ফতুল্লায় ফিটনেসবিহীন গাড়ি সয়লাব

সোহেল রানা, ফতুল্লা প্রতিনিধি
ফতুল্লার সড়কে ফিটনেসবিহীন গাড়ি চলছে অনাসায়ে, দুর্ঘটনার কারণ হিসেবে ফিটনেসবিহীন গাড়ি। সড়ক দুর্ঘটনা আমাদের প্রাত্যহিক জীবনের একটি বড় অভিশাপ। রাস্তাঘাটের বেহাল দশা, ত্রুটিপূর্ণ যানবাহন, চালকের খামখেয়ালিপনা, অনভিজ্ঞ চালক দ্বারা গাড়ি পরিচালনাকেই দায়ী করা হচ্ছে। মানুষ নিত্যপ্রয়োজনে প্রতিনিয়তই দেশের এক জায়গা থেকে অন্য জায়গায় সড়ক পথে যাতায়াত করে থাকে। জীবনের তাগিদে সবাই গ্রাম থেকে শহরে বা শহর থেকে গ্রামে যে কোন যানবাহনে ছুটে চলছে। প্রতিটি মানুষই চায় তাদের চলার পথ যেন নিরাপদ হয়। আমাদের দেশের যোগাযোগ ব্যবস্থা অন্য যে কোন দেশের তুলনায় অনেক বেশি ঝুঁকিপূণ। সড়ক-মহাসড়কগুলোতে দুর্ঘটনা কমিয়ে আনতে বাংলাদেশ রোড ট্রান্সপোর্ট অথরিটি (বিআরটিএ) ফিটনেসবিহীন গাড়ি ও লাইসেন্সবিহীন চালকদের বিরুদ্ধে সারাদেশে অভিযান পরিচালনা করে আসছে। কিন্তু পোস্তগোলা থেকে মুক্তারপুর পর্যন্ত মাঝে শুধু পঞ্চবটি ছাড়া আর কোথাও দেখা মিলে না ট্রাফিক পুলিশের, সরকারের গৃহীত এই পদক্ষেপ কতটুকু আলোর মুখ দেখবে তা নিয়ে সংশয় দেখা দিচ্ছে সাধারণ মানুষদের মধ্যে। ঢাকা-ফতুল্লা, মুক্তারপুর দূরত্বের রাস্তাগুলোতে যাত্রী সেবার নামে যে পরিমাণে লক্কড়-ঝক্কড় গাড়ি চালিত হয়ে আসছে তাতে শুধু যাত্রী সেবাই ব্যাহত হচ্ছে না যাত্রীদের জীবনের নিরাপত্তা নিয়েও প্রশ্ন দেখা দিচ্ছে। ফিটনেসবিহীন এসব গাড়ির চালক ও হেলপাররা নিয়ম-নীতির কোন তোয়াক্কা না করে সদর্পে তারা তাদের গাড়ি পরিচালনা করে আসছে। ফতুল্লার এই সড়কটিতে শত শত ফিটনেসবিহীন গাড়ি চলতে দেখা যায়, নেই কোন শারাষি অভিযান। আইনকে বিদ্ধা আঙ্গুল দেখিয়ে লক্কর জক্কর ও লাইন্সেবিহীন গাড়ি চলে এই গূরুত্বপূর্ণ সড়কটিতে। এই সড়কটির পাশেই গড়ে উঠে শত শত শিল্প বানিজ্য প্রতিষ্ঠান, যানবাহনের মধ্যে ফিটনেস ও লাইসেন্স ছাড়াই চলছে শত শত গাড়ি। ফতুল্লার এই রুটটি দাবড়িয়ে বেড়াচ্ছে এসব অবৈধ চালক ও যানবাহন। তার পাশাপাশি ফতুল্লার এই ব্যস্ততম সড়কটিতে নসিমন, করিমন, ভটভটি, ব্যাটারিচালিত রিক্সা ও ইজিবাইকসহ এই সড়কটিতে যাতায়াত করছে। ফতুল্লার এক বাসিন্দা বলেন, প্রতিদিন এই সড়কে বেপোরোয়া ভাবে গাড়ি চলাচল করে রাস্তা পারাপার হওয়া যায় না। গাড়ির স্পিডে অনেক সময় গাড়ির ছোট বড় বিভিন্ন পার্স খুলে পরে যায়। আবার দেখা যায় গাড়ির কোন কিছু নষ্ট হলে ঘন্টার পর ঘন্টা রাস্তায় যানজট লেগে থাকে। ছোট বড় দূর্ঘটনার শিকার হচ্ছে পথচারিরা। ইট, বালরু ট্রাক গুলো চলছে অতিরিক্ত ওজন নিয়ে যার কারনে কোন কোন গাড়ির সমস্যা হতে দেখা যায়। এতে করে চরম দূর্ভোগের শিকার যাত্রীরা। ফিটনেসবিহীন গাড়ির পাশাপাশি ব্যাটারিত চালিত গাড়ি গুলো যানজট সৃষ্টির জন্য তারাও পিছিয়ে নেই।এই রাস্তাটিতে ট্রাফিক পুলিশ দেখা মিলে না, নাই কোন অভিযান, নাই কোন চেক পোষ্ট যাতে করে পুলিশ গাড়ির লাইসেন্স বা চালকের লাইসেন্স চেক করবে। যদি এই সড়কটিতে ট্রাফিক পুলিশের নজরদাড়ি বৃদ্ধি করা যেত তা হলে মনে হয় যাত্রিদের পাশাপাশি পথচারিরাও দূর্ভোগ থেকে রক্ষা পেত।

About ডান্ডিবার্তা

View all posts by ডান্ডিবার্তা →

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *