নারায়ণগঞ্জ রাইফেল ক্লাবে ই-ট্রাফিকিং কার্যক্রমের উদ্বোধন অনুষ্ঠানে ডিআইজি হাবিবুর রহমান না’গঞ্জে কোন চাঁদাবাজদের স্থান হবে না

ডান্ডিবার্তা রিপোর্ট
পুলিশের ঢাকা রেঞ্জের ডিআইজি হাবিবুর রহমান বলেছেন, নারায়ণগঞ্জ একটি ভিন্ন জেলা। অন্যান্য জেলার চেয়ে এই জেলার গুরুত্ব বেশি। যারা ইতিহাস পড়ছে তারা জানে এই নারায়ণগঞ্জ সম্পর্কে। এখানে ৩০ টিরও বেশি দৈনিক পত্রিকা চলে। চায়ের দোকানের হীরক জয়ন্তী পালিত হয়। প্রাচ্যের ডান্ডির আদমজী হারিয়ে গেলেও এর ইতিহাস মানুষ ভুলে যায়নি। জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এই নারায়ণগঞ্জে এসে বিভিন্ন আন্দোলনের মিটিং করেছিলেন। এই নারায়ণগঞ্জে অনিয়ম মানুষ মেনে নিবে না। যে কোন অবস্থায় যে কোন জায়গায় চাঁদাবাজ প্রতিহত করতে হবে। নারায়ণগঞ্জে কোন চাঁদাবাজদের স্থান হবে না। গতকাল রোববার দুপুরে নারায়ণগঞ্জ রাইফেল ক্লাব প্রাঙ্গনে ই-ট্রাফিকিং কার্যক্রমের উদ্বোধন অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। হাবিবুর রহমান বলেন, এই নারায়ণগঞ্জে পরিবহন সেক্টরে বিশৃংখলা রয়েছে এটা সত্যি। ৭ দিনের মধ্যে এই বিশৃংখলা রোধ করা সম্ভব। জেলা পুলিশ ও জেলা প্রশাসন ঐক্যবদ্ধ হলে ৭ দিনের মধ্যেই সম্ভব হবে। এর বেশি সময় লাগবে না। আপনাদের কথা বলতে হবে। সবাইকে আইনের প্রতি শ্রদ্ধা থাকতে হবে। আসুন সবাই মিলে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার যে স্বপ্ন দেখছেন সেই স্বপ্নের বাংলাদেশ গড়ে তুলি। তিনি আরও বলেন, অনেক ভাল অবস্থানে নারায়ণগঞ্জ জেলা পুলিশ। ফুটপাত দখলমুক্ত করা ও ভূমিদস্যু সহ সকল অন্যায়কে রুখে দিয়েছে নারায়ণগঞ্জ জেলা পুলিশ সুপার। সেই সাথে জেলা প্রশাসনও কাজ করে যাচ্ছে। আপনাদের অন্যায়ের বিরুদ্ধে কথা বলতে হবে, সচেতন হতে হবে। নারায়ণগঞ্জ জেলা পুলিশ সুপার হারুন অর রশিদের সভাপতিত্বে উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ঢাকা রেঞ্জের অতিরিক্ত ডিআইজি আসাদুজ্জামান, নারায়ণগঞ্জ জেলা প্রশাসক জসিম উদ্দিন, নারায়ণগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আব্দুল হাই, নারায়ণগঞ্জ জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও মহানগর সভাপতি আনোয়ার হোসেন, ইউনাইটেড কমার্শিয়াল ব্যাংক লিমিটেডের সি ই ও ব্যবস্থাপক পরিচালক মো. শওকত জামাল। ই-ট্রাফিকিং ব্যবস্থায় মোটরযান চালক ও মালিকদের দ্রুত সেবা দেওয়ার লক্ষ্যে নারায়ণগঞ্জ জেলায় প্রথম বারের মত ই-ট্রাফিকিং সিস্টেম চালু করা হলো। এজন্য ‘পস’ মেশিনে ট্রাফিক পুলিশের মামলা ও জরিমানা আদায় সংক্রান্ত বিষয়ে ট্রাফিক বিভাগের কর্মকর্তাদের প্রশিক্ষণ দেওয়া হয়েছে। এ মেশিনের মাধ্যমে গাড়ির রেজিস্ট্রেশন, ড্রাইভিং লাইসেন্স ও পূর্বে মামলা হয়েছে কি-না এ ধরণের সকল তথ্য পাওয়া যাবে। এছাড়া মোটরযান চালকেরা ব্যাংক কার্ড ব্যবহার করে ইউক্যাশের মাধ্যমে জরিমানার টাকা তাৎক্ষণিকভাবে পরিশোধ করতে পারবেন। পর্যায়ক্রমে অন্যান্য মোবাইল ব্যাংকিংয়ের সাথে যুক্ত করা হবে। নারায়ণগঞ্জ জেলায় ৪৩টি ইউক্যাশের এজেন্ট মাধ্যমে সরাসরি জরিমানার টাকা পরিশোধ করতে পারবেন। চালককে ট্রাফিক অফিসে আসতে হবে না। ইউক্যাশের মাধ্যমে জরিমানা পরিশোধ করা হলে নারায়ণগঞ্জ ট্রাফিক বিভাগের নিকট মোবাইলের মাধ্যমে ম্যাসেজ চলে যাবে তখন ট্রাফিক বিভাগ জব্দকৃত কাগজপত্র চালকের নিকট বুঝিয়ে দিবে।

About ডান্ডিবার্তা

View all posts by ডান্ডিবার্তা →

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *