দ্বন্দ্ব নিরসনে নারায়ণগঞ্জ আওয়ামীলীগে নতুন নেতৃত্বের দাবী তৃণমূলের

ডান্ডিবার্তা রিপোর্ট

টানা তৃতীয়বারের মত আওয়ামীলীগ সরকার গঠন করলেও নারায়ণগঞ্জে আওয়ামীলীগের চলমান দ্বন্দ্ব দিন দিন বেড়েই চলছে। স্থানীয় আওয়ামীলীগের নেতাদের দ্বন্দ্বের কারণে নতুন নেতৃত্ব সৃষ্টি হচ্ছে না। আর এই সুযোগে অযোগ্য ও সুবিধাবাদিরা নারায়ণগঞ্জে আওয়ামীলীগের রাজনীতিতে দাপট বেড়েছে বহুগুন। অযোগ্য ও সুবিধাবাদিরা আওয়ামীলীগের নাম ভাঙ্গিয়ে নানা অপকর্ম করে বেড়াচ্ছেন। এতে করে আওয়ামীলীগের ইমেজ ক্ষুন্ন হচ্ছে বলে মনে করছেন রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা। তাদের মতে অনেকে আবার রাজনীতিতে ব্যবসায় পরিনত করেছেন। রাজনীতির নামে ব্যবসা করে ভাগ্য পরিবর্তনের হিড়িক পড়েছে নারায়ণগঞ্জে। জানাগেছে,  স্বাধীনতার পর দীর্ঘ বছরের ইতিহাসে নারায়ণগঞ্জ আওয়ামী লীগ এতোটা ঐক্যবদ্ধ হয়নি এমন মন্তব্য আওয়ামী লীগের তৃনমূলের নেতাকর্মীদের। স্বাধীনতার পর নারায়ণগঞ্জ আওয়ামী লীগে উত্তর-দক্ষিন মেরুরর রাজনৈতিক চর্চা শুরু  হয়ে বর্তমানে তা ভয়াবহ আকার ধারণ করেছেন। যে কোন সময় উভয় বলয়ের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটার সম্ভাবনা রয়েছে। বিগত দিনের তুলনায় উভয় মেরুর নেতাকর্মীদের মধ্যে উত্তেজনা বিরাজ করছে। সম্প্রতি পুলিশের কঠোর অবস্থানের ফায়দা লুটতে একটি পক্ষ বেশ তৎপর হয়েছে। এদিকে, উত্তর-দক্ষিণ মেরুর দ্বন্দ্ব নিরসনে কোন প্রকার উদ্যোগ নিচ্ছেন না জেলা ও মহানগর আওয়ামীলীগের শীর্ষ নেতারা। তবে অভিযোগ রয়েছে শীর্ষ পর্যায়ের বেশ কয়েকজন নেতা দলের মধ্যে বিভেদ সৃষ্টি করে নিজেদের অবস্থান শক্ত করছেন। তবে নারায়ণগঞ্জ আওয়ামীলীগের দ্বন্দ্ব নিরসন ও দলকে চাঙ্গা করতে নতুন নেতৃত্ব তৈরী করতে হলে জেলা ও মহানগর আওয়ামীলীগের কমিটি পুনর্গঠন করা প্রয়োজন বলে মনে করছেন মাঠ পর্যায়ের নেতারা। পাশাপাশি সহযোগী সংগঠন গুলোর মেয়াদহীন কমিটিগুলোও পুনর্গঠনের উদ্যোগ নেয়ার দাবী উঠেছে। জানাগেছে, মহানগর আওয়ামীলীগের কমিটি মেয়াদহীন হলেও পুনর্গঠনে কোন প্রকার উদ্যোগ নেতা হচ্ছে না। অভিযোগ রয়েছে, কর্মীবিহীনদের দখলেই রয়েছে মহানগর আওয়ামীলীগের নেতৃত্ব। জেলা আওয়ামীলীগের কমিটির মেয়াদ থাকলেও পূর্ণাঙ্গ কমিটিতে প্রভাবশালীতের তদবিরে অনেক অযোগ্য গুরুত্বপূর্ণ পদে আশ্বিন হয়েছেন। যে কারণে কমিটি ঘোষনার পর থেকেই এ পর্যন্ত শহরে ব্যাপক আয়োজনে কোন কর্মসূচী পালন করেনি জেলা আওয়ামীলীগ। জেলা যুবলীগের কমিটি থাকলেও তা শুধু নাম মাত্র। কেননা জেলা যুবলীগের নেতারা বর্তমানে জেলা ও মহানগর আওয়ামীলীগের নেতৃত্ব দিচ্ছেন। মহানগর যুবলীগের কোন কমিটি না থাকলেও শহর যুবলীগই মহানগর যুবলীগ পরিচয়ে তাদের কর্মসূচী পালন করছেন। যদিও শহর যুবলীগের সভাপতি নিজেকে মহানগর যুবলীগের সভাপতি দাবী না করলেও সাধারণ সম্পাদক মহানগর পদ ব্যবহার করছেন। জানাগেছে, নতুন নেতৃত্ব গড়ে না উঠায় আকড়ে থাকা নেতাদের মধ্যে স্বেচ্ছাচারিতা বাড়ছে। এর ফলে কর্মীদের মূল্যায়ন কমে গেছে।

About ডান্ডিবার্তা

View all posts by ডান্ডিবার্তা →

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *