কদর বেড়েছে শামীম ওসমানের

ডান্ডিবার্তা রিপোর্ট
নারায়ণগঞ্জে আওয়ামীলীগের রাজনীতিতে বরাবরই সাংসদ শামীম ওসমানের দাপট রয়েছে। তবে বেশ কিছুদিন জেলা ও মহানগর আওয়ামীলীগের একাংশ নেতারা তৃতীয় বলয় সৃষ্টি করার চেষ্টা করলেও অত:পর আবারো শামীম ওসমানে উজ্জীবিত হচ্ছে নারায়ণগঞ্জ জেলা ও মহানগর আওয়ামীলীগ। গত ২১ আগস্ট জেলা আওয়ামীলীগের ও গতকাল শনিবার মহানগর আওয়ামীলীগের কর্মসূচী সফল করতে রাজপথে ছিলেন শামীম ওসমানের অনুসারিরা। আর পৃথক ভাবেই জেলা ও মহানগর আওয়ামীলীগের ব্যাপক ভাবে কর্মসূচী পালন করেছেন। জানাগেছে, গত ২১ আগস্ট চাষাড়া শহীদ মিনারে জেলা আওয়ামী লীগের উদ্যোগে আয়োজিত স্মরণ সভায় বিশাল বিশাল মিছিল নিয়ে যোগদান করেছিলেন সাংসদ শামীম ওসমানের অনুসারিরা। নেতাদের স্লোগানে স্লোগানে কম্পিত হয় নারায়ণগঞ্জের রাজপথ। একই ভাবে গতকাল শনিবার বিকেলে মহানগর আওয়ামীলীগের উদ্যোগে জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে শোক র‌্যালী অনুষ্ঠিত হয়। শোক র‌্যালীতে কাউন্সিলর নাজমুল আলম সজল, কাউন্সিলর আব্দুল করিব বাবু, মহানগর আওয়ামীলীরে যুগ্ম সম্পাদক শাহ্ নিজাম, সাংগঠনিক সম্পাদক জাকিরুল আলম হেলাল, কার্যকরি সদস্য শাহাদাৎ হোসেন সাজনুসহ সাংসদ শামীম ওসমানের অনুসারিরা বিশাল বিশাল মিছিল নিয়ে শোক সভায় অংশ নেন। এতে বিশাল আকারে শোক র‌্যালী করতে সফল হয়েছে মহানগর আওয়ামীলীগ। অথচ ২১ আগস্ট যখন জেলা আওয়ামীলীগের স্মরণ সভা চলাকালীন সময়ে ২নং রেলগেইটস্থ দলীয় কার্যালয়ে মহানগর আওয়ামীলীগের উদ্যোগে বঙ্গবন্ধুর শাহাদাৎ বার্ষিকী ও ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলায় শহীদদের স্মরণে সভা করেছিল মহানগর আওয়ামীলীগ। আর ঐ সভায় কর্মী ছাড়াই হাতেগুনা কয়েকজন নিয়ে শেষ করেছিল মহানগর আওয়ামীলীগ। তবে জেলা আওয়ামীলীগের সভাতে মহানগর আওয়ামীলীগের অনেক নেতাই উপস্থিত ছিলেন। সেদিন ব্যাপক ভাবে মহানগর আওয়ামীলীগ কর্মসূচী পালনে ব্যর্থ হলেও গতকাল শনিবার সাংসদ শামীম ওসমানের কল্যানে ব্যাপক পাভে শহরে শোক র‌্যালী করতে সফল হয়েছে মহানগর আওয়ামীলীগ। অনুসন্ধানে জানাগেছে, সম্প্রতি সাংসদ শামীম ওসমানকে বেকায়দায় ফেলতে মরিয়া হয়ে উঠেছে একটি মহল। ঐ মহলটি তৃতীয় একটি বলয় সৃষ্টি করে সাংসদ শামীম ওসমানকে কোনঠাসা করার চেষ্টা করেছিল। তবে জেলা ও মহানগর আওয়ামীলীরে পৃথক দুটি কমৃসূচীকে কেন্দ্র করে নারায়ণগঞ্জে আওয়ামীলীগের রাজনীতিতে আবারো কদর বেড়েছে শামীম ওসমানের। অভিযোগ রয়েছে, জেলা ও মহানগর আওয়ামীলীগের অনেক নেতাই কর্মী শূণ্য। কর্মী না থাকলেও পদের দাপটে বিভিন্ন প্রকার ফায়দা লুটছেন। আবার কেউ কেউ পদে থাকলেও দলীয় কোন কর্মসূচীতে উপস্থিত না থেকে নিজের ঠিকাদার প্রতিষ্ঠান নিয়ে ব্যস্ত রয়েছেন। দলের স্বার্থে কোন ভূমিকা না রাখলেও পদের দাপটে বেশ আরামেই রয়েছেন। এছাড়াও একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন পূর্বক যেসকল নেতারা দলীয় মনোনয়ন পেতে রাজনীতিতে বেশ সক্রিয় ছিলেন তারা এখন দলীয় কর্মসূচীতেই উপস্থিত থাকছেন না। আবার কেউ কেউ উপস্থিত থাকলেও কর্মী ছাড়াই কর্মসূচীতে অংশ নিচ্ছেন। অথচ নির্বাচনের আগে শহরে বিশাল বিশাল শো-ডাউন করেছিলেন তারা। আর দলীয় স্বার্থে এখন আর শো-ডাউন করেন না। তবে বরাবরের মতই দলের ক্রান্তি সময় থেকে শুরু করে সুসময়েও রাজপথে নিজের অবস্থানের জানান দিয়ে আসছে সাংসদ শামীম ওসমান।

About ডান্ডিবার্তা

View all posts by ডান্ডিবার্তা →

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *