মাদকের সাথে সমাজের অনেকেই জড়িত-এসপি

ডান্ডিবার্তা রিপোর্ট
পুলিশ সুপার মোহাম্মদ হারুন অর রশীদ বলেছেন, নারায়ণগঞ্জের অনেক মাদক ব্যবসায়ী, সন্ত্রাসীদের
আমরা খুঁজছি। অনেকে বক্তব্য রাখেন এই করবো, সেই করবো কিন্তু আসলে মাঠে আমরা কাউকেই
পাইনা। চাঁদাবাজ, মাদক ব্যবসায়ীরা যে ভালো হয়ে গেছে বা পালিয়ে গেছে তা নয়, তাঁরা ওঁত পেতে
আছে। নারায়ণগঞ্জে সাধারণ মানুষের মধ্যে অন্তত বিচার দেয়ার প্রবণতা শুরু হয়েছে। তারা অন্তত
বিচারটা দিতে পেরেছে। আমরা অভিযোগগুলো পাচ্ছি। গতকাল রোববার সকালে জেলা প্রশাসকের
সম্মেলন কক্ষে আইনশৃঙ্খলা কমিটির মাসিক সভায় তিনি এসব কথা বলেন। পুলিশ সুপার আরো বলেন,
নারায়ণগঞ্জে মাদকের বিরুদ্ধে অভিযান চালনা করছি তবে নির্মূল করতে পারছিনা। সমাজের অনেক
শ্রেণির লোক এর সাথে জড়িত রয়েছে। অনেককে আমরা আইনের আওতায় এনেছি। অনেকে জেলেও
রয়েছেন। অনেকের নামও আমাদের হাতে রয়েছে। মাদকব্যবসায়ীদের ধরছি, তাদের জামিন হয়ে
যাচ্ছে। মাদক নির্মূলে সকলের সহযোগিতা কামনা করে পুলিশ সুপার বলেন, মাদক সয়লাব হয়ে গেলে
আগামী প্রজন্ম খারাপ পরিণতির দিকে যাবে। আমরা তাই মাদকের বিরুদ্ধেই শক্তভাবে কাজ করছি।
আমরা কোন ব্যক্তি, নেতা, গোষ্ঠী কিংবা কাউকে হেয় প্রতিপন্ন করার জন্য অভিযান পরিচালনা
করছিনা। পিপি সাহেবের বাড়িতে কিন্তু মাদক পাওয়া গেছে। তিনি যদি মাদকের বিরুদ্ধে কঠোর
এ্যাকশন নিতেন তাহলে মাদকের লোক এরেস্ট হতোনা। আমি কথার কথা বলছি। আমাদের উচিৎ হলো
বা যদি করতে পারতাম কোন মাদক ব্যবসায়ী কোর্ট থেকে জামিন পাবেননা, যার লোকই হোক। ওমুক
ভাইয়ের লোক এমন শেল্টার যদি না দেয়া হতো তবে তারা বাড়ি থেকে পালিয়ে থাকতো। ভূমিদস্যূতায়
নাসিক কাউন্সিলরদের সম্পৃক্ততা উল্লেখ করে এসপি হারুন বলেন, কাউন্সিলরা জমি দখল করছে।
অনেক কাউন্সিলরদের বিরুদ্ধে অভিযোগ তারা জমি দখল করছে। আমরা তাদের ডাকলে তারা বলে
অসুস্থ কিংবা তাদের পাওয়া যাচ্ছেনা। সাধারণ মানুষের মধ্যে অশান্তি। সাধারণ মানুষ কোন জায়গা
কিনলে ফতুল্লা, সিদ্ধিরগঞ্জ, সাইনবোর্ড এলাকায় শত শত মানুষকে ভোগান্তিতে ফেলছে। মানুষ কোন
বিচার পাচ্ছেনা। নগরীর যানজট নিরসনের ব্যাপারে এসপি হারুন বলেন, হকাররা রাস্তায় বসতে
পারবেনা। বঙ্গবন্ধু সড়কে হকার বসা, পপুলার হাসপাতালের সামনের রাস্তায় পার্কিং কররতে পারবেনা।
যানজট লেগে গেলে সবাই মনে করে পুলিশ ট্রাফিক ঠিকভাবে নিয়ন্ত্রণ করতে পারছেনা। কিন্তু বিভিন্ন
সড়কে হাসপাতাগুলোর কোন পার্কিং ব্যবস্থা তো নেই। উল্টো তারা আবার ফুটপাতের সামনের জায়গায়
তারা ভাড়া দেয়। ফুটপাতের সামনে একটা মাস্তানচক্রও ভাড়া আদায় করে। তাদের নামও আমরা
পেয়েছি। তিনি জেলা প্রশাসকের দৃষ্টি আকর্ষণ করে বলেন, রমজানে যানজট সমস্যা নিরসন ও
ছিনতাইয়ের কবল থেকে রেহাই দিতে যদি চাষাড়া মোড় কিংবা আশপাশের এলাকার কিছু কিছু জায়গায়
আনসার দিলে বিশৃঙ্খল পরিস্থিতি এড়ানো যেতো। নারায়ণগঞ্জে শহর অনেকটা রিক্সার শহর। রাস্তার
মাঝখানে ডিভাইডার, ফুটপাতে হকার ভর্তি। এসব কে দেখবে, এগুলো দেখার মতো কেউ নেই।
ডিভাইডার ভাঙতে গেলে বলবে এসপি সাহেব মাতবরি করছে। এসব সমাধানে আমাদের বের হয়ে

আসতে হবে। ফতুল্লা রোডে কমিউনিটি পুলিশ, চাষাঢ়া থেকে দুই নং রেলগেট পর্যন্ত কমিউনিটি পুলিশ,
সাইনবোর্ড, কাচঁপুর এলাকায় কমিউনিটি পুলিশ থাকবে। জিয়া হলে মেলা বসানোর কারণে যানজট
তৈরি হচ্ছে। এটি একটি পরিত্যক্ত ভবন। জিয়াহলে মেলা হলে মূল সড়কে যানজট তৈরি হয়। এখানে
মেলা না হলেই ভালো হতো। এসপি হারুন অর রশীদ উদ্বেগ প্রকাশ করে বলেন, নারায়ণগঞ্জে নারী
নির্যাতনের ঘটনা বৃদ্ধি পেয়েছে। সেই সাথে আত্মহত্যার প্রবণতাও বৃদ্ধি পাচ্ছে। নারায়ণগঞ্জে বর্তমানে
যেসব খুন হচ্ছে এগুলোর বেশিরভাগই নারী নির্যাতনের ঘটনা। সমাজের বিভিন্ন ধরণের অরাজকতা,
মাদক এই নারী নির্যাতনের ঘটনা তৈরি করছে। স্বামীর বাড়িতে একজন নারী নির্যাতিত হচ্ছেন, কোর্ট,
থানায় কোথাও বিচার না পেয়ে আত্মহত্যার পথ বেঁছে নিচ্ছে। রূপগঞ্জে এমন কয়েকটি ঘটনা ঘটেছে।
নারায়ণগঞ্জের কোন এমপির সাথে আমাদের কোন দুরুত্ব নেই বলে জানান এসপি। জেলা ম্যাজিস্ট্রেট
রাব্বী মিয়ার সভাপতিত্বে সভায় নারায়ণগঞ্জ -৬২ এর এসপিপি এস এম হাবিব ইবনে জাহান, অতিরিক্ত
জেলা প্রশাসক সেলিম রেজা, মোহাম্মদ মাসুম বিল্লাহ, অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট যুথিকা সরকার,
অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (প্রশাসন) মনিরুল ইসলাম, র‌্যাব- ১১’র সহকারী পুলিশ সুপার মোস্তাফিজুর
রহমান, নারায়ণগঞ্জ প্রেসক্লাবের সভাপতি এড. মাহবুবুর রহমান মাসুম, সাধারণ সম্পাদক
হাসানুজ্জামান শামীম, পিপি এড. ওয়াজেদ আলী খোকন, জেলা আইনজীবী সমিতির সভাপতি এড.
হাসান ফেরদৌস জুয়েল, সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা নাহিদা বারিক, বন্দর উপজেলা নির্বাহী
কর্মকর্তা পিন্টু বেপারী, রূপগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মমতাজ বেগম প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

About ডান্ডিবার্তা

View all posts by ডান্ডিবার্তা →

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *