এখনো মিটেনি না’গঞ্জ মহানগর যুবদলের বিরোধ

ডান্ডিবার্তা রিপোর্ট
নারায়ণগঞ্জ মহানগর যুবদলের দুই গ্রুপের বিরোধ নিষ্পত্তির আহ্বান জানিয়ে মহানগর যুবদলের সভাপতি মাকসুদুল আলম খন্দকার খোরশেদকে সাত দিনের আল্টিমেটাম দিয়েছিলেন যুবদলের একাংশের নেতারা। তবে গতকাল সোমবাব যুবদলের নেতাদের আল্টিমেটামের সাত দিন শেষ হবে। এরি মধ্যে বিরোধ নিষ্পত্তির জন্য কোন ধরনের পদক্ষেপ গ্রহণ করা হয়নি বলে জানিয়েছেন যুবদলের নেতারা। ফলে বিএনপির আন্দোলন সংগ্রামে সক্রিয় এই সংগঠনের বিরোধ ধীরে ধীরে বিরাট আকার ধারণ করছে। এরই মধ্যে গত ২৭ এপ্রিল মহানগর যুবদলের সহ-সভাপতি সানোয়ার হোসেনকে দেখা গেল মহানগর বিএনপির সিনিয়র সহ-সভাপতি অ্যাডভোকেট সাখাওয়াত হোসেন খানের সঙ্গে তার কার্যালয়ে সাংগঠনিক বিষয়ে আলোচনা করতে। এই সানোয়ার হোসেন এক সময় যুবদল সভাপতি খোরশেদের অন্যতম ঘনিষ্ঠজন ছিলেন। জানাগেছে, নারায়ণগঞ্জ মহানগর যুবদলের সভাপতি ও সিটি কর্পোরেশনের কাউন্সিলর মাকসুদুল আলম খন্দকার খোরশেদকে সাত দিনের আল্টিমেটাম দিয়েছিলেন নারায়ণগঞ্জ মহানগর যুবদলের একাংশের নেতারা। গত ২২ এপ্রিল সোমবার সন্ধায় নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশনের বন্দরে ২৭নং ওয়ার্ডের কুড়িপাড়া এলাকায় বন্দর যুবদলের আয়োজিত এক কর্মীসভায় এই আল্টিমেটাম দেন নেতারা। কর্মী সভায় মহানগর যুবদলের একাংশের নেতাকর্মীদের পক্ষে এমন ঘোষণা দেন মহানগর যুবদলের সিনিয়র যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক সাগর প্রধান। ওই সময় নেতাকর্মীরা এমন আল্টিমেটামের পক্ষে হাত তালি দিয়ে সমর্থন জানান। নারায়ণগঞ্জ মহানগর যুবদলের সহ-সভাপতি সানোয়ার হোসেনের সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি হিসেবে মহানগর যুবদলের সিনিয়র সহ-সভাপতি মনোয়ার হোসেন শোখন, প্রধান বক্তা হিসেবে মহানগর যুবদলের সিনিয়র যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক সাগর প্রধান, বিশেষ অতিথি হিসেবে মহানগর যুবদলের সহ-সভাপতি আহাম্মদ আলী ও যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ফিরোজ আহমেদ ওই সভায় বক্তব্য রাখেন। কর্মীসভায় প্রধান বক্তা সাগর প্রধান তার বক্তব্যে বলেছিলেন, সাত দিনের আল্টিমেটাম দিয়ে গেলাম। এই সাত দিনের মধ্যে এই মহানগর যুবদলের সভাপতি, সেক্রেটারি সকলকে নিয়ে বসে কমিটি কিভাবে সাজাতে হবে, কমিটি কিভাবে কাজ করবে, নেতাকর্মীদের কিভাবে মুল্যায়ন করা যায়, এমন কার্যক্রম পরিচালনা করতে যদি অপারগতা প্রকাশ করে, তাহলে আমরা কেন্দ্রকে জানাবো এবং সিদ্ধিরগঞ্জ, বন্দর নারায়ণগঞ্জ আমাদের সঙ্গে যত নেতাকর্মী আছে, তাদের সাথে পরামর্শ করে, আমরাও বিকল্প কি করা যায় সেটা চিন্তা করব। এবং সেটা এমনভাবে করব, আপনারা যত সহজ মনে করেন এতটা সহজে বুঝবেন না। এত সহজে হাল ছাড়বো না। একটা হাতি হাজার হাজার পিপড়াকে পাড়া দিয়ে পিসিয়ে ফেলতে পারে, কিন্তু একটা পিপড়া যদি বাইয়া হাতির কানের ভিতরে ঢুকে তাহলে সেই পিপড়া কিন্তু বিশাল হাতিকে নাচাইয়া ফালায়। আমরা কিন্তু সেই পিপড়া। কাজেই আপনারা চালাকি করবেন না। যত দূর পারি এগিয়ে যাবো কিন্তু পরাজিত হবো না ইনশাহআল্লাহ। সাগর প্রধান আরও বলেছিলেন, মহানগর যুবদলে ২৫ জন কখনও সহ-সভাপতি হতে পারেনা। ১৮ জন কখনও যুগ্ম সম্পাদক হতে পারেনা। যোগ্য আছে, ধরলাম সবাই যোগ্য। কিন্তু কমিটির ক্ষেত্রে ২৫ জন সহ-সভাপতি হতে পারে না। এটা স্বেচ্ছাচারিতা, এটা সংগঠন বিরোধী কাজ। এটা হচ্ছে পামওয়েল তেল আর এক নম্বর ঘি এক সাথে এক ধরে বেচা কিনি করা। যারা এভাবে গুণীজনের সম্মান নষ্ট করে আল্লাহর তরফ থেকে আল্লাহর তরফ থেকে তাদের সম্মান নিজে নষ্ট করে। সাগর প্রধান দূঃখ প্রকাশ করে বলেছিলেন, তৈমূর আলম খন্দকারের একটা ভুলের কারনে আমাকে জেল খাটতে হয়েছিল। তার ভুলের কারনেই দ্বিতীয়বার জেলে যেতে হয়েছিল। সভায় সাগর প্রধান এর আগে আরও বলেন, আমরা মাকসুদুল আলম খন্দকার খোরশেদকে মহানগর যুবদলের আহ্বায়ক হিসেবে সম্মান করে তার সঙ্গে কাজ করেছি। দলের দুঃসময়ে যেনো বিভেদ সৃষ্টি না হয় আন্দোলন সংগ্রামে কাজ করেছি। ২০১৪ সালের আন্দোলন সংগ্রামে খোরশেদ নারায়ণগঞ্জে প্রবেশ করতে পারেনি। ওই সময় সবচেয়ে বেশি ভুমিকা ছিল সানোয়ার ভাইয়ের। আমরা পালিয়ে থেকে এসেও মহানগরীর বিভিন্ন এলাকায় কর্মসূচি পালন করেই আবার আত্মগোপনে চলে গিয়েছিলাম। খোরশেদ যখন আত্মগোপনে ছিল তখন আমরাই মহানগর যুবদলের নেতৃত্ব দিয়েছিলাম এবং আন্দোলন সংগ্রাম করেছিলাম। তিনি খোরশেদের কাছে প্রশ্ন রেখে বলেন, যদি সুপার ফাইভ কমিটি দিয়ে থাকে, যদি সিনিয়র সহ-সভাপতি ও সিনিয়র যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক কোন কাজেই না লাগে তাহলে আপনারা এই দুটা পদকে কেন বাতিল করলেন না? আজকে আমাদের পদ নিয়ে কোন বিরোধীতা নাই। আমি সিনিয়র যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক পদেও আছি, শোখন ভাই সিনিয়র সহ-সভাপতি পদেও আছেন। আমরা তো আমাদের জন্য কথা বলছি না। কিন্তু সানোয়ার ভাইকে অবমুুল্যায়ণ করা হয়েছে। সানোয়ার ভাইয়ের ঋণ খোরশেদ কখনও শোধ করতে পারবেন না।

About ডান্ডিবার্তা

View all posts by ডান্ডিবার্তা →

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *