গর্জন দিয়ে নিশ্চুপ না’গঞ্জ বিএনপি

ডান্ডিবার্তা রিপোর্ট

গর্জন দিয়ে রাজপথে নেই নারায়ণগঞ্জ বিএনপি। কারাবন্দি বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার জামিন আবেদন খারিজের প্রতিবাদে রাজপথে দেখা যায়নি নারায়ণগঞ্জ জেলা ও মহানগর বিএনপির নেতাদের। তবে আদালতপাড়ায় বিক্ষোভ করেছে বিএনপির পন্থি আইনজীবীরা। এদিকে, জেলা ও মহানগর বিএনপির নেতারা রাজপথে না নামলেও তাৎক্ষনিক বিক্ষোভ মিছিল করেছে নারায়ণগঞ্জ মহানগর যুবদলের নেতাকর্মীরা। একই সাথে অবিলম্বে তার মুক্তির দাবি করেন তারা। খালেদা জিয়ার জামিন ইস্যুতে রাজপথে নামার গর্জন দিলেও গতকাল বৃহস্পতিবার খালেদা জিয়ার জামিন আবেদন খারিজ হলেও স্থানীয় শীর্ষ নেতারা রাজপথে নামেনি। জানাগেছে, রাজপথে নামার চেয়ে স্থানীয় বিএনপির নেতা বেশি ব্যস্ত  নিজের বলয়কে শক্তিশালী করতে। আর নিজেদের বলয়কে শক্তিশালী করতে দলের মধ্যে কোন্দল সৃষ্টি হচ্ছে।  নারায়ণগঞ্জ বিএনপি মাঠ পর্যায়ের নেতাকর্মীদের চাপের কারণে ঐক্যবদ্ধ হওয়ার কথা বার বার বললেও বাস্তবে ঐক্যবদ্ধ ভাবে কর্মসূচী পালন কিংবা আগামীতে আন্দোলন সংগ্রাম কিভাবে করবে এনিয়ে এখনো এক টেবিলে বসতে না পারায় সাধারণ নেতাকর্মীদের ক্ষোভ দিন দিন বাড়ছে। নারায়ণগঞ্জের শীর্ষ নেতারা একাধিকবার ঐক্যের কথা বলে আবার গোপনে গোপনে একজন আরেক জনকে ল্যাং মারতে এখনো ব্যস্ত। শীর্ষ নেতাদের অনৈক্যের কারণে নারায়ণগঞ্জের বিএনপি রাজপথ দখল তো দূরের কথা খালেদা জিয়ার মুক্তি কিংবা অন্যান্য দাবীতে একত্রে কর্মসূচী পালন করতে পারছে না। যে কারণে নারায়ণগঞ্জে শহর বাদে অন্যান্য এলাকায় বিএনপির কর্মী সমর্থকদের পাশাপাশি সাধারণ সমর্থকদের সংখ্যা বেশি থাকা সত্বেও শুধু মাত্র নারায়ণগঞ্জের শীর্ষ নেতাদের কারণে এই সকল কর্মী সমর্থকদের একত্রিত করে আন্দোলন চাঙ্গা করতে পারছে না। অথচ দলের হাই কমান্ডের ধারণ ছিল রাজধানীর চাইতে নারায়ণগঞ্জে আন্দোলন সংগ্রাম সফলতা লাভ করবে। কিন্তুকর্মসূচী এ পর্যন্ত অনেকটা নারায়ণগঞ্জে ফ্লপ করেছে বল চলে। দলীয় চেয়ারপার্সণ খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবীতে ঐক্যবদ্ধ আন্দোলনের ঘোষনা দিয়েও তা বাস্তবায়ণ করতে পারেনি নারায়ণগঞ্জ বিএনপি, রয়ে গেছে বিচ্ছিন্ন। চলমান কেন্দ্রীয় কর্মসূচিগুলোতে আর নারায়ণগঞ্জ জেলা ও মহানগর বিএনপির শীর্ষস্থানীয় নেতাদের একত্রে না দেখে এমনটাই মন্তব্য করেন তৃণমূল। আর এতে কর্মী সমর্থকরাও নেতাদের কারনে ঐক্যবদ্ধ আন্দোলন সংগ্রামে যেতে পারছে না। নারায়ণগঞ্জ বিএনপি’র শীর্ষ নেতাদের ব্যক্তিগত দ্বন্দ্ব ভুলে দলের এই ক্রান্তিকালে ঐক্যবদ্ধ হওয়ার আহবান তাই তৃণমূল নেতাকর্মীদের। নারায়ণগঞ্জ বিএনপি’র শীর্ষ নেতারা নিজেদের মধ্যকার ব্যক্তিগত কোন্দলে জর্জরিত থাকায় দলের মাঝে সৃষ্টি হয়েছিলো বিভাজন। ইতিমধ্যে সুবিধাবাদি নেতা হিসেবে পরিচিত তৈমূর আলম খন্দকার নারায়ণগঞ্জ বিএনপিতে কোন্দল সৃষ্টি করে নিজের অবস্থানকে শক্ত করে ফেলেছেন। এতে করে সাংগঠনিক ভাবে দল ক্ষতিগ্রস্ত হলেও ফায়দা হয়েছে তৈমূরের। অনুসন্ধানে জানাগেছে, নারায়ণগঞ্জে বিএনপির শীর্ষ নেতারা কোন্দলে জর্জরিত থাকলেও কর্মী ও সমর্থকের অভাব নেই। তবে সঠিক দিক নির্দেশনা না পাওয়ায় কর্মী ও সমর্থকরা মাঠে নামতে পারছে না। আর কর্মী বিহীন হওয়ায় এখনো পর্যন্ত কোন কর্মসূচী সফল করতে পারেনি নারায়ণগঞ্জ বিএনপি। নারায়ণগঞ্জ বিএনপির রাজনীতি এখন ফটোসেশনের মধ্যে আবদ্ধ। এতে করে দিন দিন রাজনীতির মাঠে পিছিয়ে পরছে নারায়ণগঞ্জ বিএনপি। তাই মুখে নয়, বাস্তবে ঐক্য হয়ে আন্দোলন সংগ্রাম চালানোর দাবী জানিয়েছে বিএনপির কর্মী সমর্থকরা। প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে রাজপথে নামার গর্জন না দিয়ে বাস্তবে রাজপথে নামলেই নারায়ণগঞ্জে বিএনপির অবস্থান শক্ত হবে বলে মনে করছেন বিশ্লেষকরা।

About ডান্ডিবার্তা

View all posts by ডান্ডিবার্তা →

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *