কৌশলে ফুটপাতে বসছে হকাররা

ডান্ডিবার্তা রিপোর্ট
বঙ্গবন্ধু সড়কের ফুটপাত দখল করে আবারো বসতে শুরু করেছে হকাররা। তবে হুট করে পুলিশের তদারকি কমে যাওয়াতেই হকাররা ফুটপাত দখল করে বসছে বলে মনে করেন নগরবাসী। নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের (নাসিক) বাজেট অনুষ্ঠানে বঙ্গবন্ধু সড়কের ফুটপাতে হকার না বসতে দেয়ার ব্যাপারে জিরো টলারেন্স নীতি অবলম্বন করার কথা জানিয়েছিলেন নাসিক মেয়র ডা. সেলিনা হায়াৎ আইভী ও অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মনিরুল ইসলাম। বস্ত্র ও পাটমন্ত্রী গোলাম দস্তগীর গাজী এবং এমপি নজরুল ইসলাম বাবু নগরীতে হকারমুক্ত ফুটপাত থাকায় যানজট কমে যাওয়ায় পুলিশ প্রশাসন ও জেলা প্রশাসনের প্রশংসা করেছিলেন। সেখানে মাত্র ৪ দিনের ব্যবধানে আবারো বঙ্গবন্ধু সড়কের ফুটপাত দখলে নিতে শুরু করেছে হকাররা। গত ১৫ জুন নগরবাসীর স্বাচ্ছন্দে চলাচলের জন্য পুলিশ সুপার হারুন অর রশীদ বঙ্গবন্ধু সড়কের ফুটপাত ও ২নং রেলগেট থেকে কেন্দ্রীয় বাস টার্মিনাল পর্যন্ত হকার বসা নিষিদ্ধ করেন । কিন্তু মাঝে মাঝেই ফুটপাতে বসা নিয়ে হকার ও পুলিশের ইঁদুর দৌঁড় শুরু হয় । পুলিশ সড়কে এক পাশ থেকে উচ্ছেদ শুরু করলে সড়কের ওপর পাশে হকার বসে । পুলিশের এই উচ্ছেদ ফলে পাল্টেছে তাদের বসার কৌশল । কেউ হাতে ছোট ঝুড়ি নিয়ে কেউ বা আবার মার্কেটের দোকান মালিকদের মানিয়ে দোকানের পাশে বসে পড়েন। গতকাল বৃহস্পতিবার বঙ্গবন্ধু সড়কে সরজমিনে ঘুরে দেখা যায় নুর মসজিদের অপর পামে পুলিশের হকারদের উচ্ছেদের করতে দেখা গেলেও মার্কেটে ও দোকান রেস্তোরাগুলো সড়ক দখল করে তাদের ব্যবসায় চালাতে। এছাড়া নিউ সমবায় মার্কেটের সামনে থেকে হক প্লাজা পর্যন্ত বঙ্গবন্ধু সড়কের ফুটপাত দখলে নিয়েছে হকাররা। এছাড়া ২নং রেলগেট, চাষাঢ়ার লুৎফা টাওয়ারের সামনে, সুধীজন পাঠাগারের সামনেসহ আরো বেশ কয়েক জায়গায় মালামাল নিয়ে ফুটপাতে বসতে দেখা গেছে হকারদের। তবে এসময় পুলিশ প্রশাসনের কোন তৎপরতা চোখে পড়েনি। এসময় হকার ব্যবসায়ী বাবুল জানায়, আমারা দেড় মাস যাবত ব্যবসা করতে পারছি না। পরিবারকে নিয়ে খুব খারাপ অবস্থায় আছি । আমাদের বিকাল ৫ থেকে ১০ পর্যন্ত বসার সুযোগ করে দেয়া হোক। যত দিন পর্যন্ত আমাদেরকে পুনর্বাসন না দেয়া হয় । আমাদের একটি ভালো যায়গায় বসার সুযোগ করে দিলে আমাদের জন্য ভালো হয়। তবে নারায়ণগঞ্জবাসী মনে করেন, এতোদিন নগরীর ফুটপাতে বসার সাহস করেনি হকাররা। সম্প্রতি সিপিবি নারায়ণগঞ্জ জেলার সভাপতি ও হকার নেতা হাফিজুল ইসলাম, হকার নেতা রহিম মুন্সি ও আসাদ বঙ্গবন্ধু সড়কের ফুটপাতে বসতে দেয়ার জন্য হকারদের উস্কানি দিচ্ছেন। এর অন্তরালে আরো অনেকেও থাকতে পারেন। যার দরুণ নাসিক ও পুলিশ প্রশাসন ও জেলা প্রশাসনের নিষেধাজ্ঞা সত্ত্বেও হকাররা ফুটপাত দখল করার সাহস দেখাচ্ছেন। যদিও হকার্স মার্কেটের সামনে ততোটা ভীড় নেই। কিংবা এর দোকানগুলো প্রায়শই বন্ধ থাকে।

About ডান্ডিবার্তা

View all posts by ডান্ডিবার্তা →

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *