ফুটপাতে বছরে সাড়ে ৩ লাখ ইউনিট বিদ্যুৎ চুরি হয়

শহরের বিভিন্ন সড়কের ফুটপাত থেকে প্রতি বছর প্রায় ৩ লাখ ৬৫ হাজার ইউনিট বিদ্যুৎ চুরি করছে হকাররা। ফুটপাতে বসা হকাররা সড়কে অবস্থিত বৈদ্যুতিক খুঁটি থেকে অবৈধভাবে বিদ্যুৎ সংযোগ নিয়ে প্রতিনিয়ত বিদ্যুৎ চুরি করে যাচ্ছে। ফলে প্রতি বছর বিদ্যুৎ বিভাগের ক্ষতি হচ্ছে ৩৭লাখ ৫৯হাজার ৫০০টাকা। জানা গেছে, ঢাকা পাওয়ার ডিস্ট্রিবিউশন কোম্পানী লিমিটেড (ডিপিডিসি) নারায়ণগঞ্জ পশ্চিম ও পূর্ব দপ্তরের আওতাধীন পরেছে শহরের বিভিন্ন সড়কের ফুটপাত। বঙ্গবন্ধু সড়কের পশ্চিম দিকের ফুটপাত ও শহীদ মিনারের পেছনে ভাষা সৈনিক সড়ক পরেছে পশ্চিম দপ্তরে। এখানে অবস্থিত ফুটপাতে রয়েছে মাত্র ২০ভাগ অবৈধ বৈদ্যুতিক সংযোগ। বাকি ৮০ভাগ অবৈধ বিদ্যুৎ সংযোগ রয়েছে বঙ্গবন্ধু সড়কের পূর্বদিকের ফুটপাত সহ, নবাব সলিমুল্লাহ সড়ক, নবাব সিরাজউদ্দৌলা সড়ক, শায়েস্তা খান সড়ক সহ অন্যান্য সড়কের ফুটপাতে। সম্প্রতি ডিপিডিসির নারায়ণগঞ্জ সার্কেলের এক কর্মকর্তার মাধ্যমে পাওয়া গেছে এমন তথ্য। নাম প্রকাশ্যে অনিচ্ছুক সেই কর্মকর্তা জানান, কয়েকদনি পূর্বে আমরা সন্ধার পর শহরের ফুটপাতগুলোর অবৈধ বিদ্যুৎ সংযোদ বিচ্ছিন্ন করতে অভিযান পরিচালনা করেছিলাম। যদিও শহরের সব ফুটপাতে আমরা অভিযান চালাতে পারি নাই। কিন্তু শহরে ঘুরে যতটুকু বুঝেছি অন্তত এক হাজার ইউনিট বিদ্যুৎ প্রতিদিন এসব ফুটপাত থেকে চুরি হয়ে যাচ্ছে। বছরে হিসাব করলে এর পরিমাণ দাঁড়ায় ৩ লাখ ৬৫ হাজার ইউনিট। নারায়ণগঞ্জ সার্কেলের পশ্চিম দপ্তরে এর পরিমাণ খুব কম। কিন্তু পূর্ব দপ্তরে এর পরিমান অনেক বেশি। যেহেতু তাঁরা কমার্শিয়াল কাজে এসব বিদ্যুৎ ব্যবহার করছে তাই প্রতি ইউনিটের মূল্য দাঁড়ায় ১০ টাকা ৩০ পয়সা। অর্থাৎ শুধু ফুটপাত থেকেই বছরে চুরি হচ্ছে প্রায় সাড়ে ৩৭লাখ টাকার বিদ্যুৎ। তিনি আরো বলেন, তবে এসব অবৈধ সংযোগ বিচ্ছিন্ন করতে আমরা নিয়মিত অভিযান পরিচালনা করার কথা ভাবছি। এছাড়া সিটি কর্পোরেশনও অভিযান পরিচালনা করে থাকে। এখন থেকে নিয়মিত অবৈধ সংযোগ বিচ্ছিন্ন করা হবে। উচ্ছেদ অভিযান প্রসঙ্গে ডিপিডিসি নারায়ণগঞ্জ সার্কেলের তত্ত্বাবধায়ক সালেক মাহমুদ বলেন, উচ্ছেদ অভিযান ডিপিডিসি, সিটি কর্পোরেশন দুই সংস্থা করে। এসব অবৈধ সংযোগ বিচ্ছিন্ন করতে আমরা বদ্ধ পরিকর এবং সচেষ্ঠ। কয়েক দিন পূর্বেও আমরা অভিযানে নেমেছি। আমরা নিয়মিত অবৈধ সংযোগ বিচ্ছিন্ন করতে অভিযানে নামব। যারা অবৈধ সংযোগ নিচ্ছে তাদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

About ডান্ডিবার্তা

View all posts by ডান্ডিবার্তা →

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *