বন্দর উপজেলায় নির্বাচন কমিশনার রফিকুল একা গণতন্ত্র ঠিক রাখতে পারব না

বন্দর প্রতিনিধি
বাংলাদেশ নির্বাচন কমিশনার মোঃ রফিকুল ইসলাম বলেছেন, পূর্বে আমরা খারাপ অভিজ্ঞতা অর্জন করেছি। তা থেকে জেন বের হয়ে আসতে পারি। ব্যালট পেপার ছাপানো ঝামেলা থেকে রক্ষা পাওয়ার জন্য ইভিএম পদ্ধতি চালু করা হয়েছে। ইভিএম এর মাধ্যমে বন্দর উপজেলা পরিষদের নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। পৃথিবীর প্রত্যোকটি জিনিস নিয়ে বির্তক রয়েছে। ইভিএম নিয়েও বির্তক রয়েছে। আমি তা অস্বিকার করছি না। গতকাল বুধবার দুপুরে বন্দর উপজেলা মিলনায়তনে পঞ্চম উপজেলা পরিষদ নির্বাচন -২০১৯ ভোট গ্রহন কর্মকর্তাদের প্রশিক্ষন কর্মশালায় প্রধান অতিথির ব্যক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন। তিনি আরো বলেন, ইভিএম পদ্ধতি চালু হয়েছে ২০০০৮ সালে। ১৭ টি উপজেলায় ইভিএম এর মাধ্যমে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়েছে। আমি একা গনতন্ত্র ঠিক রাখতে পারব না। গনতন্ত্র ঠিক রাখতে চাইলে ভোটার, রাজনিতীবিদ, প্রার্থী ও সুশিল সমাজকে ঠিক করতে হবে। পত্রিকা খুলে দেখবেন কেউ কেউ বলছে আমরা নাকি নির্বাচনকে ধ্বংস করে দিচ্ছি। আবার কেউ বলছে নির্বাচন অবাধ সুষ্ঠ হয়েছে। কর্মশালায় প্রক্ষিনার্থীদের উদ্দেশে তিনি আরো বলেন, ইভিএম মেশিনে ব্যালট পেপার রয়েছে। মেশিন থেকে র‌্যালট পেপার কিভাবে ইস্যু করবে তা ভালোভাবে জানবেন। আপনাদের বিরুদ্ধে কোন প্রকার অভিযোগ পাওয়া গেলে কোন প্রকার ছাড় দেওয়া হবে না। অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) নারায়ণগঞ্জ ও নির্বাচনের রিটার্নিং অফিসার মুহাম্মদ মাছুমম বিল্লাহ সভাপতিত্বে কর্মশালায় বক্তব্য রাখেন আঞ্চলিক নির্বাচন কর্মকর্তা ঢাকা অঞ্চল মোঃ রকিবুল মন্ডল,অতিরিক্ত পুলিশ সুপার নূরে আলম, জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা মোঃ মতিউর রহমান, বন্দর উপজেলা পরিষদের নির্বাহী কর্মকর্তা পিন্টু বেপারী। কর্মশালায় উপস্থিত ছিলেন সহকারি ভূমি কমিশনার আফিফা খান, বন্দর থানা অফিসার ইনর্চাজ মোঃ রফিকুল ইসলাম, বন্দর উপজেলা পরিষদের নির্বাচন অফিসার নাজিম উদ্দিন ভূইয়া প্রমুখ।

About ডান্ডিবার্তা

View all posts by ডান্ডিবার্তা →

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *