নারায়ণগঞ্জ-আদমজী সড়কে শ্রমিকলীগের নামে ইজিবাইকে স্টীকার লাগিয়ে চাঁদাবাজি

ডান্ডিবার্তা রিপোর্ট

শ্রমিকলীগের ব্যানারে কামরুজ্জামান বাদল নামে এক নব্য চাঁদাবাজ শিমরাইলমোড় টু নারায়ণগঞ্জ সড়কে চলাচলরত ইজিবাইক থেকে চাজাঁদাবাজি করছেন বলে গুরুতর অভিযোগ রয়েছে। প্রতি ইজিবাইকে বাদল তার দেওয়া স্টীকার দিয়ে ইজিবাইক থেকে ২০০ টাকা করে  চাঁদা আদায় করছে। বাদলকে চাঁদা প্রদান না করলে ইজিবাইক চালকদের মারধরকরাসহ নানা ভয়ভীতি প্রদর্শন করা হয় বলে জানাগেছে। এ সড়কে চলাচলকৃত ইজিবাইকের সংখ্যা ৭ হাজারেরও বেশী। ইতিমধ্যে কামরুজামান বাদল কয়েক শত ইজিবাইকে স্টীকার দিয়ে কয়েক লাখ টাকা চাঁদা হাতিয়ে নিয়েছে। গত ৪ মাস ধরে ইজিবাইকে চাঁদাবাজি সম্পূর্ণ বন্ধ ছিল। র‌্যাব ইজিবাইকের নিয়ন্ত্রণকারীদের চাঁদাবাজির অভিযোগে কয়েকজনকে গ্রেফতার করে সিদ্ধিরগঞ্জ থানায় মামলা দায়ের করার পর ইজিবাইকে চাঁদা উত্তোলন বন্ধ হয় যায়। যার কারণে ইজিবাইক গুলো চাঁদাবিহীন চলাচল করার সুযোগ পায়। কিন্তু  নাসিক ৬ নং ওয়ার্ডের এসওরোডের কেরামত আলীর ছেলে কামরুজ্জামান বাদল নিজেকে শ্রমিকলীগের সদস্য পরিচয় দিয়ে গত প্রায় এক মাস ধরে ইজিবাইকে স্টীকার দিয়ে গাড়ি প্রতি ২০০ টাকা করে চাঁদা উত্তোলন করছে। ট্রাফিক পুলিশ ও থানা পুলিশের নাম ভাঙ্গিয়ে বাদল এই চাঁদা উত্তেঅরন করছে বলে জানাগেছে। অথচ শিমরাইলে কতর্ব্যরত ট্রাফিক পুলিশের রেকারের দায়িত্বে থাকা এটিএসআই মোঃ আনোয়ার হোসেন বলেন ইজিবাইকের সাথে আমাদের কোন প্রকার সম্পর্ক কিংবা লেনদেন নেই, সিদ্ধিরগঞ্জ বিদ্যুৎ অফিসের পশ্চিম পাশে সাইনবোর্ড টানানো রয়েছে সকাল ৮ টা থেকে রাত ৮ টা পর্যন্ত  শিমরাইলমোড়ে ইজিবাইক ও ব্যাটারি চালিত রিকশা প্রবেশ নিষেধ। এগুলো পেলে আমরা রেকারিং করছি এবং রেকার বিল করছি, এটিএসআই মোঃ আনেয়ার হোসেন আরও বলেন আমাদের ট্রাফিক বিভাগের কারো সাথে ইজিবাইক এর সাথে  কোন প্রকার আর্থিক সম্পর্কের প্রশ্নই উঠৈনা। এটিএসআই আনোয়ার হোসেন বলেন আমরা আমাদের উর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের নির্দেশ মোতাবেক মহাসড়কে কোন প্রকার ইজিবাইক, ব্যাটারি চালিত রিকশা কিংবা থ্রী হুইলার যানবাহন চলাচল করতে দিচ্ছিনা, এগুলো পেলে আমরা রেকারিং করে বিল করছি অত্যন্ত স্বচ্ছতার সাথে। তিনি ইজিবাইক চালকদের উদ্দেশে বলেন আমাদের বেধেঁ দেওয়া সীমানার বাইরে গাড়ি চালান,  এছাড়া আমাদের ট্রাফিক পুলিশের নামে কেউ কোন প্রকার  চাঁদা দাবি করলে থানা পুলিশকে জানানোর জন্য তিনি অনুরোধ করেছেন। কয়েকজন ভুক্তভোগী ইজিবাইক চালক নাম না প্রকাশ করার শর্তে বলেন শ্রমিকলীগ নেতা দাবি করে আদমজীনগরের এসওরোডের নব্য চাঁদাবাজ কামরুজ্জামান ওরফে বাদল প্রতিটি ইজিবাইক থেকে মাসোয়ারা হিসেবে ২০০ টাকা করে চাঁদা নিচ্ছে। বাদলের রয়েছে সংঘবদ্ধ ১০-১৫ জনের একটি চাঁদা আদায় বাহিনী। তারা সিদ্ধিরগঞ্জপুল, আদমজী ইপিজেডগেট, সাইলোর রাস্তারমোড়সহ বিভিন্ন স্থানে দাঁড়িয়ে ইজিবাইক থেকে চাঁদা আদায় করছে। বাদলের দাবিকৃত চাঁদা প্রদান না করলে ইজিবাইক চালকদের গাড়ি ডাম্পিং, রেকারিংকরাসহ বিভিন্ন ভয়ভীতি দেখানো হয় এমনকি মারধর করতেও দ্বিধাবোধ করেনা। ইজিবাইক চালকদের দাবি নব্য চাঁদাবাজ বাদল ও তার সহযোগী চাঁদাবাজদের গ্রেফতার পূর্বক দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি জানান।

About ডান্ডিবার্তা

View all posts by ডান্ডিবার্তা →

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *