আ’লীগের কমিটিতে পদ পেতে নেতাদের দৌঁড়ঝাপ অব্যাহত

ডান্ডিবার্তা রিপোর্ট
নারায়ণগঞ্জে আওয়ামী লীগের রাজনীতিতে বইছে কাউন্সিল ঝড়। চলতি বছরের মধ্যে মেয়াদ উর্ত্তীণ কমিটিগুলোকে নতুন করে সাজানোর নিদের্শ দেয়ার পর নেতাকর্মীরা নতুন করে নড়েচড়ে বসেছে। জেলা আওয়ামী লীগের শীর্ষ নেতারা সময়ের আগেই কমিটিগুলো পূর্নগঠনের চেষ্টা করছেন। তবে কমিটি গঠন প্রক্রিয়া শুরু হওয়ার পর থেকেই জেলা আওয়ামী লীগের রাজনীতিতে বইছে পদ পদবী পাওয়ার প্রতিরোগীতা। দলের ত্যাগী এবং পরীক্ষিত নেতাদের পাশাপাশি হাইব্রীড নেতাদেরও দৌড়ঝাপ শুরু হয়েছে বলে বিভিন্ন সূত্রে জানাগেছে। ফতুল্লা থানা আওয়ামী লীগের কমিটিতে পদ পেতে সাবেক এমপি কবরীর ঘনিষ্ঠজন হিসেবে পরিচিতরাও হঠাৎ করেই থানা কমিটিতে স্থান পেতে দৌড়ঝাপ করছেন বলেও দলের বিশ^স্ত সূত্রে জানাগেছে। এ নিয়েও ফতুল্লার রাজনতিতে চলছে নানা আলোচনা-সমালোচনা। এছাড়া সোনারগাঁ থানা কমিটি গঠন নিয়ে স্থানীয় আওয়ামী লীগ দুই ভাগে বিভক্ত হয়ে প্রকাশ্যে বিরোধে নেমে পরেছে। ইতোমধ্যে দুই গ্রুপের মধ্যে ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়ার ঘটনাও ঘটেছে। তবে বন্দর কমিটি গঠন নিয়েও বিরোধের আশঙ্কা করছে স্থানীয় আওয়ামী লেিগর নেতাকর্মীরা। সিদ্ধিরগঞ্জ এবং সদরের কমিটি নিয়ে এখন পর্যান্ত কোন আলোচনা না থাকলেও অল্প কিছুদিনের মধ্যেই গঠন প্রক্রিয়া শুরু হবে বলে জেলা আওয়ামী লীগের দায়িত্বশীর একাধিক সূত্র নিশ্চিত করেছে। তবে দাবি উঠেছে ত্যাগী নেতাদের সঠিক মূল্যায় করার বিষয়টি। সূত্রমতে, নারায়ণগঞ্জ আওয়ামী লীগের রাজনীতিতে নতুন করে পরিবর্তণের হাওয়া লেগেছে। প্রবীনদের পাশাপাশি তরুণ নেতাদের কমিটিতে রাখতে এবং থাকতে তৎপরতা শুরু হয়েছে। জেলা আওয়ামী লীগ কেন্দ্রীয় নিদের্শনা অনুযায়ী থানা এবং উপজেলা কমিটিগুলো পূর্নগঠনে কাজ শুরু করে দিয়েছে। ইতোমধ্যে মন্ত্রী গাজি তার পছন্দের লোকদের নিয়ে কমিটিগঠন করেছে। একই পথে হেটেছে এমপি বাবুও। সোনারগাঁ উপজেলা আওয়ামী লীগের আহবায়ক কমিটি নিয়ে শুরু হয়েছে উত্তেজনা। ইতোমধ্যে সোনারগাঁয় এ নিয়ে প্রকাশ্যে সংঘর্ষে ঝড়িয়ে পরেছে স্থানীয় আওয়ামী লীগের বিবাদমান দুই গ্রুপ। যা ইতোমধ্যে দলের কেন্দ্রীয় সাধারন সম্পাদক ওবায়দুল কাদেরকে অবগত করা হয়েছে। অন্যদিকে, ফতুল্লা থানা আওয়ামী লীগ গঠন নিয়ে কাজ শুরু করেছে জেলা আওয়ামী লীগ। থানা আওয়ামী লীগের শীর্ষ নেতারাও নতুন কমিটি করতে কাজ করে যাচ্ছেন। চলতি মাসে না হলেও আগামী মাসে ফতুল্লা থানা কমিটি ঘোষণা করা হবে। তবে সাবেক এমপি কবরীর সময়ে যারা দলের মূল ধারার নেতাদের মাইনাস করে মাঠ দাবড়িয়ে বেড়িয়েছেন তাদের অনেকে নতুন কমিটিতে স্থান করে নিতেও দৌড়ঝাপ শুরু করেছে বলে দলের দায়িত্বশীল একাধিক সূত্রে জানাগেছে। এ নিয়ে দলের ত্যাগী নেতাদের মধ্যে অসন্তোষ দেখা দিয়েছে। দলের কেউ চাচ্ছে না কবরী পন্থি কোন নেতা থানা আওয়ামী লীগে স্থান পাক। জেলা আওয়ামী লীগের দায়িত্বশীল একাধিক সূত্র জানান, বিতর্কীত কাউকে কমিটিতে স্থান দেয়া হবে না।

About ডান্ডিবার্তা

View all posts by ডান্ডিবার্তা →

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *