কর্মীদের আস্থা অর্জনে ব্যর্থ বিএনপি

ডান্ডিবার্তা রিপোর্ট

দিনের পর দিন আশ্বাস আর ফাঁকা বুলি দেয়ার ফলে কর্মীদের নিকট হতে আস্থা হারিয়ে ফেলেছেন নেতারা। দীর্ঘদিন সক্রিয় কর্মসূচী বিহীন অবস্থায় থাকার কারণে ভেঙ্গে পড়েছে দলটির সাংগঠনিক অবস্থা। যেসকল নেতাকর্মীরা সকল বাধা বিপত্তি উপেক্ষা করে দলের পক্ষে কাজ করে যাচ্ছিলেন তারাও দলের নেতাদের কমিটি বাণিজ্যের ফাঁদে পরে সেই ভরসাটুকুও হারিয়েছেন। একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বিএনপির বিপর্যয়ের পর দলটির কর্মসূচিতে নেতাকর্মীদের তেমন উপস্থিতি মিলছে না। বিএনপির পরিস্থিতি বর্তমানে এমন পর্যায়ে পৌঁছেছে যে, কোন জায়গায় শ্রোতার চেয়ে বক্তার সংখ্যা বেশি। এ নিয়ে দলটির নেতাকর্মীদের মধ্যে হতাশা থাকলেও দায়িত্বশীল নেতারা কোন সুরাহা করতে পারছেন না। সবশেষ গ্যাসের মূল্য বৃদ্ধির প্রতিবাদে ২ জুলাই বিক্ষোভ সমাবেশ করে জেলা ও মহানগর বিএনপি। এসময় পুলিশি তৎপরতা কিংবা বাধা না থাকলেও তারা মূল সড়ক ছেড়ে গলির ভেতর অবস্থান নেয়। লোক সংখ্যাও ছিল একেবারেই যৎসামান্য। মহানগর বিএনপিতে দলটির শীর্ষ নেতৃবৃন্দ উপস্থিত থাকলেও জেলা বিএনপির কর্মসূচীতে খোদ নেতাদেরই খুঁজে পাওয়া যায়নি। এ অবস্থায় কমিটি নিয়ে আলোচনা সমালোচনা হলেও তা গায়ে মাখছেন না নেতাকর্মীরা। দলের নেতাকর্মীদের অবস্থান নিয়ে এক নেতা বলেন, নির্বাচনের পর থেকে নেতাদের মধ্যে যেমন পারস্পরিক সম্পর্কের ঘাটতি বেড়েছে তেমনি কর্মীরাও এখন নেতাদের বিশ্বাস করতে পারছেন না। এর কারণ হচ্ছে খালেদা জিয়া ছাড়া নির্বাচনে যাবেন না এমন বক্তব্যে অনেকে গলা ফাটালেও শেষ পর্যন্ত তাকে ছাড়াই দল নির্বাচনে যায়। অপরদিকে কর্মীরা বার বার কঠোর কর্মসূচী চাইলেও অজানা কারণে তা থেকে বিরত থাকছে বিএনপি। দলে সক্রিয় থাকা কর্মীরা বলছেন, নেতাদের বাণিজ্যে ভরপুর পকেট কমিটি গঠন করার কারণে দলের কর্মসূচিতে সক্রিয় কর্মীদের উপস্থিতি নেই। দল থেকে যে কর্মসূচি দেয়া হচ্ছে তাতে কর্মীরা সন্তষ্ট নয়। নেতারা দায়সারা ভাবে মেসেজ পাঠিয়ে কর্মীদের উপস্থিত থাকতে বলছেন অথচ প্রতিকূল অবস্থায় খোঁজ নিয়েও দেখেন না তারা। সক্রিয় কর্মীদের কথা যেদিন নেতারা গুরুত্ব দিয়ে বিবেচনা করবেন, সেদিন বিএনপির সুদিন ফিরে আসবে। রাজনৈতিক বিশ্লে¬ষকদের মতে, রাজনীতিতে টিকে থাকতে হলে যেকোন দলের রাজপথে ও কর্মসূচিতে সক্রিয় থাকা প্রয়োজন। সেই সক্রিয়তাকে অগ্রাহ্য করার ফলেই বিএনপিতে আজ নেতাদের উপর আস্থা হারিয়ে ফেলেছে কর্মীরা। বিশ্বাস অর্জন একটি দীর্ঘ প্রক্রিয়া, এখন থেকেই দলে পুনর্গঠন ও সক্রিয়দের মূল্যায়ন করা না হলে এর দীর্ঘমেয়াদী দুর্ভোগ ভোগ করতে হবে বিএনপিকে।

About ডান্ডিবার্তা

View all posts by ডান্ডিবার্তা →

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *