মিলেমিশে কাজ না করলে না’গঞ্জের উন্নয়ন হবে না: ডিসি জসিম উদ্দিন

ডান্ডিবার্তা রিপোর্ট
সদ্য নারায়ণগঞ্জের প্রশাসক হিসেবে দায়িত্ব গ্রহণ করা জেলা প্রশাসক জসিম উদ্দিন বলেছেন, কথা আর কাজে মিল থাকলে শ্রদ্ধাটা এমনিতেই চলে আসবে। নির্বাচিত প্রতিনিধি এবং সংসদ সদস্যদের সাথে আমি মিলেমিশে কাজ করতে চাই। একসাথে মিলেমিশে কাজ না করলে নারায়ণগঞ্জের উন্নয়ন হবেনা। দুরুত্ব না রেখে সবার সাথে মিলেমিশে একসাথে কাজ করতে চাই। গতকাল সোমবার বিকেলে জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ে ইলেকট্রনিক, প্রিন্ট ও অনলাইন মিডিয়ার সাংবাদিকদের সাথে এক মতবিনিময় সভায় তিনি এসব কথা বলেন। মতবিনিময় সভায় নারায়ণগঞ্জ প্রেসক্লাবের সভাপতি অ্যাডভোকেট মাহবুবুর রহমান মাসুম বলেন, শিল্পনগরী হওয়ায় চট্টগ্রামের পর নারায়ণগঞ্জের রাজস্ব সর্বাধিক। তবে নারায়ণগঞ্জ এখনো বিশেষায়িত জেলা হতে পারেনি। জেলা প্রশাসকের কাছে অনুরোধ থাকবে নারায়ণগঞ্জকে বিশেষায়িত জেলা হিসেবে যাতে স্বীকৃতি পায়। দ্বিতীয় নারায়ণগঞ্জে সিটি করপোরেশন হলেও নারায়ণগঞ্জ এখনো মেট্রোপলিটন সিটি হতে পারেনি। রংপুর, গাজীপুর মেট্রোপলিটন সিটি হলেও গুরুত্বের দিক দিয়ে বিশেষ নারায়ণগঞ্জ এখনো মেট্রোপলিটন সিটি হতে পারেনি। এগুলো সমন্বয় করা জেলা প্রশাসকের কর্মকর্তাদের। তিনি বলেন, অতীতে রহমত উল্লাহ নারায়ণগঞ্জের মহাকুমা প্রশাসক হিসেবে ছিলেন। তার বিদায়ে শীতলক্ষ্যার পাড়ে হাজার হাজার মানুষ অশ্রু ফেলেছে। নারায়ণগঞ্জের প্রেক্ষাপটে তিনি রহমতউল্লাহ ইনস্টিটিউট গড়ে তুলেছিলেন। গত ৬ বছর এটির কোন নির্বাচন হয়না। রহমতউল্লাহ ইনস্টিটিউটের একটি ভবন তিনদিন আগে সিটি করপোরেশন ভেঙে দিয়েছে তবে এর বদলে প্রায় ১৭ শতাংশ জায়গা দিয়েছে। সেখানে একটি বহুতল ভবন তৈরি করে দোকান ভাড়া দেয়া হয়েছে। আমরা নারায়ণগঞ্জবাসী জানতেও পারিনা সেই ভাড়াটি কোথায় যায়। রহমতউল্লাহ ইনস্টিটিউটের ফান্ডটি ভালোভাবে যাতে তদারকি করা হয়। এবং সেখানে একটি লাইব্রেরী চালু করা গেলে রহমত উল্লাহ ইনস্টিটিউটের অস্তিত্ব খুঁজে পাওয়া যাবে। নারায়ণগঞ্জ ফাউন্ডেশন থেকে জেলার শিক্ষার্থীদের যে বৃত্তি দেওয়া হতো সেটি আবারও যাতে চালু করা হয়। এই ফাউন্ডেশনের বর্তমান অবস্থান কেউ জানেনা। জেলা প্রশাসকসহ প্রশাসনের কর্মকর্তাদের আমরা নারায়ণগঞ্জবাসী হিসেবেই ভাবি উল্লেখ করে মাহবুবুর রহমান মাসুম বলেন, জেলা প্রশাসনের সমন্বয়সভা একটি পিকনিক সভা হতো। নারায়ণগঞ্জের ওয়াসা নগরবাসীকে কোন সেবা দিতে পারছেনা। তারা বলছে, সেখানে পানি শোধন হয়। ওয়াসা যদি রমজানে বিশুদ্ধপানি দিতে পারে তবে বছরের বাকি ১১ মাস কেন বিশুদ্ধ পানি দিতে পারবেনা। এব্যাপাারে দ্রুত যাতে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হয়। আমরা চাই ওয়াসা যাতে সিটি করপোরেশনের তত্ত্বাবধানে চলে আসুক। নারায়ণগঞ্জ জেলা সাংবাদিক ইউনিয়নের সভাপতি (এনইউজে) আবদুস সালাম বলেন, নারায়ণগঞ্জ জেলা হিসেবে ঘোষণা হওয়ার পর খুব কম সংখ্যক জেলা প্রশাসককেই নারায়ণগঞ্জবাসী মনে রেখেছে। তিনি বলেন, নারায়ণগঞ্জ লক্ষীর শহর, নারায়ণগঞ্জ সরস্বতীর শহর, নারায়ণগঞ্জ অসুরের শহর। নারায়ণগঞ্জে বাণিজ্যে লক্ষী, শিক্ষায় সরস্বতী এবং বধ করবার জন্য অসুরকে প্রয়োজন হয়। অনেক ঘটনা ও কালের স্বাক্ষী নারায়ণগঞ্জ। নারায়ণগঞ্জ সম্পর্কে বাইরের মানুষের কাছে নেতিবাচক প্রচারণা আছে। আমরা ভালো ভালো, খারাপকে খারাপ, সাদাকে সাদা আর কালোকে কালো বলতে চাই। এক্ষেত্রে যদি কারো উপরে কিছু পড়ে যায় তাহলে এটি দেখার দায়িত্ব আমরা নেইনা। পেশাদার সাংবাদিকরা কখনো ব্যক্তিগত প্রয়োজনে আপনার দ্বারস্থ হবেনা। কিন্তু আমরা চাই স্বচ্ছতা এবং জবাবদিহিতা। নারায়ণগঞ্জে কিছু সংকট রয়েছে। ফুটপাত দখলমুক্ত করা, বালু সন্ত্রাসীরা বুড়িগঙ্গা, শীতলক্ষা, মেঘনা, ধরেশ্বরীতে বেপরোয়া। এরসাথে যারা জড়িত তাদের যাতে ছাড় দেয়া না হয়। আমরা নারায়ণগঞ্জে সুস্থ্য ধারার পরিবেশ, বাসযোগ্য পরিবেশ চাই। এজন্য এই নারায়ণগঞ্জ শহরকে নিজের শহর ভেবে একটি পরিকল্পিত নগরী গড়ার জন্য কাজ করবেন এটিই আমাদের প্রত্যাশা। পাশাপাশি নারায়ণগঞ্জের সর্বত্র সন্ত্রাসের যে অবস্থান, ছিনতাইকারী, ঝুট সন্ত্রাস, খুনাখুনি এবং নারায়ণগঞ্জকে লাশের ডাম্পিং স্টেশন যাতে না বানাতে পারে তাঁর বিরুদ্ধে জেলা প্রশাসকের কঠিন অবস্থান প্রত্যাশা করি। নারায়ণগঞ্জ শহরে একাধিক শাসন চলে। জেলা প্রশাসন, পুলিশ প্রশাসন, সিটি করপোরেশন এবং সাংসদের অবস্থানের সম্মিলিত সমন্বয় ঘটানো সম্ভব হলে একটি সুন্দর নারায়ণগঞ্জ পাবো। নারায়ণগঞ্জ জেলা সাংবাদিক ইউনিয়নের (এনইউজে) সাধারণ সম্পাদক আফজাল হোসেন পন্টি বলেন, নারায়ণগঞ্জকে অন্যান্য জেলার সাথে মেলালে হবেনা। এখানে অপরাধের মাত্রাটা বেশি হয়। জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে যে আশ্বাস দেয়া হয় সেটি মোটামোটিভাবে রক্ষা করলেও মানুষ উপকৃত হয়। অতীতে যেখানে ইতিবাচকভাবে পদক্ষেপ নিলে সমস্যা সমাধান হয় সেটি নেয়া হয়নি। উদাহরণ হিসেবে বর্তমান এসপির কল্যাণে বঙ্গবন্ধু সড়কের ফুটপাত হকার মুক্ত হয়েছে। দায়িত্বের বাইরে গিয়ে ইতিবাচক চিন্তা নিয়ে কাজ করতে হবে। রাজনৈতিক দল কিংবা নেতার সাথে শুধু সম্পৃক্ত না থেকে সাধারণ মানুষের স্নায়ু বুঝে কাজ করার ব্যাপারে জেলা প্রশাসনের ভূমিকা চাই। নারায়ণগঞ্জ প্রেসক্লাবের সাবেক সাধারণ সম্পাদক আবু সাউদ মাসুদ বলেন, প্রশাসন ও সাংবাদিকদের সাথে যাতে সুসম্পর্ক থাকে এটি কামনা করি। পেশাদারিত্বে কারণে সেই সম্পর্কটি আমরা রাখতে পারিনা। এমন কিছু যাতে না হয় যেটি প্রশাসনের বিপক্ষে আমাদের অবস্থান নিতে হয়। মতবিনিময় সভায় স্থানীয় সরকার বিভাগ নারায়ণগঞ্জের উপপরিচালক আলতাব হোসেন, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (শিক্ষা ও আইসিটি) রেহানা আক্তার কলি, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) মোহাম্মদ মাসুম বিল্লাহ, জেলা ম্যাজিস্ট্রেট যুথিকা সরকার, নারায়ণগঞ্জ প্রেসক্লাবের সভাপতি মাহবুবুর রহমান মাসুম, সাধারণ সম্পাদক হাসানুজ্জামান শামীম, সাবেক সাধারণ সম্পাদক নাফিজ আশরাফ, আবু সাউদ মাসুদ, মোস্তফা করিম, নারায়ণগঞ্জ জেলা সাংবাদিক ইউনিয়নের সভাপতি আব্দুস সালাম, সাধারণ সম্পাদক আফজাল হোসেন পন্টি, বৈশাখী টেলিভিশনের রফিকুল ইসলাম রফিক, প্রথম আলোর মজিবুল হক পলাশ, মানবজমিনের বিল্লাল হোসেন রবিন, মাছরাঙার জুয়েল হোসেন, একাত্তর টেলিভিশনের সোহেল, মানবকন্ঠের নাহিদ আজাদ, সমকালের এম এ খান মিঠু, কালেরকন্ঠের দিলীপ কুমার মন্ডল, বাংলাদেশ প্রতিদিনের রোমান, ভোরের ডাকের মোশতাক আহমেদ শাওন, ঢাকা ট্রিবিউনের শামীমা রীতাসহ বিভিন্ন ইলেকট্রনিক, প্রিন্ট ও অনলাইন মিডিয়ার সাংবাদিকগণ উপস্থিত ছিলেন। প্রসঙ্গত, জেলা প্রশাসক জসিম উদ্দিন ২০তম বিসিএস প্রশাসনের কর্মকর্তা। ২০০১ সালের ২৮ মে সহকারী কমিশনার হিসেবে খুলনা জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ে যোগদান করেন। সহকারী কমিশনার ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট হিসেবে ঝিনাইদহে কাজ করছেন। সহকারী কমিশনার (ভূমি) এসিল্যান্ড হিসেবে নড়াইল ও মেহেরপুর সদরে কাজ করেছেন। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা হিসেবে তিনি ঝালকাঠি জেলার রাজাপুরে দায়িত্ব পালন করেছেন। জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ে তিনি সিনিয়র সহকারী কমিশনার হিসেবে কাজ করেছেন। অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক হিসেবে তিনি ঢাকা কালেক্টারেট অফিসে কাজ করেছেন। উপসচিব পদোন্নতি পাওয়ার পর নারায়ণগঞ্জের বর্তমান জেলা প্রশাসক বন ও পরিবেশ মন্ত্রণালয়, স্বাস্থ্য অধিদপ্তর এবং স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ে কাজ করেছেন। পাবনা জেলায় ১৪১ তম জেলা প্রশাসক হিসেবে তিনি দায়িত্ব গ্রহণ করেন। চলতি বছরের ২৩ জুন তিনি নারায়ণগঞ্জের জেলা প্রশাসক হিসেবে দায়িত্ব গ্রহণ করেন।

About ডান্ডিবার্তা

View all posts by ডান্ডিবার্তা →

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *