরা। গতকাল রোববার দুপুরে কলকারখানা ও প্রতিষ্ঠান পরিদর্শন অধিদপ্তর এর উপ মহাপরিদর্শকের কার্যালয়ে এবং দুপুর সাড়ে ১২টায় মালিকদের সংগঠন বিকেএমইএতে লিখিত স্মারকলিপি প্রদান কার হয়। এসময় উপস্থিত ছিলেন গণসংহতি আন্দোলন নারায়ণগঞ্জ জেলার সমন্বায়ক তরিকুল সুজন, রাজনীতি ও শিক্ষা বিষয়ক সম্পাদক মশিউর রহমান খান রিচার্ড, গার্মেন্টস শ্রমিক ট্রেড ইউনিয়ন কেন্দ্র নারায়ণগঞ্জ জেলার সভাপতি এমএ শাহিন, সাধারণ সম্পাদক ইকবাল হোসেন, কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য দুলাল সাহা, বাংলাদেশ ছাত্র ফেডারেশন নারায়ণগঞ্জ জেলার সভাপতি শুভদেব সহ অবন্তী কালার টেক্স লিমিটেড এর দুই শতাধিক নারী ও পুরুষ শ্রমিক উপস্থিত ছিলেন। লিখিত স্মারকলিপির উল্লেখিত দাবিগুলো হলো, ছাটাইকৃত সকল শ্রমিককে চাকরিতে পুনর্বহাল করতে হবে। ৬ ডিসেম্বর মালিকের সাথে লিখিত চুক্তি মোতাবেক ঘোষিত ১২হাজার টাকা মজুরি বাস্তবায়ন করতে হবে। গ্রেপ্তারকৃত শ্রমিকদের মুক্তি দিতে হবে ও মিথ্যা মামলা প্রত্যাহার করতে হবে। প্রোডাকশনের নামে হয়রানি বন্ধ করতে হবে। কারখানার ভিতর-বাহিরে বহিরাগত সন্ত্রাসী দিয়ে হামলা-নির্যাতন বন্ধ করতে হবে এবং হামলাকারী সন্ত্রাসীদের বিচারের আওতায় আনতে হবে।  নারী শ্রমিকদের উপর গালাগাল সহ

সকল নির্যাতন বন্ধ করতে হবে। বেআইনিভাবে সাদা কাগজে স্বাক্ষর রেখে শ্রমিক ছাঁটাই বন্ধ করতে হবে। স্মারকলিপি গ্রহণ করে কলকারখানা ও প্রতিষ্ঠান পরিদর্শন অধিদপ্তর এর উপ মহাপরিদর্শকের কার্যালয়ের সিনিয়র অফিসার মাসুম শ্রমিকদের উদ্দেশ্যে বলেন, আমাদের কার্যালয় বরাবর আপনারা একটা স্মারকলিপি প্রদান করেছেন। এখানে যে ৭টা দাবি আপনারা করেছেন। বাংলাদেশ শ্রম আইন ২০০৬ অনুযায়ী যৌক্তিক যে দাবিগুলো তা সমাধানের জন্য আমরা মালিক পক্ষের সাথে এবং সরকারের পক্ষ থেকে বসব। এবং যত দ্রুত সম্ভব এই সমস্যার সমাধান করা যায় সেই ব্যবস্থা আমরা করব। স্মারকলিপি গ্রহণ করে বিকেএমইএ এর কর্মকর্তা গিয়াসউদ্দিন জানান, আমরা এখন স্মারকলিপি গ্রহন করেছি। আমাদের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তার সাথে আলোচনা করে তারপর প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহন করবো। আজকেও শ্রমিকেরা অভিযোগ করছেন পঞ্চবটিতে তাদের আটকানো হচ্ছে তাদের কোথাও যেতে দেওয়া হচ্ছে না। এসময় নাম প্রকাশ্যে অনিচ্ছুক এক শ্রমিক জানান, সকালে আসার সময় পঞ্চবটিতে কিছু লোক ছিল। আমরা কয়েকজন আসছিলাম ওইদিক দিয়ে। ৬-৭ জন লোক এসে আমাদেরকে বলে যে তোরা কই যাস? কোথায় কাজ করস অবন্তীতে না? আমরা বলছি না। পরে তারা আমাদের চেক করে দুইজনের কাছে আইডি কার্ড পেয়েছে। ওদের দুইজনকে কলার ধরে টেনে গার্মেন্টের ভিতরে ঢুকিয়েছে। আমরা কোনো ভাবে দৌড়ে সেখান থেকে চলে আসছি। স্মারকলিপি প্রেরন শেষে আবারো প্রেসক্লাবের সামনে অবস্থান করে শ্রমিকেরা। এসময় গণসংহতি আন্দোলন নারায়ণগঞ্জ জেলার সমন্বয়ক তরিকুল সুজন শ্রমিকদের উদ্দেশ্যে পরবর্তি কার্যক্রমের নির্দেশনা দেন। এসময় তিনি সকলকে ৭ জানুয়ারি সকলকে সকাল ৯টার মধ্যে শহীদ মিনারে উপস্থিত থাকার জন্য আহ্বান জানান।

About ডান্ডিবার্তা

View all posts by ডান্ডিবার্তা →

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *