এখনো পুলিশের অনুমতি পায়নি বিএনপি

ডান্ডিবার্তা রিপোর্ট
পহেলা সেপ্টেম্বর বিএনপির ৪১তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী উপলক্ষে নারায়ণগঞ্জ শহরের র‌্যালি আয়োজন করার জন্য জেলা পুলিশ বরাবর আবেদন করেছে নারায়ণগঞ্জ মহানগর বিএনপি। তবে আবেদনের প্রেক্ষিতে এখনও কোন জবাব দেয়নি নারায়ণগঞ্জ জেলা পুলিশ। গত মঙ্গলবার দুপুরে ১ সেপ্টেম্বর র‌্যালি বের করার অনুমতি চেয়ে এসপি কার্যালয়ে আবেদন করে মহানগর বিএনপি। নারায়ণগঞ্জ কালীবাজার অস্থায়ী কার্যালয় থেকে বের হয়ে শহরের প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ করার পরিকল্পনা রয়েছে তাদের। তবে এখন পর্যন্ত পুলিশের অনুমতি না মেলায় র‌্যালি করতে পারবেন কিনা তা নিয়ে নিশ্চিত নন দলটির নেতাকর্মীরা। দলটির একজন সিনিয়র নেতা জানান, আমরা সকল শর্ত মেনে পুলিশের নিকট আবেদন করেছি। তারা যদি আমাদের অনুমতি দেয় তাহলে আমরা নারায়ণগঞ্জে সভা বা র‌্যালি করার প্রস্তুতি নিব। যদি অনুমতি না পাওয়া যায় তাহলে কেন্দ্রীয়ভাবে যেই কর্মসূচী পালিত হবে সেখানে যুক্ত হবো। তবে আমাদের বিশ্বাস নারায়ণগঞ্জের পুলিশ প্রশাসন আওয়ামীলীগ সহ অন্যান্য দলের মত আমাদেরকেও প্রতিষ্ঠা বার্ষিকীর র‌্যালি করার অনুমতি প্রদান করবেন। জানা গেছে, ১ সেপ্টেম্বর বিএনপির প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে সারাদেশে কেন্দ্রীয় নেতাদের নির্দেশ অনুযায়ী দিবসটি পালনের সিদ্ধান্ত নিয়েছ নারায়ণগঞ্জ বিএনপি। তবে প্রতিবারের মত ঘরোয়া আয়োজনেই আবার সীমাবদ্ধ থাকবেন কিনা নেতাকর্মীরা সেটিই এখন আলোচনার বিষয়। তবে এই অবস্থার পেছনে নারায়ণগঞ্জে জেলা ও মহানগর বিএনপি এখন পর্যন্ত স্থায়ী দলীয় কার্যালয় করতে না পারাটা অন্যতম ব্যর্থতা বলে ধরা হয়। ২০১৭ সালের ফেব্রুয়ারিতে অস্থায়ী কার্যালয় ভেঙ্গে ফেলার পর দলটির নেতারা নিজ বাসায় বা ব্যাবসা প্রতিষ্ঠানে আলাদা আলাদা ভাব কর্মসূচী পালন করে থাকেন। জেলা পুলিশের ঊর্ধ্বতন একজন কর্মকর্তা বলেন, বিষয়টি প্রক্রিয়াধীন রয়েছে। সার্বিক দিক বিবেচনা করেই সিদ্ধান্ত নেয়া হবে। তবে অগ্রিম ভাবে বলে দেয়া যাচ্ছে না যে অনুমতি পাচ্ছে কি পাচ্ছে না। যদি কোনভাবেই অনুমতি না পাওয়া যায় তাহলে সক্রিয় অধিকাংশ নেতারাই ছুটবেন ঢাকার দিকে অন্যথায় পূর্বের মত ঘরোয়া মিটিং এর ভেতরেই সীমাবদ্ধ থাকবেন নেতারা। এদের ভেতর বিএনপির চেয়ারপার্সনের উপদেষ্টা ও সাবেক জেলা বিএনপির সভাপতি অ্যাডভোকেট তৈমূর আলম খন্দকার কর্মসূচি করেন মাসদাইর এলাকার নিজ বাড়ির মজলুম মিলনায়তনে, জেলা বিএনপির বর্তমান সভাপতি কর্মসূচি পালন করেন রূপগঞ্জে ব্যক্তিগত ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে, সহ সভাপতি ও সোনারগাঁ উপজেলা পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান আজহারুল ইসলাম মান্নান পালন করেন একটি নামী কোম্পানির পেপার মিলের গোডাউনে, সাধারণ সম্পাদক মামুন মাহমুদ পালন করেন সিদ্ধিরগঞ্জে নিজ এলাকায়, মহানগর বিএনপির সভাপতি ও সাবেক এমপি আবুল কালাম বন্দরে নিজ বাড়িতে, সহ সভাপতি অ্যাডভোকেট সাখাওয়াত হোসেন পালন করেন ক্লাব মার্কেটে নিজের আইনজীবীর চেম্বারের ভিতরে।

About ডান্ডিবার্তা

View all posts by ডান্ডিবার্তা →

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *