বঙ্গবন্ধু সড়কে রাস্তার দুই পাশে চলে হকার বসার প্রতিযোগিতা একদিকে উচ্ছেদ অপর দিকে বেঁচা-কেনার ধুম!

ডান্ডিবার্তা রিপোর্ট
নগরীতে ফুটপাত হকারদের রাস্তায় প্রশাসন ও নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশন কর্তৃক বসার অনুমতি না থাকা সত্বেও শহরের বিবি রোডের রাস্তার দুই পাশে চলছে হকার বসার তুমুল প্রতিযোগিতা। কে কার আগে কোন স্থানে বসবে তারা। রাস্তার এক প্রান্তে কখনো পুলিশ এসে এসব অবৈধ ফুটপাত হকাদেরকে উচ্ছেদ করতে দেখা যায়, আবার কখনো অপর প্রান্তে দেখা যায় অবৈধ ফুটপাত ব্যবসায়ীদের বেঁচা-কেনার ধুম পরে যায়। গতকাল বৃহস্পতিবার বিকেলে সরেজমিন ঘুরে নগরীর বিবি রোডের রাস্তার দুই পাশে এমনই চিত্র দেখতে পাওয়া যায়। দেখা যায়, গতকাল বৃহস্পতিবার বিকেল পৌনে ৫টার দিকে নারায়ণগঞ্জ সদর মডেল থানা পুলিশের এ,এস,আই ইমরানকে বিবি রোডের মর্ডান ডায়াগনষ্টিক সেন্টারের সামনে ফুটপাতে বসা হকারদেরকে উচ্ছেদ করতে। ঠিক রাস্তার অপর প্রান্তে সাধু পৌলের গীর্জার সামনের রাস্তায় বসা এসব অবৈধ ফুটপাত ব্যবসায়ীরা উপচেপড়া ভিরের মধ্যে ক্রেতাদের নিকট ধুম বেঁচা-কেনা করতে। দুপুর পেরিয়ে বিকাল হওয়ার হওয়া মাত্রই নগরীর ফুটপাতাগুলো এসব অবৈধ ফুটপাত ব্যবসায়ীদের দখলে চলে যায়। ফুটপাতে বসে ব্যবসা করার কারনেই বিবি রোডের সাধারন পথচারীরা অনেকটা বাধ্য হয়েই তাদের জীবনের ঝুঁকি নিয়ে রাস্তায় পথ চলাচল করতে। বিগত সময়ে নারায়ণগঞ্জ নগরীতে হকার ইস্যুকে কেন্দ্র করে নাসিক মেয়র ডা. সেলিনা হায়াত আইভীর উপর হামলার ঘটনায় মামলা দায়ের হওয়ার পরও এসব অবৈধ ফুপাত হকাররা অত্যান্ত বেপোরায়াভাবেই তাদের ব্যবসা পরিচালনা করছে। বিশেষ করে সন্ধার পর শহরের বিবি রোডের চাষাড়া সোনলী ব্যাংকের মোড়, সাধু পৌলের গীজার সামনে, মর্ডান ডায়াগনষ্টিক সেন্টারের সামনের রাস্তার কালিরবাজার মোড়ের সামনে বসা এসব অবৈধ ফুটপাত ব্যবসায়ীদের কঠিন উৎপাতের কারনে সাধারন পথচারীদের পথচলাচলে চরম বিগ্ন ঘটছে। আর এসব হকারদের হাতে অনেকটা জিম্মি সাধারণ মানুষ। সাধারণ পথচারীরা নাম প্রকাশ করার কথা না জানিয়ে তাদের ক্ষোভ প্রকাশ করে তারা জানান, নগরীর চাষাড়া মোড়ের সোনালী ব্যাংক এর সামনে ব্যস্ততম এই সড়কে বসা এসব অবৈধ ফুটপাত হকাররা ফুটপাত দখলে নিতে চৌকিগুলো ফুটপাত জুরে বসে পড়ে। পথচারীদেরর হাটা চলা করার জন্য মাত্র এক থেকে দেড় ফুট দুই চৌকির মাঝখানে রাখা হয়। আর এ কারনে ফুটপাতে চলাচলে নারী শিশুদের ভীষন সমস্যা হয়। চলচলের সময় অনেক ক্ষেত্রে ফুটপাতে নারীরা নানা ধরনের ইভটিজিংয়ের স্বীকার হচ্ছেন! প্রশাসন ও নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশনের দৃষ্টি আকর্ষন করে এ সময় তারা প্রশ্ন রেখে বলেন, কেন নগরীর ফুটপাত হকারদের দৌরাতœ বন্ধ হচ্ছে না? কেন এসব ফুটপাত হকাররা সাধারন পথচারীদের পথচলাচলে প্রতিনিয়ত বাধাগ্রস্থ করছে? কেন তাদের বিরুদ্ধে কোন ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে না? কেন পুলিশ ফুটপাত থেকে বার বার উঠিয়ে দেওয়ার পরক্ষনেই আব বসে পরছে? নারায়ণগঞ্জ সদর মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ আসাদুজ্জামানের নিকট এ বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি জানান, হকারদের বিষয়টি আমরা সর্বেচ্চ গুরুত্বের সহাকারে দেখি। তাদেরক উচ্ছেদ করার পরও তারা পূণরায় বসে পড়ে। তাদেরকে মারধর করা যাবে না। কোন অবস্থাতেই ফুটপাতে হকার বসতে পারবে না।

About ডান্ডিবার্তা

View all posts by ডান্ডিবার্তা →

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *