শক্ত অবস্থানে না’গঞ্জ আওয়ামী লীগ

ডান্ডিবার্তা রিপোর্ট
একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের পর রাজপথে অনেকটা নিস্ক্রীয় ছিল জেলা ও মহানগর আওয়ামীলীগ। দল টানা তৃতীয়বারের মত ক্ষমতায় আসলেও রাজপথে শক্তির জানান দিতে ব্যর্থ হয়েছিল তারা। তবে নির্বাচনের সাত মাস পর রাজপথে নিজেদের অবস্থানের জানান দিয়েছে নারায়ণগঞ্জ আওয়ামীলীগ। জাতীয় শোক দিবস গ্রেনেড হামলায় নিহতদের স্মরণে উপলক্ষ্যে গত ২১ আগস্ট জেলা আওয়ামীলীগ ও ৩১ আগস্ট মহানগর আওয়ামীলীগ পৃথক দুটি কর্মসূচী পালনকে কেন্দ্র করে উজ্জীবিত হয়েছে জেলা ও মহানগর আওয়ামীলীগের কর্মীরা। যদিও এর আগে প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষ্যেও জেলা ও মহানগর আওয়ামীলীগ র‌্যালী করেছিল। কিন্তু তখনও তেমন বিশাল করে শো-ডাউন করতে পারেনি তারা। জানাগেছে, নারায়ণগঞ্জের রাজপথে থেকে আত্মগোপনে রয়েছে বিএনপি। বিএনপির কোন নেতাকে এখন আর প্রকাশ্যে দেখা যাচ্ছে না। ফলে জেলার রাজনৈতিক অঙ্গন পুরোপুরি ভাবে আওয়ামী লীগের নিয়ন্ত্রণে রয়েছে। একাদশ সংসদ নির্বাচন ও নির্বাচন পরবর্তি সময়ে আওয়ামী লীগের রাজনীতিতে নানা ধরনের বিতর্ক ও বিভেদ থাকলেও বর্তমানে জেলা ও মহানগর আওয়ামীলীগের নেতারা ঐক্যবদ্ধ হয়েছে। যদিও সাংসদ শামীম ওসমান ও মেয়র সেলিনা হায়াত আইভীর মধ্যে থাকা বিরোধ চলমান রয়েছে। তবে তাদের বিরোধকে তোয়াক্কা না করে জেলা ও মহানগর আওয়ামীলীগের নেতারা ঐক্য হতে শুরু করেছে। সূত্রমতে, বিএনপিকে হটিয়ে নারায়ণগঞ্জের রাজপথ নিয়ন্ত্রণে নিয়েছে আওয়ামী লীগের নেতৃত্বাধীন ক্ষমতাসীন জোট। জোটের সংসদ সদস্যরা নারায়ণগঞ্জের উন্নয়ণে কাজ করে যাচ্ছেন। পাশাপাশি জেলার প্রাণ কেন্দ্র হিসেবে পরিচিত চাষাঢ়ায় প্রবেশ পথগুলোতে ক্ষমতাসীন দল আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা নানা কর্মসূচী পালন করছেন। নারায়ণগঞ্জ জেলা ও মহানগর আওয়ামীলীগের মাঠ পর্যায়ের নেতাকর্মীরা বলছেন, নির্বাচনের পর শুধু মাত্র দলীয় কোন্দলের কারণে রাজপথে নিজেদের অবস্থানের জানান দিতে ব্যর্থ হয়েছে জেলা ও মহানগর আওয়ামীলীগের নেতারা। এছাড়াও জেলা ও মহানগর আওয়ামীলীগের অধিকাংশ নেতাই কর্মীবিহীন। আর ২১ আগস্ট ও ৩১ আগস্ট জেলা ও মহানগর আওয়ামীলীগের কর্মসূচীতে কর্মীবিহীন নেতারা ছিলেন অনুপস্থিত। বিভিন্ন অযুহাত দেখিলে কর্মসূচীতে অংশ নেয়নি তারা। তাই দলকে সাংগঠনিক ভাবে আরো শক্তিশালী করতে মেয়ার উত্তীর্ণ মহানগর আওয়ামীলীগের কমিটিও পুনর্গঠনের দাবী উঠেছে। আর আওয়ামীলীগের রাজনীতিতে নিস্ক্রীয় থাকা অনেক নেতাই জেলা আওয়ামীলীগের পদ দখল করে রেখেছে। বিশেষ বিশেষ ব্যক্তিদের কল্যানে রাজপথে নিস্ক্রীয় অনেক নেতাই জেলা আওয়ামীলীগের পদ দখল করে রেখেছে। তবে সম্প্রতি সাংসদ শামীম ওসমানের সাংগঠনিক দক্ষতার কারণে জেলা ও মহানগর আওয়ামীলীগের কর্মীরা উজ্জীবিত হয়েছে। রাজপথে নিজেদের অবস্থানের জানান দিচ্ছেন।

About ডান্ডিবার্তা

View all posts by ডান্ডিবার্তা →

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *