না’গঞ্জের রাজনীতি এখন আদালতপাড়ায়

নারায়ণগঞ্জের রাজপথের রাজনীতি এখন আদালত পাড়ায়। আওয়ামী লীগ এবং বিএনপি আসন্ন আইনজীবী সমিতির নির্বাচন নিয়ে ব্যস্ত সময় পার করছেন। এই নির্বাচনকে ঘিরে বিএনপি অনেকটা ঐক্যবদ্ধ হলেও আওয়ামী লীগ সমর্থিত আইনজীবীদের মধ্যে বিভক্তি দেখা দিয়েছে। এছাড়া নির্বাচন কমিশনের পরিবর্তনের দাবিতে বিএনপি ও আওয়ামী লীগের একটি অংশ একাট্টা হয়েছে। উভয় গ্রুপের একটাই দাবি, বর্তমান নির্বাচন কমিশনের অধিনে কোন নির্বাচন নয়। ইতোমধ্যে এ নিয়ে বিএনপির আইনজীবী এড.শাখাওয়াত খান ও আওয়ামী লীগের আইনজীবী এড. আনিসুর রহমান দিপুর নেতৃত্বে আওয়ামী লীগের অপর একটি পক্ষ প্রকাশ্যে বক্তব্য দিয়েছেন। এদিকে, যুবলীগ, ছাত্রলীগ ও স্বেচ্ছাসেবক লীগের নেতাদের আড়ালত পাড়ায় শোডাউন নিয়েও নানা বিতর্ক শুরু হয়েছে। নির্বাচনে প্রভাব বিস্তার করতেই এই শোডাউন বলে দাবি করেছে বিএনপির আইনজীবীরা। এ নিয়ে তারা ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন। তবে নির্বাচন নির্বাচন নিয়ে আদালত পাড়া অশান্ত হোক এটা কারো কাম্য নয় এমন মন্তব্য সাধারন আইনজীবীদের। তথ্যমতে, আসন্ন নারায়ণগঞ্জ আইনজীবী সমিতির নির্বাচন নিয়ে রাজনৈতিক অঙ্গন উত্তপ্ত হয়ে উঠেছে। নির্বাচনকে ঘিরে আওয়ামী লীগে বিভক্তি দেখা দিয়েছে। আইনজীবী সমিতির সাবেক সভাপতি এড.আনিসুর রহমান দিপু নিজেকে সভাপতি হিসেবে ঘোষণা করেছেন। অন্যদিকে আওয়ামী লীগের একটি অংশ নির্বাচনে অংশ নিতে প্রস্তুতি নিয়ে রেখেছে। নির্বাচনে প্রভাব বিস্তার করতে চলছে নানা প্রস্তুতি এমন অভিযোগ উভয় পক্ষের আইনজীবীদের। এরই ধারাবাহিকতায় নারায়ণগঞ্জ জেলা আইনজীবী সমিতির বার্ষিক সাধারণ সভায় ‘নির্বাচন কমিশনার’ প্রশ্নে তীব্র বিরোধিতা করে বিক্ষোভ, হইচই ও হট্টগোল করেছেন বিএনপিপন্থী আইনজীবী ও আওয়ামী লীগপন্থী আইনজীবীদের একাংশ। নির্বাচনে প্রধান নির্বাচন কমিশনারের দায়িত্ব পালন করা আইনজীবী আখতারকে এবারের নির্বাচনেও কমিশন করার প্রস্তাব উত্থাপিত করার সঙ্গে সঙ্গেই সভাস্থলে এর বিরোধিতা করেন বিএনপিপন্থী আইনজীবী অ্যাডভোকেট সাখাওয়াত হোসেন খান এবং আওয়ামী লীগপন্থী একাংশের আইনজীবী অ্যাডভোকেট আনিসুর রহমান দিপু। তারা সভাস্থলেই আখতারকে পক্ষপাতপুষ্ট, অস্বচ্ছ দাবি করে হইচই ও হট্টগোল শুরু করেন। এ সময় তারা সমস্বরে ‘আখতারকে নির্বাচন কমিশন মানি না, মানব না’ বলে স্লোগান দিতে শুরু করেন। এদিকে সভাস্থলের পরে আদালতপাড়ায় অ্যাডভোকেট সাখাওয়াত হোসেন খানের নেতৃত্বে বিএনপিপন্থী আইনজীবীরা এবং অ্যাডভোকেট আনিসুর রহমান দিপুর নেতৃত্বে আওয়ামী লীগপন্থী আইনজীবীদের একাংশের আইনজীবীরা পৃথকভাবে একই ইস্যু নিয়ে বিক্ষোভ শুরু করেন। এ সময় তারা আখতারের বিরুদ্ধে পক্ষপাতিত্বের অভিযোগ তুলে বক্তব্য রাখেন। এর আগে আইনজীবী সমিতির সভাপতি হাসান ফেরদৌস জুয়েলের সভাপতিত্বে সাধারণ সভা অনুষ্ঠিত হয়। এরপরই এবারের নির্বাচনের সম্ভাব্য দিন হিসেবে ২৯ জানুয়ারি ঘোষণা করা হয়। এদিকে, আদালত পাড়ায় আওয়ামী লীগ,যুবলীগ,স্বেচ্ছা সেবক লীগ ও ছাত্রলীগের নেতারা আদালত পাড়ায় শোডাউন করেছে। যদিও নেতাদের দাবি তারা নির্বাচনী কোন কর্মকান্ডে অংশ নিতে আসেনি। মেয়র আইভী পন্থিদের দায়ের করা মামলায় হাজিরা দিতে এসে  নতুন বার ভবন পরিদর্শন করেছি। তবে আদালপাড়া শান্ত পরিবেশ বিরাজমান থাকুক এমনটাই প্রত্যাশা সাধারন আইনজীবীদের।

About ডান্ডিবার্তা

View all posts by ডান্ডিবার্তা →

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *