প্রেস স্টিকার লাগিয়ে অপরাধীরা তৎপর!

ডান্ডিবার্তা রিপোর্ট
নারায়ণগঞ্জে মোটরসাইকেলে প্রেস লেখা স্টিকার লাগিয়ে দাঁবড়িয়ে বেড়াচ্ছে অপরাধীরা। মোটর গেরেজের শ্রমিক থেকে শুরু করে চিহিৃত অপরাধীদের মোটরসাইকেলে এখন শোভা পাচ্ছে প্রেস লেখা স্টিকার। এতে বিভ্রান্তিতে পড়ছে সাধারণ মানুষ ও ট্রাফিক পুলিশ। শহর ও শহরতলীতে মোটরসাইকেলে প্রেস লেখা স্টিকার লাগিয়ে ঘুরে বেড়াচ্ছে অপরাধী চক্র। তারা পুলিশের সামনে থেকে বেপরোয়া গতিতে চালিয়ে যাচ্ছে মোটরসাইকেল। এছাড়াও নারায়ণগঞ্জে ভূয়া সাংবাদিকদের দৌরাত্ম্য অতীতের সকল রেকর্ড ভঙ্গ করে চরমে পৌঁছেছে। বিভিন্ন যানবাহনে প্রেস স্টিকার লাগিয়ে দাবড়িয়ে বেড়াচ্ছে কথিত সাংবাদিকরা। অভিযোগ রয়েছে, বিভিন্ন অপরাধীরা তাদের গাড়িতে প্রেস স্টিকার লাগিয়ে অপকর্ম করে যাচ্ছে। অতীতে নারায়ণগঞ্জের বিভিন্ন স্থানে প্রেস স্টিকার লাগিয়ে মাদক বহন কালে গ্রেফতারও হয়েছিল অনেক মাদক ব্যবসায়ী। বর্তমানে ঝুট সন্ত্রাসী থেকে শুরু করে ব্যবসায়ী ও রাজনৈতিক নেতারাও তাদের যানবাহনে প্রেস স্টিকার ব্যবহার করছে। এতে করে পেশাদার সাংবাদিকরা বিভিন্ন সময়ে বিব্রতকর পরিস্থিতিতে পড়ছেন। গতকাল সোমবার চাষাড়া চত্বরে প্রেস স্টিকার লাগানো বেশ কয়েকটি মোটর সাইকেল চোখে পড়ে। মোটরসাইকেল চালকদের সাথে কথা বলে জানাগেছে, একজন ডিস ও আরেক জন কাপড় ব্যবসায়ী। অখ্যাত কিছু পত্রিকা ও অনলাইনের কার্ড সংগ্রহ করেছেন তারা। এছাড়াও প্রেস স্টিকার লাগিয়ে নির্বিঘেœ নানা অপকর্ম করে যাচ্ছে। বিশেষ করে মাদক বহনেও প্রেস স্টিকার ব্যবহার করা হচ্ছে। অনুসন্ধানে জানাগেছে, ভূয়া সাংবাদিকেরা বিভিন্ন প্রতারণার ফাঁদ পেতে এবং গলায় তথাকথিত মানবাধিকার সংগঠনের কার্ড ঝুলিয়ে নিজেদেরকে ‘সাংবাদিক’ পরিচয় দিয়ে নিরীহ ও নিরপরাধ লোকজনকে নানাভাবে হয়রানি করছে বলেও অভিযোগ পাওয়া যাচ্ছে। সাংবাদিক পরিচয়ে এরা ছিনতাই, চাঁদাবাজি, জমি দখল, দোকানপাট দখল, মাদক ব্যবসাসহ নানা অপকর্মে জড়িত হয়ে পড়ছে। এই চক্রে বেশ ক’জন নারী সদস্য রয়েছেন বলেও জানা যায়। এরা মটোরসাইকেল, প্রাইভেটকার ও মাইক্রোবাসে ‘প্রেস’ কিংবা ‘সংবাদপত্র’ লিখে পুলিশের সামনে দিয়েই নির্বিঘেœ দাবড়ে বেড়ায়। সাংবাদিক পরিচয়দানকারী এসব নামধারী সাংবাদিকদের বিভিন্ন অনৈতিক কর্মকান্ডের কারণে নারায়ণগঞ্জের প্রকৃত ও পেশাদার সাংবাদিকদের ভাবমূর্তি এখন প্রশ্নবিদ্ধ হওয়ার উপক্রম হয়ে পড়েছে। বলা যেতে পারে, এসব ভূয়া সাংবাদিকদের দাপটের কারণে নারায়ণঞ্জে প্রকৃত ও পেশাদার সাংবাদিকরা এখন ‘অসহায়’ হয়ে পড়েছেন। পুলিশ সূত্র জানায়, অনেকে সাংবাদিক না হয়েও মোটরসাইকেলসহ বিভিন্ন যানবাহনে প্রেস, সাংবাদিক কিংবা সংবাদপত্রের স্টিকার ব্যবহার করছেন। এছাড়াও নির্বিঘেœ নানা অপকর্ম চালিয়ে যেতে এসব ভূয়া সাংবাদিকেরা বিভিন্ন সামাজিক সংগঠনের নাম ব্যবহার করে একাধিক ভূয়া সংগঠনও গড়ে তুলছে। সম্প্রতি ফতুল্লার একটি মিষ্টির দোকানে সাংবাদিক পরিচয়ে ভ্রাম্যমান আদালতের অভিযানের হুমকি দিয়ে চাঁদাবাদী করে। পরিবর্তিতে একজন সংবাদ কর্মী পরিচয় গোপন করে ঐ প্রতারকের সাথে কথা বলার চেষ্টা করলে সে অবস্থা অসুবিধাজনক দেখে পালিয়ে যায়। তাই ভূয়া সাংবাদিকদের বিরুদ্ধে এখনই ব্যবস্থা নিয়ে প্রশাসনের প্রতি আহবান জানিয়েছেন পেশাদার সাংবাদিকগণ।

About ডান্ডিবার্তা

View all posts by ডান্ডিবার্তা →

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *