নারায়ণগঞ্জ বিএনপিও নিশ্চুপ কেন?

ডান্ডিবার্তা রিপোর্ট
নারায়ণগঞ্জে গত তিন মাস ধরে রাজনীতি নিশ্চুপ রয়েছে আওয়ামীলীগ। দলীয় কোন্দলের পাশাপাশি প্রশাসনের কঠোর অবস্থানের কারণে অনেকটা কোনঠাসা হয়ে পড়েছে ক্ষমতাসীনরা। অপরাধ মুক্ত নারায়ণগঞ্জ গড়তে পুলিশের সাঁড়াশি অভিযানে ক্ষমতাসীন দলের অনেক নেতাই বেকায়দায় পড়েছেন। এছাড়াও অনেকে পুলিশের নজরদারীতে রয়েছেন। তাই রাজনীতিতে অনেকটা নিশ্চুর রয়েছেন ক্ষমতাসীন দলের দাপুটে নেতারাও। তবে একাধিক কারণে ক্ষমতাসীরা নিশ্চিুপ থাকায় নারায়ষগঞ্জের রাজপথ দখলে বিএনপি নিশ্চুপ কেন-এমন প্রশ্ন বিএনপির মাঠ পর্যায়ের নেতাদের। তারা বলছেন, আওয়ামীলীগ রাজনীতিতে নিজেদের অবস্থান শক্তর সুযোগ এসেছে বিএনপির। তবে সেই সুযোগকে কাজে লাগাতে অনীহা প্রকাশ করছে বিএনপির শীর্ষ নেতারা। জানাগেছে, একযুগ ধরে ক্ষমতার বাহিরে থাকায় নারায়ণগঞ্জে বিএনপির নেতাকর্মীরা ঝিমিয়ে পড়েছে। পাশাপাশি বিগত সময়ে হামলা মামলার শিকার হয়ে বিএনপির নেতাকর্মীরা রাজপথে নামতে অনীহা প্রকাশ করছেন। তাই নারায়ণগঞ্জের রাজনীতিতে অনেকটা অস্তিত্ব সংকটে পড়েছে বিএনপির। নতুন করে মামলায় না জড়াতে রাজনীতিতে সক্রিয় হচ্ছেন না বিএনপির মাঠ পর্যায়ের নেতাকর্মীরা। তবে সম্প্রতি পুলিশ ব্যস্ত নারায়ণগঞ্জ অপরাধ মুক্ত করার জন্য। সেক্ষেত্রে বিএনপিকে নতুন করে মামলা জড়ানোর সম্ভাবনা কম। তাই নিজেদের অবস্থানের গতি ফিরিয়ে আনতে এখনই উত্তম সময়। তবে নারায়ণগঞ্জ বিএনপির শীর্ষ নেতারাও দলের গতি ফিরিয়ে আসতে কোন প্রকার উদ্যোগ না নিলেও নিজের বলয়কে শক্ত করতে ব্যস্ত বেশ কয়েকজন নেতা। যারা দলের সাংগঠনিক অবস্থার কথা চিন্তা না করে নিজের স্বার্থ আদায়ে সক্রিয় রয়েছেন। নিজের স্বার্থে দলের মধ্যে বিভাজন সৃষ্টি করছেন। মাঠ পর্যায়ের নেতাদের মতে, আর এমন স্বার্থবাজ নেতার তালিকায় শীর্ষে রয়েছেন জেলা বিএনপির সাবেক সভাপতি তৈমূর আলম খন্দকার ও তার ছোট ভাই মাকসুদুল আলম খোরশেদ। এরাই নারায়ণগঞ্জ বিএনপিকে দূর্বল করে রেখেছে শুধু মাত্র নিজেদের স্বার্থ আদায়ের জন্য। অভিযোগ রয়েছে, তৈমূরের জনই বিএনপির অনেক ত্যাগী নেতা রাজনীতিতে অনীহা প্রকাশ করছেন। যেই নেতাই দলের স্বার্থে নেতাকর্মীদের ঐক্যবদ্ধ করতে মাঠে নামেন তাকেই কোনঠাসা করে ফেলেন তৈমূর। সম্প্রতি দেখা গেছে, নারায়ষগঞ্জ বিএনপির নেতা কর্মীদের রাজনীতিতে সক্রিয় করতে যখন এড. সাখাওয়াত হোসেন খান বিভিন্ন কর্মসূচী পালন করছেন তখন সাখাওয়াতকেও কোনঠাসা করতেও চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন তৈমূর। তাই বর্তমানে সুযোগ থাকার পরও তৈমূর আলম খন্দকারের মত নেতাদের কারণেই নারায়ণগঞ্জে ঘুরে দাঁড়াতে পারছে না বিএনপি।

About ডান্ডিবার্তা

View all posts by ডান্ডিবার্তা →

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *