আগুন নিয়ে খেলবেন না, জিয়া, এরশাদ ও খালেদা জিয়া পারে নাই- শামীম ওসমান

ডান্ডিবার্তা রিপোর্ট
ফতুল্লা-সিদ্ধিরগঞ্জ আসনের সাংসদ একেএম শামীম ওসমান হুশিয়ারি উচ্চারণ করে বলেছেন, নারায়ণগঞ্জের প্রশাসনের ভাইয়েরা শুদ্ধি অভিযান চালান। আমি একটা মানুষ। তার মানে এইটা না যে, আমার কথা শুইনাই সবসময় আমার কর্মীরা চলবে। কারণ সবারই আত্মসম্মানবোধ আছে। গতকাল শনিবার বিকেলে শহরের মিশনপাড়া মোড়ে নবাব সলিমউল্লাহ সড়কের উপর অনুষ্ঠিত জনসভায় তিনি এসব কথা বলেন। জনসভায় শামীম ওসমান বলেন, হঠাৎ কইরা একেকজনের সাথে একেকটা সমস্যা হবে। নারায়ণগঞ্জ আওয়ামী লীগ মানে আগুন নিয়ে খেলা। কারোর কথায় আগুন নিয়ে খেলবেন না। পারবেন না। জিয়া, এরশাদ, খালেদা জিয়া পারে নাই। আর এটাতো শেখ হাসিনার বাংলাদেশ। তিনি আরও বলেন, আমরা যারা এমপি, মন্ত্রী তাদের প্রধানমন্ত্রী একটা কথাই বলেছেন- সব মানবো, সব ছাড় দেবো কিন্তু তৃণমূলের নেতাকর্মীকে যদি কোন মন্ত্রী, এমপি অসম্মান করেন আমি ছাড় দেবো না। আমি সেই শেখ হাসিনার কর্মী। তৃণমূলের নেতাকর্মীদের সাথে আছি, ছিলাম, থাকবো। যে কয়দিন শরীরে প্রাণ আছে ততদিন আপনাদের সাথে আছি। জনসভায় উপস্থিত ছিলেন জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আবু হাসনাত শহীদ মো. বাদল, মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এড. খোকন সাহা, সহ সভাপতি চন্দন শীল, এড. ওয়াজেদ আলী খোকন, যুগ্ম সম্পাদক শাহ্ নিজাম, সিদ্ধিরগঞ্জ থানা আওয়ামী লীগের সভাপতি মুজিবুর রহমান, ফতুল্লা থানা আওয়ামী লীগের সভাপতি এম সাইফুল্লাহ বাদল, সাধারণ সম্পাদক এম শওকত আলী, সোনারগাঁ থানা আওয়ামী লীগের আহ্বায়ক শামসুল ইসলাম ভূইয়া, জেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মীর সোহেল আলী, মহানগর আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক জাকিরুল আলম হেলাল, মহানগর যুবলীগের সভাপতি শাহাদাত হোসেন সাজনু ভূইয়া, জেলা মহিলা আওয়ামী লীগের সভাপতি প্রফেসর শিরিন বেগম, মহানগর মহিলা লীগের সভাপতি ইসরাত জাহান স্মৃতি, মহানগর স্বেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতি জুয়েল হোসেন, সাধারণ সম্পাদক ও নাসিক ২৩ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর সাইফুদ্দিন আহমেদ দুলাল প্রধান, নাসিক ১৬ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর নাজমুল আলম সজল, নাসিক ১৭ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর আব্দুল করিম বাবু, নাসিক ১৪ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর শফিউদ্দিন প্রধান, জেলা কৃষক লীগের সাধারণ সম্পাদক ইব্রাহিম চেঙ্গিস, সদর উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান মো. নাজিমউদ্দিন, জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি এহসানুল হাসান নিপু, জেলা আইনজীবী সমিতির সাধারণ সম্পাদক মোহসিন মিয়া, মহানগর মহিলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ইসরাত জাহান স্মৃতি, ফতুল্লা ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি মিছির আলী, জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি আজিজুর রহমান আজিজ, সাধারণ সম্পাদক আশরাফুল ইসমাঈল রাফেল, মহানগর ছাত্রলীগের সভাপতি হাবিবুর রহমান রিয়াদ, সাধারণ সম্পাদক হাসনাত রহমান বিন্দু প্রমুখ। এদিকে সমাবেশে যে কোন অরাজকতা প্রতিরোধে গতকাল শনিবার সকাল থেকেই চাষাঢ়া চত্ত্বরসহ বিভিন্ন স্থানে দেখা যায় পুলিশের এ সতর্ক অবস্থান। শহরের চাষাঢ়া খাজা মার্কেটের সামনে রাখা হয়েছে পুলিশ জলকামান ও পুলিশ ভ্যান। অন্যদিকে চাষাঢ়া পুলিশ বক্সের সামনে সাজোঁয়া যান। শামীম ওসমানের জনসভাকে ঘিরেই পুলিশের এই কঠোর নিরাপত্তা ব্যবস্থা। সভাকে কেন্দ্র করে পুরো শহরে কড়া নিরাপত্তা ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে। জনসভাকে ঘিরে শহরের কেন্দ্রস্থল চাষাঢ়া ও আশপাশের এলাকায় মোতায়েন করা হয়েছে প্রায় দুই শতাধিক পুলিশ ও গোয়েন্দা পুলিশ সদস্য। পাশাপাশি প্রস্তুত ছিল এপিসি কারসহ জলকামান। সমাবেশ শেষ হওয়া পর্যন্ত চারপাশে এই কঠোর নজরদারি রাখা হয় পুলিশের।

About ডান্ডিবার্তা

View all posts by ডান্ডিবার্তা →

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *